দক্ষিণ জেলা বিএনপির নতুন আহ্বায়ক কমিটি

0
217

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

দীঘ ৮ বছরের মেয়াদোত্তীর্ণ ১৫১ সদস্যের কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে এ আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে কেন্দ্রিয় বিএনপির একটি সুত্র।

আজ বুধবার (২ অক্টোবর) দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কমিটির আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন করেছেন।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক ইদ্রিস আলী, বলেন, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান ভাইকে নগরী পাশাপাশি বাড়তি চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার দায়িত্ব দিয়েছে। তাঁকে আহবায়ক এবং মোস্তাক আহমদকে সদস্য সচিব করে ৩ মাসের জন্য ৬১ সদস্যবিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি আজকে অনুমোদন করেছে।
কমিটির আহবায়ক করা হয়েছে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ানকে। তিনি গত সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন।

কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হলেন, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলী আব্বাস ও সদস্যসচিব করা হয়েছে বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোস্তাক আহমেদ খানকে।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ মিডিয়াকে বলেন, আজ বুধবার চট্টগ্রাম দক্ষিণ, ফেনী, ও সিলেট জেলা বিএনপি’র আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আবু সুফিয়ানকে আহবায়ক ও মোস্তাক আহমদ খানকে সদস্য সচিব করে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র ৬৫ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি, শেখ ফরিদ বাহারকে আহবায়ক ও আলাল উদ্দিন আলালকে সদস্য সচিব করে ফেনী জেলা বিএনপি’র ৪৬ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি এবং কামরুল হুদা জায়গীরদারকে আহবায়ক করে সিলেট জেলা বিএনপি’র ২৫ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি অনুমোদন করা হয়েছে।

আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান বলেন, কেন্দ্র আমাকে অস্থায়ী ভাবে দক্ষিণ জেলার দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি ৩ মাসের মধ্যে সবাইকে নিয়ে একটি শক্তিশালী পূর্ণাঙ্গ কমিটি উপহার দিয়ে আমার দায়িত্ব শেষ করবো।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, জাফরুল ইসলাম চৌধুরী (বাশখালী), অ্যাড. কবির চৌধুরী (আনোয়ারা), অধ্যাপক শেখ মো. মহিউদ্দিন (সাতকানিয়া), এনামুল হক এনাম (পটিয়া), ইদ্রিস মিয়া (পটিয়া) অ্যাড. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, (বাঁশখালী), অ্যাড. ইফতেখার হোসেন চৌধুরী (বাঁশখালী), মোশারফ হোসেন (আনোয়ারা), শহিদুল আলম বুলবুল (বাঁশখালী), এমএ রহিম (পটিয়া), অ্যাড. মিজানুল হক (চন্দনাইশ), আলমগীর কবির চৌধুরী (বাঁশখালী), নূরুল আনোয়ার (চন্দনাইশ), অ্যাড. ফোরকান (কর্ণফুলি), আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী (সাতকানিয়া), বদরুল খায়ের চৌধুরী (পটিয়া), এহসান এ খান (কর্ণফুলি), আসাব উদ্দিন চৌধুরী (লোহাগাড়া), এম মঞ্জুর উদ্দিন চৌধুরী (আনোয়ারা), কামরুল ইসলাম হোসাইনী (বাঁশখালী), এসএম মামুন মিয়া (কর্ণফুলী), নাজমুল মোস্তফা আমিন (লোহাগাড়া), মজিবুর রহমান (সাতকানিয়া), মোজাফ্ফর আহাম্মেদ টিপু (পটিয়া), আজিজুল হক (বোয়ালখালী), লিয়াকত আলী (বাঁশখালী), অ্যাড. নূরুল ইসলাম (চন্দনাইশ), জহিরুল ইসলাম চৌধুরী আলমগীর (বাঁশখালী), আবুল কালাম আবু (বোয়ালখালী), সিরাজুল ইসলাম (চন্দনাইশ), মোস্তাফিজুর রহমান (আনোয়ারা), আবু মো. নিপার (আনোয়ারা), অ্যাড. ফৌজুল আমিন (আনোয়ারা), খোরশেদ আলম (পটিয়া), মফজল আহমদ চৌধুরী (পটিয়া), নূরুল ইসলাম সওদাগর (পটিয়া), জামাল হোসেন (সাতকানিয়া), ভিপি মোজাম্মেল (আনোয়ারা), মেজবা উদ্দিন চৌধুরী জাহেদ (আনোয়ারা), হুমায়ন কবির আনসার (আনোয়ারা), লায়ন হেলাল উদ্দীন (আনোয়ারা), আমিনুর রহমান চৌধুরী (বাঁশখালী), হাজী রফিক (সাতকানিয়া), নবাব মিয়া (সাতকানিয়া), মো. ইসহাক (বোয়ালখালী), হামিদুল হক মান্নান (বোয়ালখালী), এহসানুল মাওলা (সাতকানিয়া), নূরুল কবির (সাতকানিয়া), মইনুল আলম ছোটন (পটিয়া), মোক্তার আহমেদ (চন্দনাইশ), শফিকুল ইসলাম (চেয়ারম্যান) হাবিলাসদ্বীপ (পটিয়া), জিয়া উদ্দিন আশফাক (আনোয়ারা), সাজ্জাদ হোসেন (লোহাগাড়া), লোকমান হোসেন মানিক (সাতকানিয়া), মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী (বাঁশখালী), অ্যাড. কাশেম চৌধুরী (বাঁশখালী), জসিম উদ্দিন আব্দুল্লাহ্ (সাতকানিয়া), জসিম উদ্দিন (চন্দনাইশ), এসএম সলিম উদ্দিন খোকন চৌধুরী (লোহাগাড়া), বাবু চন্দ্রগুপ্ত বড়ুয়া (বাঁশখালী), শওকত আলম (বোয়ালখালী) ও কমিশনার নিলুফা ইয়াসমিন (বাঁশখালী)।

বিএনপির দলীয় সূত্রে জানা গেছে, কমিটির আহ্বায়ক-সদস্য সচিব যাঁরা হবেন তারা সম্মেলনে নতুন কমিটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন না। আহ্বায়ক কমিটি তিনমাসের মধ্যে দক্ষিণ জেলার আওতাধীন বিভিন্ন উপজেলা ও পৌরসভা বিএনপির কমিটি গঠন করবেন। পরে উপজেলা ও পৌর নেতৃবৃন্দের ভোটের মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে।