ভারপ্রাপ্তের ভারে ভারাক্রান্ত কুতুবদিয়া

0
35

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া দ্বীপের গুরুত্বপূর্ণ সরকারি দাপ্তরিক কর্তাদের পদগুলি শূণ্য থাকায় দূর্ভোগ পোহাচ্ছে দ্বীপের সাধারণ মানুষ। উন্নয়ন কাজে বাঁধার সম্মূখীন হচ্ছে দ্বীপের সরকারি দাপ্তরিক কর্মকান্ড। বাংলাদেশ মূল ভূ-খন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ কুতুবদিয়া। এ দ্বীপে ৯১ সনের ঘূণিঝড়ের পর থেকে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে আড়াই ডজন সরকারি গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের পদ শূণ্য রয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে কুতুবদিয়া উপজেলা প্রশাসনে দারুণ স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

সরকারি গুরুত্বপূর্ণ দাপ্তরিক কর্মকর্তাদের শূণ্য পদগুলো হচ্ছে, সহকারি কমিশনার (ভূমি) দীর্ঘ এক যুগ ধরে পদটি শূণ্য, নির্বাচন কর্মকর্তা সাত বছর। পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা ভারপ্রাপ্ত দায়িত্বে দুই বছর। যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ৫বছর। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জন্ম থেকে শূণ্য। পশু সম্পদ কর্মকর্তা একযুগ ধরে। হিসাব রক্ষণ কর্মকতা নেই এক যুগ ধরে। রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা ৮ বছর ধরে। পরিসংখ্যান কর্মকর্তা এক যুগ ধরে। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা পাঁচ বছর। সাব রেজিষ্ট্রার নেই এক যুগ ধরে। আবাসিক প্রকৌশলী নেই দীর্ঘদিন ধরে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী (এসডিই) নেই ৫ বছর ধরে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী নেই এক যুগ ধরে। কুতুবদিয়া থানা তদন্ত কর্মকর্তা নেই ৫ বছর ধরে। জনগুরুত্বপূর্ণ টিএনটির কর্মকর্তা নেই এক যুগ ধরে। সরকারি হাসপাতালে ২৬ জন ডাক্তারের স্থলে ১৫ ডাক্তার র্দীঘ দিন ধরে । যে কর্মকর্তারা এখানে দাপ্তরিক দায়িত্বে আছেন অধিকাংশ কর্মকর্তা পাশ্ববর্তী দুই/তিন উপজেলাও দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
চট্টগ্রামস্থ কুতুবদিয়া সমিতির উপদেষ্টা শফিউল আলম ও সদস্য আলহাজ্ব ছালেহ আহমদ চৌধূরী বলেন,বাংলদেশের মুল ভূ-খন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ কুুতুবদিয়া। দ্বীপ এলাকা হিসেবে সরকারি সংশ্লিষ্ট দাপ্তরিক কর্মকর্তাদের উপস্থিতি একান্ত আবশ্যক। এর ভেতর যদি গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর গুলোতে কর্মকর্তাদের পদ শূণ্য থাকায় দ্বীপের উন্নয়ন কর্মকান্ডের স্থাবিরতা দেখা দিবেই। সরকারের এহেন বৈরীভাব দ্বীপের দুই লক্ষ মানুষ সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিনিতই। সরকারের রাজস্ব আদায়ের দপ্তর গুলিতে কর্মকর্তা না থাকায় রাজস্ব আদায়ে চরম ব্যাঘাত ঘটতেছে। এ ফাঁকে কর্মচারীরা বিভিন্ন সুযোগে ভোগ করে নেয়। উপজেলা পরিষদের পর্যায়ক্রমে দপ্তর গুলিতে কর্মকর্তার পদ শুন্য থাকায় দ্বীপের মানুষ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
কুতুবদিয়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) সালেহীন তারভীর গাজী আক্ষেপ সাথে বলেন, বিভিন্ন দপ্তরে কর্মকর্তার পদ শূন্য থাকায় উপজেলার উন্নয়ন কর্মকান্ড ও কর্মপরিকল্পনা করা সম্ভব হচ্ছে না। গেল রোয়ানুর ঘূর্ণিঝড়ের সময় দাপ্তরিক কর্মকর্তারা থাকায় টিম ওয়ার্ক কাজ করতে গিয়ে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। উপজেলা পরিষদ উন্নয়ন সমন্বয় সভায় উক্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতি না পেয়ে দাপ্তরিক কাজ সম্পর্কে জানা যায় না। যার ফলে উন্নয়ন কর্মকান্ডে ব্যাঘাত দেখা দিয়েছে। অতিসত্ত্বর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাপ্তরিক কর্মকর্তাদের শূন্যপদে পুরনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবগত কপি পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম নুরুল বশর চৌধূরী বলেন, কুতুবদিয়া দ্বীপের মানুষ প্রত্যেক সরকারি বেসরকারি দপ্তরের উন্নয়ন ্ও চলমান কর্ম প্রক্রিয়ায স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। অতিসত্বর দ্বীপের গুরুত্বপুর্ণ শুন্য পদগুলি পূরণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানান।