অত্যাচার ও নির্যাতনে অতিষ্ট হলদিয়ার এলাকার সাধারন মানুষ

0
51

শফিউল আলম, রাউজান প্রতিনিধিঃ বালুখোকো জাহেদুল আলম হিরুর অত্যাচার ও নির্যাতনে অতিষ্ট হলদিয়ার এলাকার সাধারন মানুষ । রাউজানের ১নং হলদিয়া ইউনিয়নের হলদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দক্ষিন পাশে অবস্থিত মৃত শামশুল আলমের পুত্র জাহেদুল আলম হিরুর বাড়ী । জাহেদুল আলম হিরু একসময়ে নাজির হাট এলাকায় তরকারী বিক্রয় করে। জাহেদুল আলম হিরু সিএনজি অটো রিক্সা চালাতো । পুর্বেই বিএনপির রাজনৈতিক ক্যাডার হিসাবে এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে বেড়াতো জাহেদুল আলম হিরু। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর জাহেদুল আলম হিরু এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গিয়ে নাজির হাট এলাকায় তরকারী বিক্রয় করতো । বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর সর্তা খাল থেকে বালু উত্তোলনের দন্দ্বের জের ধরে জাহেদুল আলম হিরুর চাচাত ভাই নাসির উদ্দিনকে হলদিয়া রাবার বাগান শিরনী বটতল এলাকায় নাসিরের প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্যা করে। নাসির হত্যাকান্ডের পর জাহেদুল আলম হিরু নাজির হাট থেকে তরকারী বিক্রয় করার পেশা ছেড়ে এলাকায় এসে নাসিরের হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্বে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠে । নিহত নাসিরের স্ত্রীকে হাত করে নেয় । হলদিয়া ইউনিয়নের কতিপয় আওয়ামী লীগের নেতার হাত ধরে হলদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা পরিচয় দিয়ে হলদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের হলদিয়া বড়–য়া পাড়া, সওদাগর বাড়ী, বাড়ই পাড়া, বইজ্যার হাট এলাকায় সর্তা খালের মধ্যে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে বালু উত্তোলন শুরু করে। সর্তা খাল থেখে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় হলদিয়া বড়–য়া পাড়া, সওদাগর বাড়ী, বাড়ই পাড়ার শতাধিক পরিবারের বসতঘর, হলদিয়া বড়–য়া পাড়া সড়ক, হলদিয়া ভিলেজ রোড সর্তা খালের মধ্যে বিলিন হয়ে পড়ে। আরো শতাধিক পরিবারের বসত ঘর হুমকির মুখে পড়েছে । এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ লোকজন সর্তা খাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন কাজে বাধা দিয়ে বালুখোকো জাহেদুল আলম হিরু এলাকার ১৭ যুবকের বিরুদ্বে মিথ্যা মামলা করে তাদেও হয়রানী কওে আসছে । এলাকার লোকজন বালু উত্তোলনে বাধা দিলে এলাকার লোকজনকে মারধর করে তাদেকে মামলা দিয়ে জেলে নেওয়ার হুমকি প্রদান করে বলে হলদিয়া বড়–য়া পাড়ার বাসিন্দ্বা মিলন বড়–য়া ও সওদাগর বাড়ীর বাসিন্দ্বা হোসেন আরা বেগম জানান । গত ৬ অক্টোবর এলাকার ২শতাধিক বাসিন্দ্বা নব্য যুবলীগ নেতা জাহেদুল আলম হিরুর অত্যাচার ও নির্যাতনে অতিষ্ট হয়ে সর্তার খাল থেধকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্দ্ব করে এলাকার মানুষের বসতবাড়ী, জনগনের চলাচলের সড়ক সর্তার খালের ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার জন্য রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগের কাছে লিখিতভাবে আবেদন করেন। গত ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার সকালে নব্য যুবলীগ নেতা জাহেদুল আলম হিরু তার সহযোগি সন্ত্রাসীদের নিয়ে ধেমীয় তৈয়ারী অস্ত্র সজ্জিত হয়ে সর্তার খাল থেকে বালু উত্তোলন করার জন্য উপস্থিত হলে এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা বাধা দেয় । এসময়ে জাহেদুল আলম হিরু ও তার সহযোগিরা এলাকার সাধারন মানুষের উপর হামলা করার প্রচেষ্টা চালালে এলাকার লোকজনের সাথে জাহেদুল আলম হিরু ও তার সহযোগিদের সংর্ঘষ হয় । এতে জাহেদুদলূ আলম হিরু ও এলাকার কয়েকজন লোক আহত হয় । জাহেদুল আলম হিরু এঘটনার পর এলাকার সাধারন মানুষের বিরুদ্বে রাউজান থানায় মামলার করার প্রচেষ্টা চালায় এসময়ে হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্বা শফিকুল ইসলামের হস্তক্ষেপে এলাকার নিরিহ লোকজনের বিরুদ্বে মামলা করতে পারেনি জাহেদুল আলম হিরু । হলদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সাধারন মানুষ নব্য যুবলীগ নেতা জাহেদুল আলম হিরু ও তার সহযোগি সন্ত্রাসীদের হুমকিতে চরম আতংকের মধ্যে পরিবার পরিজন নিয়ে দিনযাপন করছেন বলে এলাকার লোকজন জানান । এলাকার লোকজন অভিযোগ করে বলেন নব্য যুবলীগ নেতা জাহেদুল আলম হিরু গত কয়েক বৎসরে সর্তা খাল থেকে অবৈধভাবে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে বালু উত্তোলন করায় এলকাার শতাধিক পরিবারের বসতঘর সর্তা খালের মধ্যে বিলিন হয়ে গেলে ও জাহেদুল আলম হিরু অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে প্রতিদদিন শত শত ট্রাক জীপে করে বালু বিক্রয় করে নিজের পৈতৃক বসতভিটায় পাকা দালান ঘর বাড়ীর পাশে হলদিয়া ভিলেজ রোডের পাশে পাকা ও সেমি পাকা বাণ্যিজিক ভবন নির্মান করেছে । বালুখোকো জাহেদুল আলম হিরু অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে বলে জানান এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা । এই ব্যাপারে হলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্বা শফিকুল আলম বলেন, জাহেদুল আলম হিরুর অত্যাচার ও নির্যৃাতনে এলাকার লোকজন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে । রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ বলেন এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা অবৈধভাবে সর্তার খাল থেকে বালু উত্তোলন বন্দ্বের জন্য আবেদন করেছেন । সরেজমিনে গিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্দ্ব করা হবে ও অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার কাজে জড়িত যে হউক না কেন তাকে শাস্তি প্রদান করা হবে । রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্ল্যাহ বলেন বালুখোকো জাহেদুল আলম হিরুর বিরুদ্বে এলাকার লোকজন তাদেরকে নির্যাতন ও অত্যাচার করার অভিযোগ করছে প্রতিনিয়ত । তবে কেউ বাদী হয়ে জাহেদুল আলম হিরুর বিরুদ্বে মামলা করেনি । হলদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সর্তা খালে পাওয়ার পাম্প বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন কারী সন্ত্রাসী সিন্ডিকেটের সদস্যরা হলদিয়া রাবার বাগান এলাকায় রাবার বাগানের উপজাতীয় মহিলা কর্মচারীকে হলদিয়া রাবার বাগান এল্কাায় তার ঘরে গিয়ে ধর্ষন কওে গত ২০১৪ সালে । এই ঘটনার ব্যাপারে নারী শিশু নির্যাতন আইনে রাউজান থানায় মামলা করা হয় । হলদিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সাধারন মানুষ নভ্য যুবলীগ নেতা জাহেদুল আলম হিরু ও তার সহযোগিদের অত্যাচার ও নির্যাতন থেকে রক্ষার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ।