চট্টগ্রামে অ্যাকুরিয়ামের মাছ কিনতে হলে

0
1002

ঘরে অ্যাকুরিয়ামে মাছ রাখার শখ অনেকের। কিন্তু সেই শখ পূরণ করবেন কীভাবে? অনেকে জানেন না কোথায় গেলে পাবেন ভালো অ্যাকুরিয়াম। ফলে ইচ্ছে থাকলেও শখ পূরণ করা হয়ে ওঠে না।

সবুজ শেওলা, সামুদ্রিক গাছের ফাঁকে লাল-নীল মাছের অবাধ বিচরণ। নরম আলোতে নীল পানি, ছোট ছোট কাঁকড়া আর কীটপতঙ্গ। যেন সাগরের তলদেশের এক রাজ্য। ঘরের অন্দরে এমন পরিবেশ মন জুড়িয়ে দেয় যে কারও। কাঁচবন্দী জলজপ্রাণীগুলো প্রকৃতির নির্মল সান্নিধ্য তো দেয়ই পাশাপাশি বাড়ায় ঘরের শোভা।

অ্যাকুরিয়াম কিনতে হলে চলে যাবেন নগরের লালদীঘি পারের কেসিদে সড়কে। এখানে ভালো মানের অ্যাকুরিয়াম পাওয়া যায়। এখানকার দোকানগুলো অ্যাকুরিয়ামের জন্য বেশ পরিচিত। এ ছাড়া বিআরটিসি সড়ক, চকবাজার, কাজীর দেউড়িসহ বেশ কিছু জায়গায়ও অ্যাকুরিয়ামের দোকান রয়েছে।
গত রোববার কেসিদে সড়কে কথা হয় গৃহিণী রুবা আক্তারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার অ্যাকুরিয়ামের জন্য নতুন মাছ নিতে এসেছি। অ্যাকুরিয়াম থাকলে এর পেছনে বেশ সময় দিতে হয়। কিন্তু একটু কষ্ট হলেও অ্যাকুরিয়াম আমার বসার ঘরটি স্নিগ্ধ করে তুলেছে।’
কেসিদে সড়কের অ্যাকুরিয়াম ফিস অ্যান্ড গিফট সেন্টারের বিক্রয়কর্মী লিঙ্কন দাশ বলেন, ‘চট্টগ্রামে আমরা প্রায় ২৭ বছর ধরে এই ব্যবসা করছি। এক ফুট থেকে সর্বোচ্চ আট ফুট পর্যন্ত অ্যাকুরিয়াম হয়। তবে এক ফুট থেকে সাড়ে তিন ফুট পর্যন্ত তৈরি করা থাকে। পছন্দমতো বিভিন্ন মাপ ও নকশার অর্ডারও নেওয়া হয়।’
বাজার ঘুরে দেখা যায়, এক ফুটের একটি কাঠের অ্যাকুরিয়াম, প্লাস্টিক সিনারি, অক্সিজেন পাম্প, পাথর, খাবার, একটি শো পিস, চারটা মাছসহ দাম পড়বে ৬০০ টাকা। দেড় ফুটের একটি ফরমিকার অ্যাকুরিয়াম—স্ট্যান্ড, যাবতীয় জিনিস ও ১০টি মাছসহ দাম পড়বে চার হাজার টাকা।
মূলত এক ফুট থেকে তিন ফুট পর্যন্ত কাঠের অ্যাকুরিয়ামের দাম পড়বে ৬০০ থেকে সাড়ে চার হাজার টাকা। ফরমিকারগুলো পাওয়া যাবে চার থেকে ছয় হাজার টাকায়।
অ্যাকুরিয়ামের বিভিন্ন ধরনের মাছ—কমেট, গোল্ডফিশ, অ্যাঞ্জেল ফিশ, রেইনবো শার্ক, বিভিন্ন রঙের টাইগার বার্ব, ব্লু গোরামি, ব্ল্যাকমোর, চাইনিজ কার্প, টাইগার শার্ক ও প্লাটি পাওয়া যাবে ৬০ থেকে ৯০০ টাকায়। এ ছাড়া অত্যাবশ্যকীয় মাছ সাকার ফিস ৪০ থেকে ৯০ টাকায় পাওয়া যাবে।
অ্যাকুরিয়াম কিনে ঘরে নিয়ে গেলেন। মাছকে খাওয়াবেন কী? এসব মাছের খাবারও কিনে নিতে হবে অ্যাকুরিয়ামের দোকান থেকে। মাছের খাবার বিভিন্ন পরিমাণের ওপর নির্ভর করে ২০ থেকে ১০০ টাকা হয়। আবার মাছগুলোকে উজ্জ্বল দেখাতে কিনতে পারেন কালার টিউব। দাম পড়বে ৩৫০ টাকা।
এ ছাড়া ফিল্টার ৫৫০ থেকে ৯০০ টাকা, পাম্প ১৮০ থেকে ৩০০ টাকা, সাইফুন (পানি নিষ্কাশন করা হয়) ১৫০ টাকায় পাওয়া যাবে।