‘গণমাধ্যমের সমস্যা সমাধানে কাজ করছে সরকার’

0
82

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, গণমাধ্যমে অনেক সমস্যা আছে। সে সমস্যা সমাধানে কাজ করছে বর্তমান সরকার। দেশের টেলিভিশন শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সরকার যা যা করার দরকার, তা-ই করছে।
মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাতে নগরের ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে টিভি জার্নালিস্টস্ অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম এর নতুন কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও প্রীতি সম্মিলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, টেলিভিশনের সংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি আয়ের উৎস। দেশের বিজ্ঞাপনের বড় অংশই এতদিন বিদেশি চ্যানেলে ছিল। এই অজুহাতে টেলিভিশন মালিকরা তাদের সম্প্রচারের ক্ষেত্রও ছোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কেউ কেউ। ব্যয় কমাতে প্রায়শই চলে ছাঁটাই প্রক্রিয়া। এসব বিষয়ও নজরে রাখছে সরকার। বর্তমানে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন বন্ধে কাজ করা হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যমে গত দশ বছরে অনেক বিকাশ ঘটেছে। বিশেষ করে আগের চেয়ে অনেক বেশি উন্নতি হয়েছে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার। দশ বছর আগে দেশে টেলিভিশন চ্যানেলের সংখ্যা ছিল মাত্র দশটি। কিন্তু বর্তমানে চ্যানেলের সংখ্যা ৩৪টি। সম্প্রচারে আসার অপেক্ষায় আছে আরও বেশ কিছু। শুধু ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াই নয়, গত দশ বছরে প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ারও ব্যাপক উন্নতি হয়েছে।

সবার আগে সংবাদ পরিবেশন করতে গিয়ে যেন ভুল সংবাদ পরিবেশন না করা হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শও দেন ড. হাছান মাহমুদ।

টিভি জার্নালিস্টস্ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নাছির উদ্দিন তোতার সভাপতিত্বে ও প্রচার সম্পাদক অনুপম শীলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস, বিএফইউজের সহ সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, সাংবাদিক শহিদুল আলম, সালাউদ্দিন রেজা, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রবীণ সাংবাদিক আলী আব্বাস ও শামসুল হক হায়দরীকে কৃতি সাংবাদিক সম্মাননা দেয়া হয়।