নভেম্বর থেকে সেন্টমার্টিন যাবে পর্যটকবাহী জাহাজ

0
84

আগামী মাসের (নভেম্বর) প্রথম সপ্তাহ থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন সমুদ্রপথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরুর অনুমতি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।

গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। সাগরে চলাচল উপযোগী জাহাজগুলো সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে ছাড়পত্র পাওয়ার পরও স্থানীয় প্রশাসনের অনুমোদন না পাওয়ায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। আগামী নভেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত এই তিন মাস আবহাওয়া অনুকূলে থাকবে জানিয়ে ইতোমধ্যে রিপোর্টও দিয়েছে কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস।বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন (বিআইডব্লিউটিএ) চট্টগ্রাম বিভাগীয় উপপরিচালক নয়ন শীল গণমাধ্যমকে জানান, আসন্ন পর্যটন মৌসুমে এই নৌপথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলের জন্য ৫টি জাহাজ অনুমতি চেয়েছে। এরমধ্যে গত ২৩ অক্টোবর ৩টি জাহাজকে আগামী ২০২০ সালের ১৫ মার্চ পর্যন্ত চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অনুমতি পাওয়া জাহাজ তিনটি হল, কেয়ারি সিন্দাবাদ, কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন এবং দ্য আটলান্টিক। এদিকে সাগরে চলাচলে অনুমোদনের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদনকারী জাহাজগুলোর মধ্যে কেয়ারি সিন্দাবাদ, কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, দ্য আটলান্টিক এবং বে-ক্রুজ সমুদ্রে চলাচল উপযোগী উল্লেখ করে ছাড়পত্র দিয়েছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, বিআইডব্লিউটিএসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো। এসব জাহাজ ‘সি রেজিস্ট্রার’ অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু এমভি ফারহানসহ নদীতে চলাচল অনুপযোগী কিছু জাহাজ সাগরপথে চলাচলের জন্য আবেদন করেছে। সেফটি সার্টিফিকেট ছাড়াই গত কয়েক বছর ধরে এসব জাহাজ মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে সাগর পথে চলাচল করে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। যে কারণে এই ধরনের জাহাজগুলো সাগরের মাঝপথে আটকে যায়। আইন লঙ্ঘন করায় প্রশাসনের কাছে জরিমানাও দিতে হয় জাহাজগুলোকে। তবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়া কোনো জাহাজকে অনুমোদন দেয়া হবে না জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ছাড়পত্র কিংবা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নেই এমন কোনো জাহাজকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে চলাচলের অনুমোদন দেওয়া হবে না। যাদের সব ডকুমেন্ট আপটুডেট আছে তাদের অনুমোদন দেওয়া হবে। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে জাহাজগুলো চলাচল করতে পারবে।