টিংকু দাশের অকাল প্রয়াণে বিএনপি পরিবার শোকাহত

0
61

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র দপ্তর সম্পাদক টিংকু দাশ আজ ১০ সেপ্টেম্বর
মঙ্গলবার ভোর ৪ টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ
হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪৭ বছর। তিনি ১
পুত্র সন্তান, স্ত্রী, মা, ভাইবোনসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গ্রণগ্রাহী
রেখে গেছেন।
আজ বিকাল ৪ টায় টিংকু দাশের মৃতদেহ নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে শেষ
শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আনা হয়। চট্টগ্রামের সর্বস্তরের হাজার হাজার বিএনপি
ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা তার মৃতদেহ দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এ সময়
নেতৃবৃন্দ তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের স্মৃতি চারণ করেন এবং মৃতদেহে
ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। শ্রদ্ধা জানানো শেষে তার মৃতদেহ বলুয়ারদীঘির
পাড়াস্থ শ্বশানে শেষকৃত্যনুষ্ঠানের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।
এদিকে টিংকু দাশের মৃত্যুতে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত
হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর ও সিঃ সহ সভাপতি আবু সুফিয়ান এক
যুক্ত বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, টিংকু
দাশ ছিলেন জাতীয়তাবাদী দলের এক নিবেদিত প্রাণ নেতা। তিনি একজন পরিচ্ছন্ন
ও স্বজ্জন মানুষ হিসেবে সবার কাছে পরিচিত ছিলেন। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের
নেতৃত্ব¡ থেকে শুরু করে তার কর্মদক্ষতায় তিনি দলের মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ
পদে আসীন হয়েছেন। শহীদ জিয়ার হাতে গড়া সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল থেকে
উঠে আসা টিংকু দাস চট্টগ্রামে বিএনপিকে শক্তিশালী সংগঠনে পরিণত করতে
গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখেন। দলের জন্য তার অবদান বিএনপি আজীবন স্মরণে
রাখবে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, গণতন্ত্র, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা ও মানুষের অধিকার আদায়ের
প্রতিটি সংগ্রামে তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। যার ফলে তিনি অবৈধ
সরকার কর্তৃক অসংখ্য মিথ্যা মামলা সহ জেল, জুলুম,নির্যাতনের শিকার হন। দল
ও দেশের ক্রান্তিলগ্নে তার এই অকাল প্রয়ানে বিএনপি পরিবার একজন সৎ,
আদর্শবান, ত্যাগী ও দক্ষ সংগঠক নেতাকে হারাল। তার এই অকাল প্রয়ানে যে
শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। বর্তমান মধ্যরাতের ভোটের
সরকারের কারাগারে বন্দি বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনকে বেগবান করতে
তার মত সাহসী নেতার খুবই প্রয়োজন ছিল। টিংকু দাশের অকাল মৃত্যুতে তার
পরিবারের সদস্যদের ন্যায় আমরাও শোকাহত। নেতৃবৃন্দ তার বিদেহী আত্মার
শান্তি কামনা করেন।