পর্যটন শিল্পের বিকাশে গণমাধ্যমের সহায়তা দরকার

0
67

শনিবার (১৫ জুন) বিকেলে চট্টগ্রামের হেটেল সৈকতে আয়োজিত “বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের বিদ্যমান অবকাঠামোর সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সম্ভাবত্য সমীক্ষা” শীর্ষক দিসব্যাপী কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবির বলেন পর্যটন শিল্পের বিকাশে গণমাধ্যমের সহায়তা দরকার। ভ্রমণে অংশ নেওয়া বিদেশি সাংবাদিক ও ট্যুর অপারেটরদের দেশে ফিরে পর্যটনের প্রসারের লক্ষ্যে তাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে গণমাধ্যমে বাংলাদেশের পর্যটনের ওপর প্রতিবেদন, ফিচার এবং ডকুমেন্টারি তৈরি করার জন্যও তিনি আহ্বান জানান।

পর্যটনের জন্য প্রয়োজনীয় সব সম্পদ ও সম্ভাবনা আমাদের রয়েছে। এখন প্রয়োজন আমাদের পর্যটন গন্তব্য গুলোকে সঠিকভাবে সুন্দরভাবে আমাদের অভ্যন্তরীণ ও বিদেশি পর্যটকদের কাছে তুলে ধরা।

পর্যটন এখন অনেক দেশের বৃহৎ শিল্প। দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ করার সবচেয়ে বড় মাধ্যম এই খাত। পর্যটনই যে কোনও দেশের টেকসই উন্নয়নের হাতিয়ার। ফলে টেকসই পর্যটন শিল্প গড়ে তোলার বিকল্প নেই। সমৃদ্ধ, বৈচিত্র্যপূর্ণ ও দৃষ্টিনন্দন নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বাংলাদেশে তা হওয়ার অপার সম্ভাবনা আছে। রতিযোগিতামূলক বৈশ্বিক বাজারে আমাদের অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার অগ্রাধিকার খাত পর্যটনের উন্নয়নে সমন্বিত ও পরিকল্পিত কর্মকৌশলের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছে। পর্যটন খাতে বিনিয়োগ এবং কর্মসৃজনের জন্য উদ্ভাবনী কর্মকৌশল ও পরিকল্পনাসহ বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসার জন্য আমরা উৎসাহ প্রদান করছি।

দেশকে পর্যটনে সম্ভাবনার জায়গায় নিয়ে যেতে বন্ধু হিসেবে এখন ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে ডিজিটাল প্রযুক্তি। আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ভার্চুয়াল ট্রাভেল এজেন্ট তথা বিভিন্ন ওয়েব টুলস, মোবাইল অ্যাপ ও পর্যটন স্পটভিত্তিক ম্যাপ তৈরি হচ্ছে।

এখন ঘরে বসে বিমান ও ট্রেনের টিকিট বুকিং, হোটেল বুকিং, জাদুঘরের টিকিট কেনা, ভ্রমণের গন্তব্য সম্পর্কে জানাসহ বিভিন্ন সেবা অতিদ্রুত ও সহজেই পাচ্ছেন ভ্রমণপিপাসুরা। তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে পর্যটকরা সহজেই গন্তব্য নির্বাচন করতে পারছেন। লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, ভ্রমণে দিনে দিনে আগ্রহ বাড়ছে নানান বয়সী মানুষের। ফুরসত মিললেই দলবেঁধে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তারা। দেশের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে বেড়াতে যায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। চট্টগ্রামের আশপাশ ছাড়াও বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ সমু সৈকত কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, বান্দরবান, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, সিলেট, কুয়াকাটাসহ দেশের অন্যান্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত স্থানে তাদের ভিড় দেখা যায়।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রসার সাম্প্রতিক সময়ে দেশের পর্যটন খাতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এনেছে। ভ্রমণপিপাসুদের জন্য বাণিজ্যিক ট্রাভেল এজেন্সির বাইরে গড়ে উঠেছে এমন কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম। পর্যটন খাতের উন্নয়ন ও প্রসারে তথ্য বিনিময়ের ক্ষেত্রে অন্যতম নিয়ামক এখন সামাজিক গণমাধ্যম।

কর্মশালায় গণমাধ্যম কর্মী, প্রশাসনের না পর্যায়ের কর্মকর্তা, স্টেক হোন্ডার, পর্যটন কর্পোরেশন এর কর্মকর্তা, চট্টগ্রামের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।