কারবালা ও পবিত্র আশুরা…

0
112

মুসলিম উম্মাহর কাছে আশুরার ঐতিহাসিক গুরুত্ব অনেক। কারবালা প্রান্তরে (৬০ বা ৬১ হিজরির ১০ মুহাররম) মহানবী (সা.)-এর দৌহিত্র হোসাইন (রা.)-এর মর্মান্তিক শাহাদাত বরণ ‘আশুরা’কে আরো গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যমণ্ডিত করেছে।

ইতিহাস থেকে:: রসুল (সা.)-এর দৌহিত্র ইমাম হোসাইন ইয়াজিদকে খলিফা হিসেবে মেনে নিতে অস্বীকার করেন। তিনি ইয়াজিদের বিরুদ্ধে মুসলমানদের সংগঠিত করার উদ্যোগ নেন। কুফার জনগণও ইয়াজিদকে মেনে নিতে অস্বীকার করে। হজরত ইমাম হোসাইন তাদের কাছে পাঠান জ্ঞাতি ভাই মুসলিমকে। তিনি হোসাইন (রা.) কুফা সফরের পরামর্শ দিয়ে চিঠি লেখন। ইমাম হোসাইন (রা.) কুফার দিকে যাত্রা শুরু করেন।

কুফার মরুপথ অতিক্রম করার পর হজরত হোসাইন (রা.) কুফার গভর্নর ওবায়দুল্লাহর লোক কর্তৃক মুসলিমের হত্যার সংবাদ পেলেন। এতে তিনি বিব্রত হলেন, কিন্তু সফরে বিরত হতে পারলেন না। কারণ মুসলিমের আত্মীয়বর্গ এ হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য তাকে চাপ দিল। দুর্দশার মুখে বেদুইনরাও হুসাইনের দল ত্যাগ করল। অনেকের মতে, এ সময় হুসাইনের সঙ্গে মাত্র ৪০টি অশ্ব ও ২০০ ব্যক্তি ছিল। কিছু দল অগ্রসর হলে তামিম গোত্রের আল-হোর নামক আরব প্রধানের নেতৃত্বে কুফার অশ্বারোহী বাহিনী হুসাইনের পথরোধ করল। অগত্যা তিনি ক্ষুদ্র দলসহ কুফা ডান দিকে রেখে, ফোরাত নদীর পশ্চিম শাখার তীর বেয়ে চললেন। কিন্তু ওবায়দুল্লাহ হুসাইন ও তার দলকে শহরের আশপাশে বিচরণ করতে দেওয়া সঙ্গত মনে করলেন না। তিনি ৪০০০ অশ্বারোহীসহ ওমর-বিন-সা’দকে প্রেরণ করলেন। মহররমের প্রথম দিন অবরুদ্ধ হুসাইন কুফার ২৫ মাইল, উত্তরে ফোরাত তীরবর্তী কারবালা প্রান্তরে তাঁবু ফেললেন। এ সময়ে আবদুল্লাহ হুসাইনকে বিনাশর্তে আত্মসমর্পণের দাবি জানালেন এবং তাকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করার উপায় হিসেবে ওমর-বিন-সা’দকে ফোরাত নদীর তীর অবরোধ করার আদেশ দিলেন। হুসাইন শত্রুতা ও রক্তক্ষয় এড়ানোর জন্য প্রথমে আপস প্রস্তাব দিয়ে বললেন, ‘আমি যে স্থান থেকে এসেছি আমাকে সেখানে যেতে দাও’ তা না হলে আমাকে ইয়াজিদের কাছে দামেশকে নিয়ে গিয়ে তার হস্তে আমার হস্ত স্থাপন করতে দাও, যেন আমরা মুখোমুখি আলোচনা করতে পারি। আর এ প্রস্তাবেও রাজি না হলে আমাকে দূরে কোথাও যুদ্ধের ময়দানে যেতে দাও, যেখানে আমি খলিফার বিশ্বস্ত সৈনিক হিসেবে ইসলামের দুশমনদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারি। ঐতিহাসিক মূর বলেছেন, ‘এ অনুরোধ রক্ষা করা হলে উমাইয়াদের মঙ্গলই হতো।’ কিন্তু তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যাত হলো। বিনাশর্তে আত্মসমর্পণ না করলে ওবায়দুল্লাহ সীমারকে অবিলম্বে হুসাইনকে মৃত অথবা জীবিতাবস্থায় কুফায় নিয়ে যেতে আদেশ দিলেন। অতঃপর হুসাইনের শিবির অবরুদ্ধ হলো।
৯ মহররম। শত্রু পক্ষ নদীপথ বন্ধ করলে পানির অভাবে শিবিরে হাহাকার উঠল। হুসাইন অসহায় ও নিষ্পাপ শিশু এবং মহিলাদের প্রতি সদয় হতে অনুরোধ জানালেন। কিন্তু শত্রুপক্ষ এ মানবিক আবেদনে এতটুকু বিচলিত হলো না। যুদ্ধ ছাড়া হুসাইন কোনো গত্যন্তর দেখলেন না। হুসাইন তার পরিবার-পরিজনকে মক্কায় পাঠিয়ে দিতে চাইলেন; কিন্তু কেউ তার সঙ্গ ত্যাগ করতে চাইলেন না। ইমাম হুসাইনের শিশুপুত্র আজগর তখন জ্বরে পীড়িত; কিন্তু তার শুষ্ক ওষ্ঠদ্বয় ভিজানোর জন্য এক বিন্দু পানিও জুটল না। নারী ও শিশুর হাহাকার এবং ভীতির মধ্যে একটি বিভীষিকাময় রাত অতিবাহিত হলো।

১০ মহররম। ভোরে নারী ও শিশুদের আর্ত হাহাকারের মধ্যে দুই অসম সেনাদলের যুদ্ধ শুরু হলো। ৬৮০ খ্রিস্টাব্দের ১০ অক্টোবর হুসাইনের ভ্রাতুষ্পুত্র কাসিম সর্বপ্রথম দুশমনদের আঘাতে শাহাদাতবরণ করেন। হুসাইনের পরিবারের সবাই একে একে শহীদ হলেন। অবশেষে তৃষ্ণার্ত হুসাইন শিশুপুত্রকে কোলো নিয়ে ফোরাত নদীর দিকে অগ্রসর হলেন। কিন্তু তিনি দুশমনদের তীরের আঘাতে ফিরতে বাধ্য হলেন। তীরের আঘাতে পুত্র পিতার বাহুবন্ধনে শহীদ হলো। নির্মম দুশমনদের হামলা সামলাতে না পেরে হুসাইন তাঁবুর সামনে বসে পড়লেন। এ সময় একজন মহিলা তার সম্মুখে এক পেয়ালা পানি উপস্থিত করলেন। তিনি যখন তা মুখের কাছে তুলেছিলেন, তখন দুশমনদের বর্শা তার বুকে বিদ্ধ হলো। রক্তপাতে দুর্বল হয়ে তিনি মাটিতে পড়ে গেলেন এবং খুনি দুশমন দল মরণোন্মুখ বীরের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ল। তারা তার মস্তক ছেদন করল, দেহ দলিত করল এবং বর্বর হিংস্রতা সহকারে পবিত্র দেহকে সর্বপ্রকার অপমানিত করল। রসুল করিমের (সা.) প্রিয় দৌহিত্রের রক্তরঞ্জিত মস্তক ওবায়দুল্লাহর পদতলে উপস্থিত করলে জনতার মধ্যে ভীতির মনোভাব দেখা দিল। কঠিন হৃদয়ও এ দৃশ্যে বিগলিত হলো। এর পরবর্তী দৃশ্য এখনো মোমেনের স্মৃতিতে জাগরূক হয়ে রয়েছে। কারবালার হৃদয়বিদারক হত্যাকাণ্ড ইয়াযিদের শাসনকাল কে চির কলংকিত করে রেখেছে। যার ফলশ্রুতিতে কারবালার বিয়োগান্তক এ ঘটনা কে মুসলিম জাহান শোক দিবস হিসেবে আজও পালন করে।

কারবালা শহর::কারবালা ইরাকের মধ্যবর্তী একটি শহর। রাজধানী বাগদাদ থেকে ১০৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে কারবালার অবস্থান। বাগদাদ থেকে ট্রেনে করে কারবালা যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে কারবালার উচ্চতা ৩০ মিটার উঁচুতে। ২০১৫ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী কারবালা প্রদেশের মোট জনসংখ্যা ৭০ লাখ। বর্তমানে কারবালা অনেক সুন্দর ও মনোরম শহর। ইমাম হুসাইন (রা.) এর মাজার, তিল্লে জায়নাবিয়া, হজরত আব্বাস ইবনে আলীর কবর, বিখ্যাত ফুরাত নদী ইত্যাদি কারবালার রূপ-সৌকর্যে কনকশোভা যোগ করেছে। এছাড়াও ভাস্কর্য, পার্ক, শপিং মল, রেস্তোরাঁ এবং সৌরভামোদিত বৈচিত্র্যময় ও বাহারি ফুলের বাগানগুলো কারবালাকে বেশ মনোহরী করে তুলেছে।