একুশের সাজ পোশাক

0
36

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে অঞ্জন’স

ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগকে সম্মান জানাতে এবং বাংলা ভাষার চেতনাকে পোশাকের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে প্রতি বছর ফ্যাশন হাউজগুলোতে থাকে নতুন নতুন ডিজাইনের পোশাকের সমারোহ। এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ভাষার মাসে পোশাকে বর্ণমালা ও জ্যামিতিক মোটিফ দিয়ে বৈচিত্র্যময় ডিজাইন করেছে অঞ্জন’স। পোশাকের ক্যানভাসে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে স্ক্রিন ও ব্লক প্রিন্টের কাজ। সাদা, কালো ও লাল কটন কাপড়ে সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, শাড়ি, ব্লাউজ, পাঞ্জাবিসহ শিশু-কিশোরদের জন্য পোশাক থাকছে এবারের আয়োজনে। প্যাটার্ন ভেরিয়েশনে ট্রেন্ডি এবং ডিজাইনে অনুসরণ করা হয়েছে দেশীয় ঐতিহ্য। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও একুশের চেতনাকে পরিপূর্ণভাবে উদযাপন করার লক্ষ্যেই আমাদের এই বিশেষ আয়োজন। অঞ্জনসের সব আউটলেটে পাওয়া যাবে একুশের মোটিফে তৈরি করা পোশাকগুলো।

ফড়িং-এর ‘একুশে’ আয়োজন

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি…। একুশকে কখনোই ভোলা সম্ভব নয়। কারণ এই একুশ আমাদের দিয়েছে শ্রেষ্ঠ সম্পদ মাতৃভাষা। আজ আমরা মাতৃভাষায় [বাংলা] তৃপ্তি নিয়ে কথা বলছি। এ জন্য প্রাণ দিতে হয়েছে অনেককে। তাদের প্রতি আমাদের হাজারও সালাম। মহান একুশকে সামনে রেখে ফ্যাশন হাউজ ফড়িং একুশের বিভিন্ন চিত্র নিয়ে বেশ কিছু পোশাকে ডিজাইন করেছে। শাড়ি, পাঞ্জাবি, সালোয়ার কামিজ, ফতুয়া, টি-শার্ট ইত্যাদি পোশাকে রঙ ব্যবহার করা হয়েছে কালো, সাদা, ধূসর প্রভৃতি। এসব পোশাকে কাজ করা হয়েছে অ্যামব্রয়ডারি, স্প্র্রেম, ব্লক, অ্যাপলিক, হাতের কাজ প্রভৃতি। দামও নির্ধারণ করা হয়েছে সব ধরনের ক্রেতার ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে।

মেঘে একুশের পোশাক

ফ্যাশন হাউজ মেঘ একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে এনেছে ছেলেদের পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, মেয়েদের কামিজ, শিশুদের ফতুয়া, ফ্রক ও টি-শার্ট। আরামদায়ক কাপড়ে সাদা ও কালো রঙে এসব পোশাকের নকশায় ফুটিয়ে তোলা হয়েছে একুশের আমেজ। মেঘের বিক্রয় কেন্দ্র আছে ঢাকার শাহবাগের আজিজ সুপার মর্কেট, ধানমন্ডির মেট্রো শপিংমল, মিরপুর শপিং সেন্টার ও মৌচাকের সেন্টার পয়েন্ট। মোবাইল : ০১৬১১৬৩৪৪২৩।