পার্লারে নয় ঘরে বসেই করুন মেকাপ

0
48

সাজগোজ টিপস : নিজের মেকাপটা বরাবরই নিজেই করার অভ্যাস করাটাই উত্তম। কেননা, ঢাকার নামি দামী পার্লারে একটা পার্টি মেকাপ নেওয়ার খরচ কেমন সেটা জানা আছে তো? সবচেয়ে হাল্কা সাজ শুরু হয় ১৫০০ থেকে , মোটামুটি মনমত মেকাপ নেওয়া যায় কম হলেও ৩৫০০টাকা। তাই টুকটাক পার্টি মেকআপে টাকা খরচ না করতে চাইলে নিজেই করুন নিজের মেকআপ।

মেকাপ

মেকাপ টিউটোরিয়াল –
আর মেকাপ এ বেইজ করাটা একটা সুন্দর গেটাপ/মেকাপের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যাদের ত্বকের ধরণ তৈলাক্ত, সেনসিটিভ এবং কিছুটা ব্রণের ধাঁত আছে তাদের সবসময় মেকাপের ব্যাপারে একটু সাবধান থাকতে হয়।

জমকালো পার্টি মেকাপের বেইজ দুইভাবে করা যায় –
* ফাউন্ডেশন, ফেইসপাউডার ইউজ করে
* প্যানকেক ব্যবহার করে।

যার যেমন ভালো লাগে সেভাবে করবেন। কিন্তু একটা কথা অবশ্যই মাথায় রাখবেন প্যানকেক স্কিনের জন্য খুবই খারাপ। যত কম ব্যবহার করবেন তত ভালো, বা ব্যবহার না করলে আরও ভাল। মাসে একবার বা দুইবার ব্যবহার করলে খুব বেশি একটা সমস্যা সাধারনত হয় না।

বেইজ মেকাপ করার জন্য প্রস্তুতিঃ
পার্টি মেকাপের বেইজ করতে বসার আগে লক্ষ করুন দিনের পার্টি না, রাতের পার্টি, ওয়েদার কেমন। যদি দিনের পার্টি হয় তাহলে বেইজ টা করতে হবে যত হাল্কা এবং ন্যাচারাল করা যায়, আর রাতের পার্টি হলে একটু ভারি বেইজ হলে সমস্যা হয় না, বরং লাইটিং এ ছবি ভালো আসবে। বেইজ করার আগে মুখে একটা উপটান লাগিয়ে নিন, শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। এবার বরফ ঘষে নিন ১০ মিনিট। হয়ে গেলে ড্রাই স্কিনের জন্য ময়েশ্চারাইজ করে নিন। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য যদি ওয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার থাকে তাহলে তা দিয়ে নিন হাল্কা করে। এবার একটা ব্যান্ড দিয়ে চুল আটকিয়ে নিন যাতে মুখে চুল না পরে একদমই।
মেকাপ করলেও কেউ বুঝবে না আপনি মেকাপ করেছেন

বেইজ মেকাপ করার পদ্ধতিঃ
প্রয়োজনীয় উপকরনঃ ফেইস প্রাইমার (যদি থাকে) , ফাউন্ডেশন/প্যানকেক, কনসিলার, ফেইসপাউডার, মেকাপ সেটিং স্প্রে (যদি থাকে), ফেইস ব্রাশ/স্পঞ্জ।
কোন প্রোডাক্ট সাজেস্ট করছি না, শুধু পদ্ধতির বর্ণনা করলাম, যাতে যার যা প্রোডাক্ট আছে তা দিয়েই চেষ্টা করতে পারেন।

১) ফেইস প্রাইমার আঙ্গুলের মাথায় নিয়ে মুখে অল ওভার ঘষে ঘষে লাগাতে হবে, প্রাইমার সুন্দর করে ব্লেন্ড করে নিলে বেইজ অনেক স্মুথ হবে। প্রাইমার এর পরিমাণ বেশি হলে কিন্তু মুখ ওয়েলি লাগবে, আবার কম হলেও কাজ দিবে না।

নুসরাত ফারিয়াকে মেকাপ ছাড়া কেমন দেখায় ভিডিওতে দেখুন ।অবাক না হয়ে পারবেন না!

২) প্রাইমার দেওয়ার পর মিনিট দশেক অপেক্ষা করুন। প্রাইমারটা ফেইসে বসে গেলে, তারপর মুখে গাঢ় কোন দাগ থাকলে কনসিলার দিয়ে হাল্কা করে কভার করে নিতে হবে, আঙ্গুল দিয়ে হাল্কা করে প্রেস করে দাগের উপর বসিয়ে দিতে হবে, খেয়াল রাখুন কনসিলার ব্লেন্ড করবেন না। তাতে করে দাগ না ঢেকে মেসি হয়ে যাবে, এমনভাবে কনসিলার লাগাতে হবে যাতে শুধু দাগটাকে কভার করে আর স্কিনের মতই ন্যাচারাল লাগে। শুধুমাত্র গাঢ় দাগ থাকলে এখন কনসিলিং করুন, দাগ হাল্কা হলে ফাউন্ডেশনের পর কন্সিলিং করতে হবে।