চট্টগ্রামে জাহাজ থেকে পড়ে যাওয়া ৪৩ কনটেইনারের ৩টি মনপুরায়

0
59

ভোলার মনপুরার মেঘনায় ৩ কনটেইনার ভাসতে দেখে স্থানীয়রা। এর মধ্যে একটি কনটেইনার উপজেলার রামনেওয়াজ মৎস্য ঘাটের পশ্চিমপাশে মেঘনা পাড়ে রয়েছে।

অপর ২টি কনটেইনার মনপুরার বিচ্ছিন্ন ডালচরের উত্তর পূর্ব কোনায় রয়েছে স্থানীয় ও প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।
তবে ডালচরের কনটেইনার ২টি রাতের জোয়ারে হাতিয়ার দিকে চলে গেছে বলে জানান মনপুরার থানার ওসি ফোরকান আলী। হাতিয়া থানাকে অবহিত করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

বুধবার সকালে স্থানীয়রা কনটেইনারটি শক্ত দড়ি দিয়ে মেঘনা পাড়ে বেঁধে রাখে।

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে রামনেওয়াজ মৎস্য ঘাটের পশ্চিম পাশে মেঘনা পাড়ে ব্লক বাঁধের উপর একটি কনটেইনার মেঘনায় ভাসতে ভাসতে আটকিয়ে পড়ে।

জানা গেছে, গত রোববার ‘করিম শিপিং লাইনের কনটেইনারবাহী জাহাজ ‘কেএসএল গ্লেডিয়েটর’ পণ্যভর্তি ৮৩ কনটেইনার নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ঢাকার কেরানীগঞ্জের পানগাঁও কনটেইনার টার্মিনালের উদ্দেশে রওনা দেয়। হাতিয়া চ্যানেলে লাল বয়ার কাছে পৌঁছালে প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যে পড়ে ৪৩ কনটেইনার ছিটকে সাগরে পড়ে যায়।
স্থানীয় প্রশাসন ও স্থানীয়দের ধারণা, হাতিয়া চ্যানেলে জাহাজ থেকে ছিটকে পড়া ৪৩ কনটেইনারগুলোর মধ্যে এই কনটেইনারটি হতে পারে।

সরেজমিনে বুধবার রামনেওয়াজ ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, একটি কনটেইনার উপজেলার রামনেওয়াজ মৎস্য ঘাটের পূর্বপাশে মেঘনা পাড়ে ব্লকের ওপর পড়ে রয়েছে। কনটেইনারটি সম্মুখে ‘TRITON INTERNATIONAL’ সিল মারা রয়েছে। এছাড়াও কাস্টমস এর অনুমোদনের সিল রয়েছে। এদিকে কনটেইনারটি নিচে ও উপরের কিছু অংশ ভেঙ্গে গেছে। এতে কনটেইনারটি ভেতরে বস্তাভর্তি তুলা দেখা যায়।

মনপুরা থানার ওসি ফোরকান আলী জানান, খবর পেয়ে একজন এসেআকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া চট্রগ্রামের বন্দর থানাকে মোবাইল ফোনে অবহিত করা হয়েছে।