দাম বাড়ানোতে অ্যাকাউন্ট সরিয়েছে অ্যামাজন

0
59

করোনাভাইরাসের আতঙ্কে থাকা মানুষের ভয়কে পুঁজি করে অ্যামাজনের অনেক বিক্রেতা পণ্যের দাম বাড়িয়েছে। দাম বাড়ানোর ফলে এ পর্যন্ত ৫ লাখ ৩০ হাজার পণ্য সাইট থেকে সরিয়েছে অ্যামাজন।

এছাড়াও, ২ হাজার ৫০০ বিক্রেতার অ্যাকাউন্ট বাতিল করেছে ই-কামর্স জায়ান্টটি। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে তাদের পণ্য কার্যকর ভূমিকা রাখবে এমন দাবি করে কিছু পণ্য বিক্রি করেছিল তারা।

এক বিবৃতিতে অ্যামাজন জানায়, অতিরিক্ত দামে পণ্য বিক্রির কোনো সুযোগ নেই তাদের প্ল্যাটফর্মে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের কৃত্রিমভাবে সংকট তৈরির পাঁয়তারা আমরা এখানে সহ্য করবো না।

অ্যামাজনে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ফেইস মাস্কের চাহিদা বাড়ায় অনেক থার্ড পার্টি বিক্রেতা এগুলোর দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। যেমন ১০ ডলারের ইনস্ট্যান্ট হ্যান্ড স্যানিটাইজার পুরেলের দাম ৬০০ ডলারেও বিক্রি হয়েছে।

কৃত্রিমভাবে সংকট সৃষ্টি করে প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ানো যুক্তরাষ্ট্রের অনেক প্রদেশে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়।

ফলে মার্কিন সিনেটর এডওয়ার্ড মার্কি, অ্যামাজনের কাছে চিঠি পাঠিয়ে থার্ড পার্টি বিক্রেতাদের এসব অসাধু কার্যক্রম বন্ধ করতে বলেন।

জবাবে অ্যামাজন জানায়, অটোমেটেড ও ম্যানুয়াল দুইভাবেই তারা দাম বৃদ্ধির বিষয়টি যাচাই বাছাই করছে। কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দাম বেশি রাখা বিক্রেতাদের ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে তারা আইনবিদদেরও সহায়তা নিচ্ছে।

শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, ইতালিতের ইকমার্স সাইটগুলোতেও সার্জিকাল মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের মতো পণ্য কয়েক গুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। ফলে দেশটির সরকার দাম বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।