চবিতে ভর্তি পরীক্ষা রবিবার: প্রতি আসনে ৫২ জন ভর্তিচ্ছু

0
12

চবি প্রতিনিধি::
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক সম্মান/ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স/ বিবিএ প্রোগ্রামে ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামীকাল রবিবার থেকে শুরু হচ্ছে। এবারের ভর্তি পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে ৫২ জন করে ভর্তিচ্ছু অংশগ্রহণ করবে। মোট আবেদন জমা পড়েছে ২ লাখ ৪৪ হাজার ৭৭৯টি। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। আবেদনকারীদের প্রবেশপত্র প্রদান শুরু হয়েছে ১৪ অক্টোবর থেকে। এদিকে ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু, নির্বিঘ্ন ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, র‌্যাব ৭, হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন, চট্টগ্রাম রেলওয়ে কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে পরিবর্তন করা হয়েছে শাটল ট্রেনের সময়সূচি।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এবছর বৃদ্ধিকৃত ১৩৮টি আসনসহ মোট ৪ হাজার ৭৯১টি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে। এবছর ২ লাখ ৪৪ হাজার ৭৭৯ টি আবেদন জমা পড়েছে। আগামীকাল ২৩ অক্টোবর থেকে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত। প্রবেশপত্র ডাউনলোড শুরু হয়েছে ১৪ অক্টোবর থেকে।
শাটল ট্রেনের পরিবর্তিত সূচি:
বটতলী রেলওয়ে স্টেশন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে সোয়া ৬টা, সাড়ে ৭টা, সাড়ে ৮টা, দুপুর ১২টা, বিকেল ৩টা, বিকেল ৪টা ও রাত সাড়ে ৮টায়। এছাড়া একটি ডেম্যু ট্রেন বটতলী স্টেশন থেকে সকাল সাড়ে ৯টা ও দুপুর সাড়ে ১২টায় ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। এদিকে ক্যাম্পাস থেকে নগরীর উদ্দেশ্যে সকাল ৭টা ২৫মিনিটে, সকাল ৯টায়, দুপুর ১টা ৫মিনিট, দুপুর দেড়টায়, বিকেল ৪টা ৫০মিনিট, বিকেল সাড়ে ৫টা ও রাত ৯টা ৪০মিনিটে শাটল ট্রেন ছেড়ে যাবে। তাছাড়া বেলা ১১টা ও বিকেল আড়াইটায় একটি ডেমু ট্রেন নগরীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে।
পরীক্ষার সময়সূচি:
২৩ অক্টোবর থেকে ১০টি ইউনিটের অধীনে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে। এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় বিজ্ঞান অনুষদের ‘এ’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হবে ভর্তি যুদ্ধ। একই দিন বিকেল আড়াইটায় অনুষ্ঠিত হবে বন ও পরিবেশবিদ্যা ইনস্টিটিউটের ‘জে’ ইউনিটের পরীক্ষা।
২৪ অক্টোবর সকালে ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ ‘জি’ ইউনিটের এবং বিকেলে সমুদ্র ও মৎস্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের ‘আই’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ২৫ অক্টোবর সকালে অনুষ্ঠিত হবে জীব বিজ্ঞান অনুষদের ‘এফ’১-৩ ইউনিটের পরীক্ষা। ২৬ অক্টোবর সকালে অনুষ্ঠিত হবে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ‘বি’১ ইউনিটের পরীক্ষা। ২৭ অক্টোবর সকালে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ‘বি’২-৮ ইউনিট এবং বিকেলে শিক্ষা অনুষদের ‘এইচ’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ২৯ অক্টোবর সকালে অনুষ্ঠিত হবে আইন অনুষদের ‘ই’ ইউনিটের পরীক্ষা। ৩০ অক্টোবর সকালে সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডি১-২ ইউনিট (উচ্চ মাধ্যমিক মানবিক ও বিজ্ঞান শাখা) এবং বিকেলে একই অনুষদের ‘ডি’৩ ইউনিটের (উচ্চ মাধ্যমিক ব্যবসায় শিক্ষা শাখা) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সর্বশেষ ৩১ অক্টোবর সকালে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ ‘সি’১ ইউনিটের (উচ্চ মাধ্যমিক ব্যবসায় শিক্ষা শাখা) এবং বিকেলে একই অনুষদের ‘সি’২-৩ ইউনিটের (উচ্চ মাধ্যমিক মানবিক ও বিজ্ঞান শাখা) পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শেষ হবে ভর্তি যুদ্ধ।
বিভিন্ন প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক:
ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে নগরীর চারুকলা ইনস্টিটিউটে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, র‌্যাব ৭, হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন, চট্টগ্রাম রেলওয়ে কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেছে চবি কর্তৃপক্ষ। সভায় সভাপতিত্ব করেন চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চবি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার, বিশ্ববিদ্যালয় অনুষদসমূহের ডিনবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর ও সহকারী প্রক্টরবৃন্দ, চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) রেজাউল মাসুদ, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. আবদুল ওয়ারিশ, এডিসি (ট্রাফিক) উত্তর ওয়াহিদুল হক চৌধুরী, হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফছানা বিলকিস, হাটহাজারী উপজেলা সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মো. মসিউদদৌলা রেজা, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার (শিক্ষা) শারমিন আখতার, এএসপি র‌্যাব-৭ মো. জালাল উদ্দিন আহমদ প্রমুখ।
এ ইউনিট: বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিজ্ঞান অনুষদের (এ-১ ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৬০জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৫৫১টি আসনের (সংরক্ষিত ৮১টি আসন) বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ৩২ হাজার ৭৭৩টি ।
বি ইউনিট: কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ১ হাজার ৪৯৬টি (সংরক্ষিত ২০০টি) আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ৪৭ হাজার ৭৮৩ জন ভর্তিচ্ছু। এখানে প্রতি আসনে অংশগ্রহণ করবে ৩২ জন পরীক্ষার্থী।
সি ও ডি ইউনিট: ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের (সি ইউনিট) প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৪২ জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৭৫১টি (১১১টি সংরক্ষিত আসন) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ৩১ হাজার ৬৬৬ টি। সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের (ডি ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৪২ জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৮৯০টি (সংরক্ষিত আসন ১৩২টি) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ৩৭ হাজার ৬৯০ টি।
ই, এফ ও জি ইউনিট: আইন অনুষদের (ই ইউনিট) প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ১৫২জন ভর্তিচ্ছু। এতে ১৩৬টি (২১টি সংরক্ষিত আসন) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ২০ হাজার ৬৮৭টি। জীব বিজ্ঞান অনুষদের (এফ ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৫১জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৫৭৬টি (সংরক্ষিত আসন ৯১টি) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ২৯ হাজার ২৯৮টি। ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের (জি ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১৮৬জন ভর্তিচ্ছু। এতে ১৪০টি (২০টি সংরক্ষিত আসন) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ২৬ হাজার ৭৩টি।
এইচ, আই ও জে ইউনিট: শিক্ষা অনুষদের (এইচ ইউনিট) প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ২৯জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৪৩টি (সংরক্ষিত ১৩টি আসন) আসনের বিপরীতে আবেদনপত্র জমা পড়েছে ১ হাজার ২৫৭টি। মৎস্য ও সমুদ্র বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট (আই ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৭৬জন ভর্তিচ্ছু। এতে ১১৩টি আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ৮ হাজার ৫৩৩টি। বন ও পরিবেশবিদ্যা ইনস্টিটিউট (জে ইউনিট) এ প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বে ৯৮জন ভর্তিচ্ছু। এতে ৯২টি (১৭টি সংরক্ষিত আসন) আসনের বিপরীতে আবেদন পত্র জমা পড়েছে ৯ হাজার ১৯টি।