আমানবাজার থেকে অজগর উদ্ধার

0
203

শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) সকালে খাবারের খোঁজে লোকালয়ে নেমে আসা একটি অজগরকে গণপিটুনির হাত থেকে বাঁচিয়ে চিড়িয়াখানায় হস্তান্তর করেছেন সচেতন তরুণরা।

হাটহাজারী উপজেলার আমানবাজারে ৮ ফুট লম্বা, ৮ কেজি ওজনের অজগরটি বায়তুল আমান জামে মসজিদের সামনের নালা থেকে বেরিয়ে সড়ক পারাপারের সময় স্থানীয় লোকজনের চোখে পড়ে। এরপর সেটিকে মেরে ফেলার জন্য গণপিটুনি দিতে উদ্যত হয় কিছু মানুষ। এ সময় স্থানীয় দোকানি মো. ওসমান ও আবদুল মোতালেব সাপটিকে উদ্ধার করে ফয়’স লেকের চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় নিয়ে আসেন।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও আশপাশের পাহাড়ি এলাকা থেকে অজগর, হরিণসহ যেকোনো বন্যপ্রাণী লোকালয়ে নেমে এলে নির্বিচারে হত্যা না করে প্রশাসনকে জানানোর জন্য ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানিয়ে রেখেছি। নির্বিচারে বন্যপ্রাণী নিধনের বন্ধে সচেতনতা সৃষ্টি করছি আমরা।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার ভারপ্রাপ্ত কিউরেটর ডা. শাহাদাত হোসেন শুভ বলেন, বনাঞ্চল উজাড় হওয়ায় খাদ্যাভাবে লোকালয়ে নেমে আসছে বিভিন্ন ধরনের বন্যপ্রাণী। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় এসব বন্যপ্রাণীকে নির্বিচারে মেরে ফেলা হয়। যা খুবই দুঃখজনক।

তিনি জানান, শুক্রবার বিকেল চারটায় হাটহাজারীর আমানবাজার থেকে মো. ওসমান একটি অজগর উদ্ধার করে চিড়িয়াখানায় হস্তান্তর করেছেন। অজগরটি সুস্থ আছে এবং খাঁচায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে ২৩টি পূর্ণবয়স্ক অজগর আছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায়। এ ছাড়া আলাদা খাঁচায় আছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় নিজস্ব প্রযুক্তিতে উদ্ভাবিত ইনকিউবেটরে ফোটানো প্রায় ৩ মাস বয়সী ২৩টি অজগরের বাচ্চা।

১৯৮৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ফয়’স লেকে যাত্রা শুরু করা চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বর্তমানে ৬৭ প্রজাতির তিন শতাধিক প্রাণী ও পাখি আছে। এর মধ্যে দেশের একমাত্র সাদা বাঘ, সিংহ, জেব্রা, ভালুক, কুমির, চিত্রা হরিণ, মায়া হরিণ, গয়াল, উটপাথি, সজারু, বানর উল্টোলেজী বানর, উল্লুক, হনুমান, চিতা বিড়াল ইত্যাদি। রয়েছে পক্ষীশালা, শিশুদের বিনোদন কেন্দ্রও।