কোরবানির মাংসের সাথে মুড়ি, রুটি বা চিতই পিঠা

0
179

কোরবানি মানেই গরুর মাংস। সাধারনত  শুধু পোলাও, ভাত বা খিচুরড়ির সাথেই গরুর মাংস বেশি খাওয়া হয়। তবে আমাদের দেশে অনেক জায়গাতেই গরুর মাংসের সাথে খাওয়া হয় নিচের এই মজার সব খাবার। তাই আপনি চাইলে এবারের ঈদে খেতে পারেন গরুর মাংসের সাথে খেতে পারেন মুড়ি, রুটি বা চিতই পিঠা। এত স্বাদের যেমন পরিবর্তন আসবে তেমনি খেতেও ভালো লাগবে।

এবার তাহলে গরুর মাংস আর তার সাথের খাবারগুলোর রেসিপি জেনে নেই-

গরুর মাংস

গরুর মাংস রান্না করতে প্রায় সবাই পারে তবে সবার রান্না করা মাংস খেতে সুস্বাদু হয়না। আবার হয়তো অনেকের রান্নাই স্বাদ হয়। চলুন পুরোনো রেসিপি আবার একবার  দেখে নেই-

গরুর মাংসের উপকরণ:

হলুদের গুঁড়া ১ চা চামচ, মরিচের গুঁড়া দুই চা চামচ (যে যেমন ঝাল পছন্দ করে),  জিরা বাটা ১ চা চামচ, গরুর মাংস এক কেজি, পেয়াজ কুঁচি এক কাপ, রসুন বাটা ৩ চা চামচ, আদা বাটা দুই চা চামচ, এলাচ ৪টি, লবঙ্গ ৪টি, দারুচিনি ৩-৪ টুকরা, লবণ আন্দাজমতো, তেল দেড় টেবিল চামচ, ৪টি মাঝারি আলু টুকরো করে কাটা।

প্রস্তুত প্রণালী: আলু ছাড়া সব উপকরণ একসঙ্গে মাখিয়ে চুলায় বসিয়ে ঢেকে দিন। মাংস শুকিয়ে এলে ২ কাপ পানি দিয়ে কসিয়ে নিন। পানি হাল্কা শুকিয়ে এলে আলু দিয়ে একটু পানি দিয়ে কসিয়ে নিন। তারপর কষানো হয়ে গেলে পরিমাণ মত পানি দিয়ে ঢেকে দিন ও কড়া জ্বাল দিন। ঝোল মাখা মাখা হলে নামিয়ে ফেলুন।

চিতই পিঠা

চিতই পিঠা  বানাতে অসাধারণ দক্ষতা লাগে। গ্যাসের চুলায় চিতই পিঠা বানাতে গেলেই তা ভালভাবে হয় না। মূলত মাটির চুলায় এই পিঠা খুব সুন্দর হয়।

চিতই পিঠার উপকরণ:

চালের গুঁড়া – ১ কেজি (আতপ +সিদ্ধ),  লবন – ১ ১/২ চা চামচ,  ভাতের মাড় – ২ কাপ,  কুসুম গরম পানি – পরিমান মত, বেকিং পাউডার – ১ চা চামচ।

প্রস্তুত প্রণালী: চালের গুঁড়ায় লবন কুসুম গরম পানি দিয়ে ভালোভাবে গুলিয়ে নিতে হবে। আর এভাবেই প্রায় ২-৩ ঘন্টা রেখে দিন। পিঠা বানাবার আগ মুহূর্তে বেকিং পাউডার মিশিয়ে দিন। গোলা খুব পাতলা বা খুব ঘন হবে না। মাটির খোলা অথবা লোহার কড়াই গরম করে নিন। ডালের চামচ দিয়ে ২ চামচ গোলা দিয়ে ঢেকে দিন। ২- ৩ মি. পর দেখুন। পিঠা ভালো ভাবে ফুলে উঠলে খুন্তি দিয়ে পিঠা তুলে নিন।– পরিষ্কার কাপড় দিয়ে খোলাটা মুছে নিন। আবার পিঠার গোলা দিন। এভাবে চিতই পিঠাগুলো বানিয়ে নিন।

ছিটা রুটি

ছিটা রুটি অনেকেই খুব পছন্দ করেন। বিশেষ করে ভুনা মাংস কিংবা মাংসের ঝোলের সাথে সালাদ সহ গরম গরম ছিটা রুটি খুবই প্রিয়। এছাড়াও জ্বাল দেয়া খেজুরের রসে চুবিয়েও চিটা রুটি খাওয়া হয়। তবে অনেকেই এই বিশেষ পিঠাটি তৈরি করতে পারেন না।

তাই এবারের ঈদে ছিটা রুটি কিভাবে তৈরি করতে হয় জেনে নিন। অার ঈদের পরে সকালের নাস্তায় গরুর মাংসের সাথে মজাদার এই ছিটা পিঠা খেতে পারেন।

উপকরণ:

চালের গুঁড়ি ১কাপ,  ময়দা ১কাপ,  আদার রস ১চা চামচ, লবন পরিমান মত,  পানি ৩ কাপ বা একটু কম।

প্রস্তুত প্রনালী: একটি বড় বাটিতে উপরের সব উপকরন ভাল করে মিশিয়ে নিন।অন্য একটি বাটিতে ২ চা চামচ তেল ও ২চা চামচ পানি মিশিয়ে রাখুন। চুলাতে ফ্রাইপ্যান দিয়ে গরম করে নিন। একটি কাপড় নিয়ে তেল ও পানির মিশ্রণে ভিজিয়ে নিন ও প্যানে ব্রাশ করুন। এখন হাতের সব আঙ্গুল চালের গুঁড়ির মিশ্রনে ডুবিয়ে প্যানে হাত ঘুড়িয়ে ঘুড়িয়ে, হাত সামনে পিছনে নিয়ে ছিটা দিন। ১ মিনিট অপেক্ষা করুন। রুটি হয়ে গেলে রুটির পাশ উঠে আসবে।। চামচ দিয়ে দুই ভাজ করে রুটি তুলে নিন।

লুচি

লুচি আর অালুর দম যেমন সবার কাছেই প্রিয়, তেমনি লুচি দিয়েও গরুর মাংস ভুনা বা কলিজা ভুনা খেতে পারেন ।

উপকরণ:

ময়দা ১ কাপ, লবণ ১ চিমটি, ঘি ১ চা চামচ, পানি পরিমাণ মত, ভাজার জন্য সয়াবিন তেল।

প্রস্তুত প্রণালী:

ময়দা, লবণ ও ঘি একসঙ্গে মেশাতে হবে। অল্প করে পানি মিশিয়ে ময়ান বানাতে হবে। ময়ান তৈরি হয়ে গেলে ও নরম হলে ভেজা একটি সুতি কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে ২০ মিনিট। এরপর ময়ান থেকে ছোট ছোট বল বানিয়ে রুটির মত পাতলা করে বেলে নিতে হবে। এবার ডুবো তেলে ভেজে নিলেই তৈরি হবে লুচি।
চালের রুটি

ব্যস্ত শহরে ধর্মীয় কিছু আচার-অনুষ্ঠান ছাড়া চালের রুটি খুব একটা খাওয়া হয় না। তবে গ্রামে এই চালের রুটির বেশ কদর রয়েছে। চালের রুটি দিয়ে গরুর মাংস খুবই একটা জনপ্রিয় খাবার সবার কাছেই।

উপকরণ:

চালের গুঁড়া আধা কেজি, লবণ স্বাদমতো, অ্যালুমিনিয়ামের টিফিন ক্যারিয়ারের গোল বাটি ১টা, বেলুন-পিঁড়ি ও পানি প্রয়োজন মতো।

প্রস্তুত প্রণালী:

একটি হাঁড়িতে ৪০০ মিলি পানি সেদ্ধ হতে দিন। লবণ দিয়ে তাতে চালের গুঁড়া ঢেলে সেদ্ধ করুন। অতঃপর তা ময়ান করে ছোট ছোট রুটি বানিয়ে টিফিন বাটি দিয়ে কেটে তাওয়ায় সেঁকে রাখুন। এই রুটি হালুয়া ও মাংসের ঝোল দিয়ে পরিবেশন করুন।

পরোটা

পরোটা দিয়ে তো রোজ সকালের নাস্তা হয় ব্যস্ত নগরীতে। যে কোন ভাজি, মাংস বা ডিমের সাথে পরোটা কম-বেশি সবাই খেয়ে থাকেন।

উপকরণ:

ময়দা সামান্য লবন সয়াবিন তেল (কয়েক চামচ) সামান্য চিনি, ঘি (পরোটার ভিতরে দেয়ার জন্য, যারা ঘি খেতে চান না তারা তেল দিতে পারেন) গরম পানি পরিমানমত, তবে পরোটা নরম করতে চাইলে এর সাথে ডিম মেশাতে পারেন।

প্রস্তুত প্রনালী:

প্রথমে পরিমাণ মত ময়দা নিন (এক কাপে দুটো তিনটে হতে পারে- এই আন্দাজে) তাতে সামান্য লবন, সামান্য চিনি এবং কয়েক চামচ তেল দিন। কুসুম গরম পানি দিয়ে মাখাতে থাকুন। ভাল করে মাখিয়ে পরোটার ডো বানিয়ে ফেলুন। এবার একটা ডো নিয়ে রুটি বেলে নিন।

রুটিতে কিছু ময়দা ছিটিয়ে রোল করে নিন। এবার রোল পেছিয়ে গোল করে নিন। হাত দিয়ে চাপ দিয়ে চ্যাপ্টা করে নিন। এবার বেলতে থাকুন। রুটির মত করে বেলুন। এবার তেল বা ঘিতে তাওয়ায় ভেঁজে নিন।এ পিট ওপিট উলটা পালটা করে ভাল করে ভাঁজুন। খুন্তি দিয়ে চেপে চেপে ভাজুন, তবে লক্ষ রাখবেন যে পুড়ে না যায়, তাওয়া বেশী গরম হলে আগুনের আঁচ কমিয়ে নিন। ব্যস, হয়ে গেল। 

মুড়ি

গরুর মাংস দিয়ে মুড়ি পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুব কমই আছে। অাপনি চাইলে গ্রাম থেকে সার ছাড়া মুড়ি ভেজে নিয়ে আসতে পারেন। তা না হলে শহরের সার মাখা মুড়ি দিয়েই গরুর মাংস খেয়ে নিন। তবে বাদ যেন না যায় এই মজাদার খাবার আইটেম টি।