দুই মাথা ও ৪ হাত-পা ওয়ালা শিশু!

0
35

খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলায় দুই মাথা, চার হাত-পা ওয়ালা শিশুর জন্ম হয়েছে। মানিকছড়ির বড়ডলু এলাকার বটতলী গ্রামের দিনমজুর মো. ইউনুছ মিয়ার স্ত্রী হোসনে আরা বেগম গত ২১ আগস্ট রাত ১২টার দিকে চট্টগ্রামের নাজিরহাটের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে এ শিশুটির জন্ম দেন। এই কন্যা শিশুর জন্মের পর মানিকছড়ি বড়ডলু এলাকায় নিয়ে আসার পর এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মানিকছড়ির বড়ডলু এলাকার ইউনুছ মিয়ার সাথে ফটিকছড়ির নয়াবাজার এলাকার হোসনে আরা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের প্রায় দেড় বছর পর এটিই তার সংসারে প্রথম সন্তান। শিশুটি জন্মের পর থেকে দুই মাথা, চার হাত-পা নিয়ে সুস্থ রয়েছে। তবে জন্মের পর থেকে শিশুটির ভবিষ্যৎ চিকিৎসা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছে দিনমজুর ইউনুছ মিয়া।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে হোসনে আরা বেগম নাজিরহাটের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হয়। হাসপাতালে অস্ত্রো পচারের মাধ্যমে অদ্ভুত বিকলাঙ্গ কন্যা শিশুর জন্ম দেয়। তবে জন্মের পর থেকে শিশুটি শারিরীকভাবে সুস্থ থাকলেও এখনো অসুস্থ রয়েছেন মা। বর্তমানে শিশুটির পরিচর্যা করছেন তার দাদী ছালেমা খাতুন।

এদিকে জন্মের পর থেকে শিশুটিকে প্রথমে ফটিকছড়ির নয়াবাজার এলাকায় নানার বাড়িতে থাকলেও রোববার তাকে তার পৈত্রিক বাড়ি মানিকছড়ির বড়ডলু গ্রামে আনা হয়। এমন অদ্ভুত আকৃতির শিশুটিকে বাড়ি নিয়ে আসার খবর ছড়িয়ে পড়লে দীর্ঘ কয়েক কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে দেখতে স্থানীয়রা ভিড় করছে। সন্তানকে সুস্থ রাখতে ও তার সুচিকিৎসার জন্য সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগিতা কামনা করেছেন মা।

খাগড়াছড়ি জেলা সিভিল সার্জন মো. শাহ আলম জানান, এটি খুবই বিরল ঘটনা। জন্মগত ক্রুটির কারণে এমনটি হয়ে থাকে। এদিকে ‘স্মার্ট মানিকছড়ি’ নামের একটি অনলাইন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হতদরিদ্র এ পরিবারটির পাশে দাঁড়িয়েছে। আর্থিক সহযোগিতা দেয় সংগঠনটি।