কুতুবদিয়ায় লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ

0
11

লিটন কুতুবী-কুতুবদিয়া,কক্সবাজার:
প্রথম বারের মতো কুতুবদিয়া উপজেলায় সুজন চত্বরে ১০দিনব্যাপী শিল্প ও বাণিজ্য মেলা সম্পন্ন হয়েছে। সেই সাথে আত্মপ্রকাশ করেছে দেশীয় সংস্কৃতি চর্চার অন্যতম সংগঠন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীক লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠনের কুতুবদিয়া শাখার। প্রতিদিন সন্ধ্যার পরে বিনোদন প্রিয় দর্শকদের নাচে, গানে ও মঞ্চ নাটকে মাতিয়ে রেখেছেন কুতুবদিয়া শিল্পকলা একাডেমী,কুতুবদিয়া কলেজ,কুতুবদিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়,কুতুবদিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,আলী আকবর ডেইল উচ্চবিদ্যালয় ও জসিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শিল্পীরা। রাতের অনুষ্ঠানে গান গেয়ে দর্শক উতালা করেছেন চট্টগ্রামের তথা দেশের জনপ্রিয় শিল্পী কুতুবদিয়ার কৃতি সন্তান আলাউদ্দিন তাহেরও। কুতুবদিয়াকে পর্যটন নগরী হসাবে ফোকাস করতে ১০ দিনব্যাপি আয়োজিত অনুষ্টানগুলো ফেইসবুকে লাইভ করেছেন ইউএনও কুতুবদিয়া। এতে তিনি দেশ-বিদেশ থেকে সাড়াও পেয়েছেন প্রচুর। সর্বপোরি বলা যায়, এ যেন প্রশাসনের এক মহতি উদ্যোগ।
মেলার শেষদিনে চট্টগ্রামের বিখ্যাত আবৃত্তি সংগঠন “বোধন আবৃত্তি পরিষদ”র আবৃতি অনুষ্টানের মধ্যদিয়ে কুতুবিদয়ায় আতœপ্রকাশ করে লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠনটি। ভিনদেশী অপসংস্কৃিতক আগ্রাসন থেকে দেশকে মুক্ত করে নিজেদের দেশজ সংস্কৃিতকে সঠিকভাবে র্চচার মধ্যদিয়ে আমাদের হারিয়ে যাওয়া লোকজ সংস্কৃিতকে পুর্নজীবিত করা এবং এর মধ্যদিয়ে একটি রুচিশীল, সুস্থ সাংস্কৃিতক পরিবেশ তৈরী করার মূলমন্ত্র নিয়ে লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠন তাদের তৃতীয় শাখা হিসেবে কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া উপজেলায় তাদের র্কাযক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছে। উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৯২ জন সদস্য সংগ্রহের কার্যক্রম ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। সংগঠনটির কুতুবদিয়া উপজেলা শাখার প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন স্বয়ং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজন চৌধুরী।এছাড়াও অন্যান্য পদে দায়িত্ব প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন কুতুবদিয়া ইউএনও সহধর্মীনী বান্দরবন জেলার সিনিয়র সহকারী জজ মনীষা মহাজন, কুতুবদিয়া থানার আফিসার ইনর্চাজ মিহিাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা কামাল পাশা এবং দ্বীপের সাংস্কৃিতক ব্যক্তিত্ব মাষ্টার সিরাজুল ইসলাম মধু। উল্লেখ্য যে, ২০১৩ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যিালয়ের মুক্ত মঞ্চ থেকে যাত্রা শুরু করে লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠনটি। সংগঠনটি ইতিমধ্যে লোকজ বিভিন্ন আঙ্গিক গম্ভীরা,আলকাপ,সংপালাসহ গ্রাম বাংলার বিভিন্ন লোক আঙ্গিক দেশের বিভিন্ন স্থানে সফলভাবে পরিবেশনার মধ্যদিয়ে বেশ জনপ্রিয়তা র্অজন করেছে।
এদিকে গত ১৯ জানুয়ারি শিল্প ও বাণিজ্য মেলার মঞ্চে এক ঘন্টাব্যাপী একক, দলীয় ও বৃন্দ আবৃত্তিসহ চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় অসাধারণ মার্ধুয্যে শত শত দর্শককে মন্ত্রমুগ্ধ করেছে আবৃত্তিকার প্রণব চৌধুরীর নেতৃত্বে বোধন আবৃত্তি পরিষদের আবৃত্তি শিল্পীরা।
২০ জানুয়ারী একই মঞ্চে কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুজন চৌধুরী ব্যক্তিগত উদ্যোগ ও পৃষ্ঠপোষকতায় কুতুবদিয়া আর্দশ উচ্চবিদ্যালয় ও কুতুবদিয়া সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষার্থী নিয়ে দুটি প্রশিক্ষণ র্কমশালাও পরিচালনা করে বোধন আবৃত্তি পরষিদ। র্কমশালায় বাংলা ভাষার ব্যবহার ও শুদ্ধ উচ্চারণ, বাচনভঙ্গি, বাংলা বানান, আবৃত্তির কলা-কৌশল, মঞ্চে উপস্থাপনা বিষয়ে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।
বাংলাদশে মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া। এ উপজেলায় কোন সময়ে এ ধরণের আবৃিত্ত প্রশিক্ষণ র্কমশালা হয়নি।তাই এ ধরনের লোকজ সাংস্কৃতিক ও আবৃত্তি সংগঠন কুতুবদিয়ায় তাদের শাখা স্থাপন করায় সুবিধা বঞ্চিত শির্ক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। সংগঠনগুলোর মাধ্যমে ভবিষ্যতে এ ধরণের র্কমশালা আরো ব্যাপকভাবে আয়োজন করা হবে বলে শিক্ষার্থীদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা সুজন চৌধুরী ।