চবি’তে  নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্ম জয়ন্তী উদযাপন

0
48

 

‘বাঁশরী ও তূর্যেরজয় হোক’-এ প্রতিপাদ্যকে ধারণকরেচট্টগ্রামবিশ^বিদ্যালয়বাংলাবিভাগের উদ্যোগেএবংবাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয়মঞ্জুরীকমিশন (ইউজিসি)’রসহায়তায়দিনব্যাপীবর্ণাঢ্য আয়োজনেজাতীয়কবিকাজীনজরুলইসলামের ১২০তম জন্মজয়ন্তী ৩০ জুন ২০১৯ চবিব্যবসায়প্রশাসনঅনুষদ মিলনায়তনেঅনুষ্ঠিতহয়। দিনব্যাপীআয়োজনেরমাধ্যে ছিলআন্তর্জাতিক সেমিনারএবংসাংস্কৃতিকঅনুষ্ঠান।সকাল ১০ টায়প্রধানঅতিথি হিসেবেউপস্থিত থেকে ভাষণ দেন চট্টগ্রামবিশ^বিদ্যালয়েরমাননীয়উপাচার্য (রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত) প্রফেরস ড. শিরীণআখতার। অনুষ্ঠানউদ্বোধনকরেনইউজিসি’রসাবেকমাননীয়চেয়ারম্যানপ্রফেসরআবদুলমান্নান। এতে বিশেষঅতিথির বক্তব্য রাখেনময়মনসিংহ, ত্রিশালজাতীয়কবিকাজীনজরুলইসলামবিশ^বিদ্যালয়েরমাননীয়উপাচার্য প্রফেসর ড. এ এইচ এমমুস্তাফিজুররহমান।
প্রধানঅতিথি প্রফেসর ড. শিরীণআখতারতাঁরভাষণেরশুরুতেমহাকালেরমহানায়কহাজারবছরের শ্রেষ্ঠবাঙালি স্বাধীনবাংলাদেশেরমহান স্থপতিজাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুররহমান, জাতীয়চারনেতা, মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লক্ষবীরশহীদদের এবং ‘৭৫ এর ১৫ আগস্ট বর্বরহায়েনাদের হাতেনির্মমভাবেশহীদ বঙ্গবন্ধু পরিবারেরসদস্যদের বিন¤্রচিত্তেগভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণকরেনএবংমহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত দু’লক্ষজায়া-জননী-কন্যারপ্রতিবিশেষ সম্মানপ্রদর্শনকরেন। তিনিউপস্থিত সকলকেজাতীয়কবিকাজীনজরুলইসলামের ১২০তম জন্মজয়ন্তীরশুভেচ্ছাজানান। তিনিবলেন, প্রেম-দ্রোহ, সাম্য, মৈত্রী ও মানবতার এক উজ্জ্বল নক্ষত্রআমাদের জাতীয়কবিকাজীনজরুলইসলাম। বাংলাসাহিত্যেরএমন কোনশাখা নেই যেখানে এ কবিরবিচরণছিলনা। এই মহানকবিসারাজীবনতাঁরসাহিত্যকর্মে মানবতারজয়গানরচনাকরে গেছেন। শাসক শ্রেণীর শোষণেরবিরুদ্ধে তাঁরসাহিত্যে বিদ্রোহী দৃষ্টিভঙ্গির কারণেতিনি বিদ্রোহীকবিহিসেবেআখ্যায়িতহয়েছেন। তিনিবলেন, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ দুইবাংলাতেইতাঁররচিতকবিতা, গান, নাটক, উপন্যাসসমানভাবেসমাদৃত।তিনিআরওবলেন, বিদ্রোহীকবিকাজীনজরুলএরসাহিত্য কর্ম আমাদের জাতীয়জীবনেএক অপরিহার্য অঙ্গ। তাঁরসাহিত্যকর্মেরমাধ্যমে তৎকালীনশাসক শ্রেণীর শোষণ-নিপীড়নেরবিরুদ্ধে তরুণসমাজসহ গোটাজাতিকেজাগ্রতকরেছেন।তিনিএ অসাধারণ মেধাবীকবিরসাহিত্য কর্মধারণ-লালন ও অধিকতরচর্চারমাধ্যমে তরুণসমাজকেনিজেদের সমৃদ্ধ করারপাশাপাশিসারাবিশে^ এই সাহিত্যকর্মআরওব্যাপকভাবেছড়িয়ে দেওয়ারআহ্বানজানান। ড. শিরীণআখতারবিশ^বিদ্যালয়ের সম্মানিতশিক্ষক-গবেষকবৃন্দকে এই মহানকবিরসাহিত্য কর্মনিয়েঅধিকতরগবেষণাকর্ম পরিচালনারমাধ্যমেবিশ^বিদ্যালয়সহ দেশেরসাহিত্য ভা-ারকেঅধিকতর সমৃদ্ধ করারআহ্বানজানান।তিনিজাতীয়কবিকাজীনজরুলইসলামের ১২০তম জন্মজয়ন্তীউপলক্ষেআয়োজিতদিনব্যাপীকর্মসূচিরসার্বিকসাফল্য কামনাকরেন। অনুষ্ঠানেচবিবাংলাবিভাগেরপক্ষ থেকে প্রধানঅতিথি এবংঅতিথিবৃন্দকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদানকরাহয়।
চবিবাংলাবিভাগেরসভাপতি ও অনুষ্ঠানউদযাপনকমিটিরআহ্বায়কপ্রফেসর ড. মহীবুলআজিজ-এরসভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতউদ্বোধনীঅনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেনঅনুষ্ঠানউদযাপনকমিটিরসদস্য-সচিব ও চবিবাংলাবিভাগেরপ্রফেসর ড. আনোয়ারসাঈদ। একুশেপদকপ্রাপ্তগবেষকচবিবাংলাবিভাগেরসাবেকপ্রফেসর ড. মাহবুবুলহকেরসভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতআন্তর্জাতিক সেমিনারেপ্রবন্ধ উপস্থাপনকরেনভারতেরআসানসোলকাজীনজরুলইসলামবিশ^বিদ্যালয়েরবাংলাবিভাগেরবিভাগীয়প্রধান ড. মোনালিসা দাস ও উক্ত বিশ^বিদ্যালয়েরনজরুল সেন্টারের সোশ্যাল এন্ড কালচারাল স্টাডিজেরপরিচালক ড. স্বাতী গুহ এবংবিশ^ভারতীবিশ^বিদ্যালয়েরবাংলাবিভাগেরপ্রফেসর ড. মানবেন্দ্রনাথ সাহা। এছাড়াআলোচকহিসেবে বক্তব্যরাখেনচবিবাংলাবিভাগেরপ্রফেসর ড. নুরুলআমিন ও প্রফেসর ড. লায়লাজামানএবংকবি, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিকজনাববিশ^জিত চৌধুরী। অনুষ্ঠান উপস্থাপনাকরেনআবৃত্তিশিল্পীরাশেদ হাসান ও উমেসিংমারমা। অনুষ্ঠানেচবি সম্মানিতসিনেট ও সিন্ডিকেটসদস্যবৃন্দ, ব্যবসায়প্রশাসনঅনুষদের ডিনপ্রফেসর ড. এ এফএম আওরঙ্গজেব, রেজিস্ট্রার,বিভিন্নবিভাগের সম্মানিতসভাপতিবৃন্দ, ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ, সম্মানিতশিক্ষকবৃন্দ, অফিসপ্রধানবৃন্দএবংবিপুলসংখ্যকশিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। সবশেষেবিশ^বিদ্যালয়েরশিক্ষার্থী এবংবিশিষ্টনজরুল সঙ্গীত শিল্পীজনাবফাহমিদারহমানেরপরিবেশনায়পরিবেশিতহয়মনোজ্ঞ সঙ্গীতানুষ্ঠান।