আস্ত আমড়ার মিষ্টি আচার

0
50

উপকরণ

আমড়া ২০টি (১ কেজির মতো হবে)। সরিষার তেল দেড় কাপ। ভিনিগার আধা কাপ। আস্ত পাঁচফোড়ন ১ চা-চামচ। তেজপাতা ১টি। সরিষাবাটা ২ টেবিল-চামচ। আদাবাটা দেড় টেবিল-চামচ। রসুনবাটা ১ টেবিল-চামচ। কাঁচামরিচ-বাটা ১ টেবিল-চামচ। হলুদগুঁড়া ১ চা-চামচ। চিনি ২ কাপ। লবণ ১ চা-চামচ (আমড়ার টক বুঝে, বেশিও লাগতে পারে)। খাবার রং ১ ফোঁটা (হলুদ, লাল অথবা সবুজ)। ভাজা ধনে/পাঁচফোড়ন গুঁড়া ১ চা-চামচ।

পদ্ধতি

আমড়া ছিলে, ধুয়ে প্রথমে কাঁটাচামচ দিয়ে খুব ভালোভাবে কেঁচে নিয়ে, আবার বটি বা ছুরি দিয়ে দানা পর্যন্ত কয়েকটা চিড় দিয়ে নিন।
অল্প ভিনিগার দিয়ে কাঁচামরিচ ও সরিষা বেটে নিন। হাঁড়িতে তেল গরম করে আস্ত পাঁচফোড়ন ও তেজপাতা ফোঁড়ন দিয়ে বাটা মসলাগুলো ও হলুদগুঁড়াসহ কষাতে হবে। তারপর আমড়া দিয়ে আরও কয়েক মিনিট কষিয়ে ভিনিগার দিয়ে মিশিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন।

মাঝারি আঁচে রান্না করুন। আমড়া সিদ্ধ হয়ে গেলে চিনি ও খাবার রং দিন।

এবার হাঁড়িটি রুটির তাওয়ার ওপর বসিয়ে মৃদু আঁচে রান্না করুন, যেন আমড়ার ভেতরে চিনি ও সব মসলা ঠিকমতো ঢুকে।

তেল ছেড়ে আসলে নামিয়ে ভাজা মসলা মিশিয়ে নিন। নামিয়ে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন।

* টিপস: যদি এই আচার বেশিদিন সংরক্ষণ করতে চান তবে তেলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেবেন এবং বেশ কয়েকদিন রোদে রাখবেন।

আমড়া যতোই কেঁচে নিন না কেনো, কিছুদিন না গেলে আমড়ার দানা পর্যন্ত মিষ্টি ও মসলা ঢুকবে না। তেল-মসলায় কিছুদিন থাকলে সেটা খেতে বেশি মজা। আর বেশি মিষ্টি খেতে না চাইলে, কিছু শুকনামরিচ কেটে দিয়ে দিতে পারেন।