তাপস সরকার নিহতের ঘটনায় প্রধান আসামি আশার আত্মসমর্পণ

0
3

তিন বছর আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দুই পক্ষের বিরোধের জেরে গুলিতে শিক্ষার্থী তাপস সরকার নিহতের ঘটনায় হওয়া মামলার প্রধান আসামি আশরাফুজ্জামান আশা আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন। বুধবার চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হেলাল উদ্দিনের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের পরিদর্শক (প্রসিকিউশন) এইচ এম মশিউর রহমান বলেন, আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন আশা। ২০১৪ সালের ১২ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ মিনারে একসঙ্গে শ্রদ্ধা জানিয়ে ফেরার পর শাটল ট্রেনের বগিভিত্তিক ‘সিএফসি’ ও ‘ভি-এক্স’ গ্রুপের কর্মীরা সংঘর্ষে জড়ায়।

‘ভি-এক্স’ নিয়ন্ত্রিত শাহজালাল হল থেকে গুলি চালানো হলে ‘সিএফসি’ নিয়ন্ত্রিত শাহ আমানত হলের তৃতীয় তলার বারান্দায় দাঁড়ানো তাপস সরকারের পিঠে গুলি লাগে।

গুলিতে নিহত তাপস সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি সুনামগঞ্জ জেলার বাবুলগঞ্জ থানার বিষ্ণুপুর এলাকার বাবুল সরকারের ছেলে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সেসময়ের বিলুপ্ত কমিটির উপ-সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুজ্জামান আশার নেতৃত্বে ওই হামলা চালানো হয় বলে তখন অভিযোগ করেছিলেন সিএফসির নেতাকর্মীরা।

ঘটনার পরদিন অস্ত্র আইনে পুলিশের করা মামলার প্রধান আসামি ছিলেন আশা।

সেসময়ের চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার কে এফ হাফিজ আক্তারও জানিয়েছিলেন, আশার নেতৃত্বেই শাহজালাল হলের দিকে গুলি করা হয়েছিল।

ঘটনার দুদিন পর তাপসের বন্ধু হাফিজুল ইসলাম বাদি হয়ে ৩০ জনকে আসামি করে যে মামলা করেন তাতেও আশাকে আসামি করা হয়।

এ মামলায় গত বছরের ২ মে আশাকে প্রধান আসামি করে ২৯ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান।