পুরনো খবরের কাগজের যত ব্যবহার

0
35

রোজ সকালে ঘুম ভেঙেই যে দুটো জিনিস প্রয়োজন পড়ে, তা হলো ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপ আর খবরের কাগজ। প্রতিদিন পড়ার পর বাড়ির একটা নির্দিষ্ট স্থানে জমিয়ে রাখা হয় এ কাগজগুলো। শুধু খবরের কাগজই নয়, বিভিন্ন মাসিক পত্রিকাও জমে যায়। এরপর একসঙ্গে সেগুলো খুচরা দরে বিক্রি করা হয় ফেরিওয়ালার কাছে। পুরনো খবরের কাগজগুলোকে যেখানে আপনি ঘরে রাখতেই রাজি নন, সেখানে যদি বলা হয় সেগুলো দিয়েই ঘর সাজাতে, তবে অবাক হবেন নিশ্চয়ই! তবে একটু বুদ্ধি খাটিয়ে ফেলনা খবরের কাগজগুলো দিয়েই তৈরি করে নেয়া সম্ভব ঘর সাজানোর জন্য সুন্দর সুন্দর উপকরণ এবং কাজে লাগাতে পারেন ঘরের বিভিন্ন কাজে।

আচ্ছাদনে

অনেকে কাচের জারে মোমবাতি রাখেন। সেক্ষেত্রে কাচের জারের গায়ে নকশাও করা হয়। তবে আপনার বাড়িতে যদি ব্যক্তিগত লাইব্রেরি বা পড়ার ঘর থাকে, তাহলে সে ঘরের অলঙ্কার হিসেবে কাচের জারের গায়ে খবরের কাগজ জিগজ্যাগ করে কেটে লাগিয়ে নিন। এবার ভেতরে প্রজ্বলিত মোমবাতির আলোয় ফুটে উঠবে লেখাগুলো। সুদৃশ্য তো বটেই একই সঙ্গে অতিরিক্ত আলোও চোখে লাগবে না।

পার্টি পম ও হ্যাঙ্গিং বল

ঘরে জন্মদিন বা কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন মানেই বাড়তি খরচ। কিন্তু যখন খুব বাজেট মেনে চলতে হচ্ছে, তখন কি প্রয়োজন অতিরিক্ত খরচের! পুরনো খবরের কাগজ, আইকা, পিন আর সুতো দিয়েই বানিয়ে ফেলুন পার্টি পম। তাছাড়া বেলুনের গায়ে খবরের কাগজ বা পুরনো বইয়ের পাতা নকশা করে কেটে লাগিয়ে বানিয়ে ফেলা যায় হ্যাঙ্গিং বল। সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য এগুলোর ওপর রঙিন কাগজও ব্যবহার করা যায়। গৃহসজ্জায় খরচও কমবে আর আসবে নতুনত্বও।

ফুল

পড়ার টেবিলের সামনের দেয়ালে, দরজার ওপর বা ড্রেসিং টেবিলে সাজিয়ে রাখার জন্য ফুল তৈরি করে ফেলতে পারেন জমিয়ে রাখা খবরের কাগজ থেকেই। এসব ফুল ব্যবহার করা যায় জন্মদিনের কার্ড আর উপহারের বাক্সের ওপর।

ল্যাম্পশেড

ল্যাম্পশেড ভেঙে গেছে তাতে কী! খবরের কাগজ দিয়ে তা ফের বানিয়ে নিন। এরপর বাতি জ্বালালেই ল্যাম্পশেডে ভেসে উঠবে গোটা অক্ষরের লেখাগুলো।

চাবির ফ্রেম

বাড়ির গুরুত্বপূর্ণ চাবিগুলো সাধারণত ঝুলিয়ে রাখা হয়। তবে ব্যতিক্রম কিছু তো করা যেতেই পারে। পুরনো ছোট ছবির ফ্রেমে ব্যাকরাউন্ড হিসেবে খবরের কাগজ দু-তিন পরত করে লাগিয়ে নিন। এবার সারি করে কয়েকটি পিন গুঁজে তাতে ঝুলিয়ে রাখুন প্রয়োজনীয় চাবিগুলো। ইচ্ছা হলে গুঁজে দেয়া পিনগুলোর ওপর লিখে রাখতে পারেন কোনটি কীসের চাবি।

সূত্র: ফিউচারিস্ট আর্কিটেকচার