প্রতিভা বিকাশে সংস্কৃতি চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম

0
35

বোয়ালখালীতে সপ্তসুরের বর্ষপুর্তিতে বক্তারা-

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:
শিশুদের মানসিক বিকাশে শিক্ষার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। সংস্কৃতিমনা মানুষ কখনোই অনৈতিক কার্যকলাপে জড়িত থাকতে পারেনা। প্রতিভা বিকাশে সংস্কৃতি চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম।

৭ জুন শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলা মিলনায়তনে সপ্তসুর সংগীত নিকেতন’র ২য় বর্ষপুর্তি উপলক্ষে আয়োজিত পুরস্কার বিতরণ, সংবর্ধনা ও আলোচনা সভায় বক্তারা এ কথা বলেন।
তবলা শিক্ষক লিটন শীলের স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে একঝাঁক ক্ষুদে তবলা শিক্ষার্থীর অংশ গ্রহণে তবলা লহড়া, শিল্পীদের দলীয় ও একক সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন সপ্তসুর সংগীত নিকেতন’র পরিচালক রানু মজুমদার।
প্রধান অতিথি ছিলেন, সমাজ সেবক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব উজ্জল দত্ত। সংবর্ধিত অতিথি ছিলেন, শাস্ত্রীয় সংগীত শিক্ষক টিভি ও বেতার শিল্পী ননী গোপাল আচার্য্য। প্রধান আলোচক ছিলেন বাগীশিক কেন্দ্রিয় সংসদের প্রতিষ্টাতা সাধারণ সম্পাদক পলাশ কান্তি নাথ রণি।
আনোয়ারা উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সংগীত শিক্ষক রাসেল দেব এর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বোয়ালখালী পৌর কাউন্সিলর সুনিল চন্দ্র ঘোষ, বোয়ালখালী প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. শাহীনুর কিবরিয়া মাসুদ, গীতিকার ও সুরকার বিভুতি শীল বিভু, সাংবাদিক আবুল ফজল বাবুল, দেবাশীষ বড়–য়া রাজু, শিক্ষক রণি বিশ^াস ও অন্তু বিশ^াস।
অধ্যক্ষ জুসি বড়–য়ার সার্বিক তত্বাবধানে অনুষ্টান শেষে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।
বক্তারা বলেন, হাজার বছরের ঐতিহ্য দেশিয় সংস্কৃতি দিন দিন হারিয়ে যেতে বসেছে। এর উত্তরণ ঘটাতে হলে শুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চার কোন বিকল্প নাই। সংগীতে প্রাণ এবং মান আছে। প্রাণহীন সংগীত বেশীদিন টিকে থাকতে পারেনা। অপ-সংস্কৃতির আগ্রাসন থেকে বর্তমান প্রজন্মদের ফিরিয়ে এনে সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে কাজ করে যাচ্ছে সপ্তসুর সংগীত নিকেতন।