‘‘তিন দিনের মধ্যেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে জেব্রা ক্রসিং’’

0
29

চট্টগ্রাম নগরের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে জেব্রা ক্রসিং নির্মাণ আগামী তিনদিনের মধ্যে শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

সোমবার (৬ আগস্ট) বিকালে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে শিক্ষার্থী, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, ব্যবস্থাপনা কমিটি, সুশীল সমাজ ও অভিভাবকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা জানান।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে ছাত্র আন্দোলনের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসন যৌথভাবে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল মান্নান সভাপতিত্ব করেন সভায়।

সিটি মেয়র বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবিগুলোর সঙ্গে আমি একমত। এসব দাবি বাস্তবায়নে সরকার ইতোমধ্যে কাজও শুরু করে দিয়েছে। তবে সবকিছু বাস্তবায়নে কিছুটা সময় প্রয়োজন। আগামী তিন দিনের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরীর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে জেব্রা ক্রসিং করার কাজ শেষ হবে। ইতোমধ্যে কাজ শুরু করা হয়েছে।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তিনটি ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণের টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এসব ফুটওভার ব্রিজ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে নির্মাণ করা হবে। প্রথমে নাসিরাবাদ মহিলা কলেজ ও হাজেরা তজু কলেজের সামনে ফুটওভার ব্রিজ তৈরি করা হবে।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের দায়ে মাত্র ৫০০ টাকা জরিমানার জন্য আমার কাছে তদবির আসে। বলে, এবারের মতো মাফ করা যায় না? আমরা ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারীর জন্য একদিকে তদবির করি, অন্যদিকে পুলিশের ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ে সমালোচনা করি। এভাবে কী নিরাপদ সড়ক সম্ভব?

বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান বলেন, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলন একটি গোষ্ঠী ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করেছে। এভাবে কোনো কিছু চলতে পারে না। সবকিছু সরকার জানে। চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের দাবি অল্প সময়ের মধ্যে মেনে নেওয়া হয়েছে। আমরা বাংলাদেশ নিয়ে ভাবছি না। চট্টগ্রাম নিয়ে ভাবছি। স্কুল শিক্ষার্থীদের যেসব সমস্যা আছে তা আমরা স্বল্প সময়ে সমাধান করব।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজের অধ্যক্ষ অঞ্জন নন্দী, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন, পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা সহ প্রশাসনের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা।