আজমেরী ওসমানের বাসায় অভিযান, গ্রেপ্তার ২

0
16

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক এমপি প্রয়াত নাসিম ওসমানের ছেলে আজমেরী ওসমানের বাসায় অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। অভিযান চালিয়ে তার দুই সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আজমেরী ওসমানের বিরুদ্ধে থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ বৃহস্পতিবার  দিবাগত রাতে শহরের আমলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা বাচ্চু মিয়া বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন৷ অন্য আসামিরা হলো—শহরের গলাচিপা ডিএন রোডের গোলজার হোসেনের ছেলে মোখলেসুর রহমান, জেলা ছাত্রসমাজের আহবায়ক মো. শাহাদাৎ হোসেন রুপু (৩২), জুয়েল৷
জানা যায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা, ফতুল্লা মডেল থানা ও ডিবি পুলিশের সদস্যরা আজমেরীর আল্লামা ইকবাল রোডের বাসায় অভিযান চালান। আটক হওয়া দুজন হলেন শাহাদাৎ হোসেন ও মোখলেছুর রহমান। শাহাদাৎ হোসেনের বাড়ি ফতুল্লার ইসদাইর এলাকায়। বাবা মো. ফকির চান। সে জেলা ছাত্রসমাজের আহ্বায়ক । মোখলেছুর রহমানের বাড়ি সোনারগাঁয়ের নাজিরপুর এলাকায়।

বাবা গোলজার হোসেন।
জেলা পুলিশের মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন জানান, দআমলাপাড়ার বাসিন্দা বাচ্চুর বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর ঘটনায় আজমেরী ওসমানের দুই সহযোগীকে আটক করা হয়েছে। পরে তাদের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে সরকারি তোলারাম কলেজের সামনের সড়কে ১০ থেকে ১২টি গাড়িতে পুলিশ প্রবেশ করে। কলেজ-সংলগ্ন আজমেরীর বাসা ঘেরাও করেন পুলিশের শতাধিক সদস্য। অভিযানের শুরুতেই বাড়ির ভেতর থেকে বাদানুবাদের শব্দ শোনা যায়। একপর্যায়ে পুলিশ আজমেরীর অফিসে তল্লাশি চালিয়ে দুজনকে আটক করে।
মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় একটি নম্বর থেকে কল করে আজমেরী ওসমানের পরিচয় দিয়ে আমলাপাড়ার বাসিন্দা বাচ্চু মিয়ার কাছে ৬৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে৷ চাঁদার টাকা আনার জন্য মোখলেস কালিমন্দিরের সামনে বাচ্চু মিয়ার সাথে দেখা করে। পরে আজমেরী ওসমান তাকে ডাকছে বলে মোখলেসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন জোর করে টেনে-হিচড়ে কালিরবাজারের মাংস পট্টি আফসু মহাজনের হোটেলের সামনে নিয়ে এলোপাথাড়ি মারধর করে৷ মারধরের পর চাঁদার টাকা না দিলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়৷
আজমেরীর দুই চাচা শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন ও সেলিম ওসমান নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ।