ধেয়ে আসছে ‘বুলবুল’ প্রস্তুত মিরসরাইয়ের প্রশাসন

0
19

 

মিরসরাই প্রতিনিধি::
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে দশ এবং চট্টগ্রাম বন্দরকে নয় নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, শনিবার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে কোনো সময়ে বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে। এ সময় সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা পাঁচ থেকে সাত ফুট পর্যন্ত হতে পারে।
ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় চট্টগ্রামের মিরসরাই উপকুলীয় এলাকায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে উপজেলা প্রশাসন ।
শুক্রবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যেদের নিয়ে প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, প্রস্তুতির অংশ হিসেবে উপজেলার ৭৬ টি সাইক্লোন শেল্টার, ৪২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও একটি মাদ্রাসা আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত করা হয়েছে। পর্যাপ্ত শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। জরুরী প্রয়োজনে ১৬টি মেডিকেল টিম ও ফায়ার সার্ভিসের ৪টি টিম সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়াও মিরসরাই ও জোরারগঞ্জ থানার পুলিশ সদস্যরা সার্বিক আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত থাকবে।
মিরসরাই উপজেলা ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি (সিপিপি) কমিটির টিম লিডার সাইফুল্লাহ দিদার জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় ১১টি ইউনিয়নে ৮০জন টিম লিডারের নেতৃত্বে সিপিপি’র ১২০০ স্বেচ্ছাসেবক নিয়োজিত থাকবে। এছাড়া আগামীকাল উপকুলের প্রতিটি এলাকায় মাইকিং করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ঘণ্টায় ১২৫ কিলোমিটার বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে ধেয়ে আসছে উপকূলের দিকে।
প্রশান্ত মহাসাগরে সৃষ্ট উষ্ণমন্ডলীয় ঝড় মাতমো গত অক্টোবরের শেষে ভিয়েতনাম হয়ে স্থলভাগে উঠে আসে। সেই ঘূর্ণিবায়ুর অবশিষ্টাংশই ইন্দোনেশিয়া পেরিয়ে ভারত মহাসাগরে এসে আবার নিম্নচাপের রূপ নেয়। বারবার দিক বদল করে নিম্নচাপটি আবার শক্তিশালী হয়ে ওঠে। পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে এসে বুধবার রাতে তা ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেয়। তখন এর নাম দেয়া হয় ‘বুলবুল’।