পেকুয়ায় টর্নেডোর আঘাতে ৫০ বসতবাড়ি বিধ্বস্থ

0
43
পেকুয়া(কক্সবাজার)প্রতিনিধি
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের ফেরাসিঙ্গা পাড়া, ষাড়ধুনিয়া পাড়া, বাজার পাড়া, মগনামা ইউনিয়নের কালার পাড়াসহ অারো কয়েকটি পাড়ায় (টর্নেডো) বাতাসের ঘূর্ণিপাকে ৫০টি বসতবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্থ হয়েছে। এমনকি বাতাসের প্রবল ঘূর্ণিপাকে বসতবাড়ির মাঠি ছাড়া সবকিছু নিয়ে গেছে।
এঘটনায় শিশুসহ এক মহিলা অাহত হয়েছে। অাহত মহিলা রেজিয়া বেগম অাবুল হোসেনের স্ত্রী ও তার শিশু পুত্র।
বুধবার দুপুর ১টার দিকে প্রবল বাতাসের ঘূর্ণিপাকের কারণে এ ক্ষয়ক্ষতি হয় বলে স্থানীয় ইউপি সদস্যরা নিশ্চিত করেন।
উজানটিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য অাবদু রহিম বলেন, অামার ওয়ার্ডের ফেরাসিঙ্গা পাড়ায় বাতাসের প্রবল ঘূর্ণিপাকে জাফর অালম, নুরুল অালম, বেলাল হোসেন, অাবুল হাশেম, অাবুল হোসেন, শহিদুল্লাহ, অাবদু শুক্কুর, জালাল অাহমদের বসতবাড়ি সম্পূর্ন বিধ্বস্থ হয়ে প্রায় ৩০লাখ টাকার মত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অারো ১০টির মত বসতবাড়ি অাংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসমস্ত পরিবারের সবাই খোলা অাকাশের নিছে বসবাস করছে।
ষাড়ধুনিয়া পাড়া ও বাজার পাড়ার ইউপি সদস্য ছিদ্দিক অাহমদ বলেন, অামার ওয়ার্ডের অারফা বেগম, অাবদু শুক্কুর, নন্যা মিয়া, রবি অালম, মোঃ হোছাইনের বসতবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্থ হয়েছে। অারো ১০টির মত বসতবাড়ি অাংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রায় ২০লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়।
মগনামা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম বলেন,   কালার পাড়ায় ৬টি বসতবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্থ হয়েছে। তাৎক্ষনিকভাবে অামি ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছি। তারা যাতে কষ্ট না পায় সে ব্যবস্থা করা হচ্ছে।
উজানটিয়া ইউপির চেযারম্যান শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রায় ২০টির মত বসতবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্থ হয়েছে। এক মহিলা ও এক শিশু অাহত হয়েছে। তাদেরকে তাৎক্ষনিকভাবে সহযোগিতা করা হয়েছে।
তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহাবুব-উল করিম বলেন, বাতাসের প্রবল ঘূর্ণিপাকের কারণে উজানটিয়া এবং মগনামায় বেশ কয়েকটি বসতবাড়ি বিধ্বস্থ হয়েছে। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এসমস্ত এলাকায়। তাদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হবে।