ঘর সাজাতে ঘরের কোণ

0
66

বাড়ির প্রত্যেকটি কামরারই চারটি কোণ থাকে। যদি কোণগুলো ডেকোরেশন করে সুন্দর করে তোলা যায় তাহলে দেখতে যেমন ভালো লাগবে সেইসঙ্গে আপনার সৃষ্টিশীলতাও প্রকাশ পাবে। নিজের মতো করে বাড়ি সাজাতে কার না ভালো লাগে। দেখা যায় ঘরের ভেতরের কর্নারগুলো প্রায় অগোছালো অবস্থায় থেকে যায়। একটু সময় ও বুদ্ধি খাটিয়ে যদি কর্নারগুলো গুছিয়ে রাখা যায় তাহলে ঘরের সৌন্দর্য আরও বেশি ফুটে উঠবে। এর জন্য বেশি দামি ও মূল্যবান জিনিসের দরকার তেমন কোনো কথা নেই। অতি সাধারণ জিনিস দিয়েও ঘরের কর্নারটি সাজিয়ে তোলা সম্ভব। ঘরের কর্নারগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে সেখানে ইনডোর প্লান্ট দিয়ে সাজিয়ে-গুছিয়ে রাখতে পারেন।
ড্রইং রুম
সাধারণত একটা ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে তিন দিকই ব্লক থাকে। একটা দিক থাকে খোলা। আর সেখানে শোকেস দিয়ে সাজানো হয় তাহলে কর্নারটি আরও বেশি ফুটে আপনার ঘরটিকে পরিপূর্ণ এনে দেবে। শোকেস ৭ ফিট উচ্চতা অথবা ফ্লোর টু সিলিং পর্যন্ত করা যেতে পারে। সাধারণত ৬ ফিট উচ্চতার যে শোকেস হয়ে থাকে সেটা দিয়েও সাজানো যেতে পারে আপনার ঘরের কর্নারটি। ড্রইং রুমে যে কর্নারটিতে শোকেস রাখা হয় সেটাতে ইনডোর প্লান্ট এবং শো-পিস দিয়েও সাজাতে পারেন। এছাড়া ল্যাম্পশেড দিয়ে সাজিয়ে তুলতে পারেন। ল্যাম্পশেড দিয়ে যদি কর্নারটিকে সাজাতে চান তাহলে তিন সাইজের ল্যাম্পশেড সিলিং থেকে ঝুলিয়ে দিতে পারেন। আবার ফ্লোর থেকেও এভাবে ল্যাম্পশেড দিয়ে সাজাতে পারেন ইচ্ছে করলে। এসব ল্যাম্পশেড নিউমার্কেট, মৌচাকসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ও রড-আয়রনের দোকানে পাওয়া যায়। আর শেডের ক্ষেত্রে তিন রঙের বা মাল্টি কালারের শেড বেছে নিতে পারেন। তবে রঙের ক্ষেত্রে ঘরের পর্দা, সোফার কাভার এমনকি কুশনের কালারের সঙ্গে ম্যাচ করে ল্যাম্প শেডগুলো নির্বাচন করে লাগালে আপনার রুচির বহিঃপ্রকাশ ঘটবে।
খাবার ঘর
খাবার ঘরের কর্নারও আমরা সাজাতে পারি। কর্নারটির জন্য যদি র‌্যাক বানিয়ে নেয়া যায় তবে আচার, জ্যাম, জেলি এগুলো রাখতে সুবিধা হবে। সেইসঙ্গে ডাইনিংয়ে রাখার মতো উপযোগী শো-পিস দিয়েও সাজাতে পারেন কর্নারটি।
রান্নাঘর
রান্নাঘরের কর্নারগুলোও সাজাতে পারেন। এতে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র হাতের নাগালে পেতে সুবিধা হবে। আবার র‌্যাকের মতো করে কর্নার তৈরি করা যেতে পারে। কোণা করে সাজানোর দিকে রাউন্ড শেপ করে তৈরি করা যেতে পারে।
শোবার ঘর
কর্নারগুলো বাঁশের, বেতের, রড-আয়রনের কিংবা কাচের জিনিস দিয়ে সাজাতে পারেন। এগুলো ইনডোর প্লান্ট দিয়ে সাজালে ঘরের ভেতরে সবুজের ছোঁয়া বিরাজ করবে। এছাড়া ঘরের শোভাবর্ধনের পাশাপাশি আবহাওয়াও ঠাণ্ডা রাখবে। আর সেইসঙ্গে অন্দরমহলে এনে দেবে প্রশান্তির ছোঁয়া।
আবার ঘরের একটি কর্নারকে তিন সাইজের ফ্লাওয়ার ভেস দিয়ে সাজাতে পারেন। ৪ ফিট, ৩ ফিট এবং ২ ফিট এ তিন সাইজের ভেস দিয়ে সাজাতে পারলে দেখতেও ভালো লাগবে। এগুলো বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন- চীনামাটি, কাঠ, বাঁশ, বেত কিংবা মাটির। এর ভেতরে লম্বা স্টিক, পাতা, ড্রাই ফুল, বেতের লম্বা কাঠি, পেঁচানো কাঠি রাখতে পারেন। আর এগুলো কালার ফুল হলে আরও ভালো লাগবে।
এখন সবাই বাড়ির অন্দর সাজ নিয়ে রীতিমতো ভাবনা-চিন্তা করে থাকেন। আর যারা শৌখিন তারা ঘরের নান্দনিকতার ছোঁয়া আনতে চাইলে ঘরের কর্নারগুলো বিভিন্নভাবে সাজিয়ে তুলতে পারেন।