অপহরণ ও খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করলো মেজর আরিফ

0
4

মেজর আরিফনারায়ণগঞ্জে সাতজনকে অপহরণ ও খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন র‌্যাব-১১-এর সাবেক কর্মকর্তা মেজর আরিফ হোসেন।

আজ বুধবার দুপুরে মেজর আরিফকে কঠোর গোপনীয়তা ও নিরাপত্তার মধ্যে জেলার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে তিনি এ জবানবন্দি দেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান প্রথম আলোকে বলেন, নারায়ণগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম এ এম মহিউদ্দিনের কাছে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মেজর আরিফ। বিচারকের খাসকামরায় এ জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

আদালত সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন খান আরও বলেন, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে মেজর আরিফ ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা, হত্যাকাণ্ডে কারা কারা জড়িত এবং নিজে জড়িত থাকার ‘দায় স্বীকার’ করেছেন।

নারায়ণগঞ্জে পাঁচ অপহরণ ও খুনের ঘটনায় নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলামের দায়ের করা মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে আজ মেজর আরিফকে আদালতে হাজির করা হলে তিনি এ জবানবন্দি দেন। জবানবন্দি শেষে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। তাঁকে মোট তিন দফা রিমান্ডে নেওয়া হয়।

২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহূত হন নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন। এর তিনদিন পর ছয়জনের এবং পরদিন আরেকজনের লাশ শীতলক্ষ্যায় ভেসে ওঠে।

তিন কর্মকর্তাসহ র‌্যাবের আরও কয়েকজন জড়িত