চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণের মধ্যে দিয়ে কউক’র যাত্রা শুরু

0
16

কউকচেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণের মধ্যে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করল কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)।

বুধবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে কউক এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব বুঝে নেন লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমদ।এর মধ্যে দিয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা ও রাজশাহীর পর পঞ্চম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ হিসেবে কউক তার যাত্রা শুরু করলো।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, কক্সবাজারের অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে সুন্দর, আধুনিক, পরিচ্ছন্ন ও পরিবেশবান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তুলতেই ‘কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ’ (কউক) গঠিত হয়েছে।

কক্সবাজারের অপার প্রাকৃতিক সম্ভাবনা ও সময়ই অর্থনৈতিক উন্নয়নের কর্মকাণ্ড এগিয়ে এনেছে মন্তব্য করে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী আরও বলেন, কক্সবাজারে ইতিপূর্বে যেসব স্থাপনা হয়েছে; তা পরিকল্পনা ছাড়াই হয়েছে। এখন আর সেই ভাবে করা যাবে না। এ জন্য কক্সবাজারের মানুষের মাঝে উন্নয়ন ও পর্যটনবান্ধব সহনশীলতা সৃষ্টি করতে হবে।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের মতো নিরাপদ ও পর্যটকবান্ধব সৈকত পৃথিবীর আর কোন দেশের নেই দাবি করে মন্ত্রী বলেন, সমুদ্র যাতে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফলে দূষণের কবলে না পড়ে সেই বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। এজন্য প্রতিটি হোটেল-মোটেলকে নিজস্ব বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট (এসটিপি) স্থাপন করতে হবে। এছাড়া শহরবাসীর জন্যও আলাদা এসটিপি স্থাপন করা জরুরি।

মানুষ যাতে এক ছাদের নিচে সবধরণের সেবা পায় সেই লক্ষ্যে জেলা পর্যায়ের সরকারি সব দপ্তরের কার্যালয় স্থাপনের জন্য পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেন মন্ত্রী মোশারফ।

কউক’র এর দায়িত্ব গ্রহণকারী নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব:) ফোরকান আহমদ বলেন, কক্সবাজারের অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে সুন্দর, আধুনিক, পরিচ্ছন্ন ও পর্যটনবান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সব ধরণের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। এ জন্য প্রশাসনসহ সর্বস্তরের সমন্বয় জরুরি।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে দুর্নীতি ও ঘুষমুক্ত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, কোন ধরণের অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়া হবে না। সকলকে আইন মেনে সবধরণের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে হবে। এ জন্য কউক’র রেড বুকে ২০১১ সাল থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত যে সব উন্নয়ন পরিকল্পনা কথা উল্লেখ রয়েছে, তা ঢেলে সাজিয়ে নতুন করে মাষ্টারপ্ল্যান গ্রহণ করা হবে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাংসদ আব্দুর রহমান বদি. সাইমুম সরওয়ার কমল, আশেক উল্লাহ মো. রফিক, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য খোরশেদ আরা হক, জেলা পরিষদ প্রশাসক মোস্তাক আহমদ চৌধুরী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা।