মগনামা লঞ্চঘাট এলাকায় অস্থায়ী টার্মিনাল

0
39
নিজস্ব প্রতিবেদক
উপকূলীয় অঞ্চল কুতুবদিয়া-মগনামাসহ আশেপাশের এলাকাকে মহামারী করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করতে মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকাবাসীরা।
সাব-মেরিন নৌঘাঁটিতে আসা যাওয়া দেশি বিদেশী লোকজন, কুতুবদিয়া থেকে আসা যাওয়া লোকজনের জন্য লঞ্চঘাট এলাকায় গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য অস্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণ করায় করোনার ঝুঁকি থেকে অনেকাংশে রক্ষা পাবে উপকূলবাসী এমন মতামত সচেতন মহলের। অস্থানীয় টার্মিনালকে স্থায়ীকরণে চকরিয়া-পেকুয়ার সাংসদ জাফর আলমের সহযোগিতা কামনাও করেন তারা।
জানা গেছে, শেখ হাসিনা সাব-মেরিন নৌঘাঁটিতে চায়নাসহ বেশ কয়েকটি দেশের মানুষ কর্মের মধ্যে রয়েছে। বাংলাদেশী শতশত মানুষ সাব-মেরিন ঘাঁটিতে কাজ করছেন। এছাড়াও কুতুবদিয়া-মাতারবাড়ি-মেহেশখালী ও বাঁশখালীর লোক যাতায়াত করে থাকেন মগনামার উপর দিয়ে। যার কারণে করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে মগনামাসহ পেকুয়া উপজেলার লোকজন। স্থানীয় এলাকাবাসীর দাবী ছিল যন্ত্রতন্ত্র গাড়ি পার্কিং বন্ধ করে অস্থায়ী গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য টার্মিনালের ব্যবস্থা করা। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অস্থায়ী গাড়ি পার্কিংয়ের দাবী জানিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে চলছিল সচেতনমহল। যার ধারাবাহিকতায় মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী উপকূলবাসীর সুবিধার্তে লঞ্চঘাট ও মগনামা বিট অফিস সংলগ্ন এলাকার পরিত্যাক্ত জায়গায় অস্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় তা বাস্তবায়ন করেন। যার কারণে লঞ্চঘাট এলাকায় যানজট মুক্ত হওয়ার পাশাপাশি করোনার ঝুঁকি থেকেও রক্ষা পাবে এলাকাবাসীরা।
বিভিন্নমহল চেয়ারম্যানের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে পরিত্যাক্ত এ জায়গায় স্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণের জন্য চকরিয়া-পেকুয়ার সাংসদ জাফর আলমের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। এছাড়াও করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে চেয়ারম্যানের উদ্যোগে সচেতনমূলক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। টিম গঠন করে বিদেশ প্রেরত লোকদের বাড়িতে পাঠানো হচ্ছে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার জন্য। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের প্রচারপত্র বিলিও করছেন তিনি।
স্থানীয় এলাকাবাসীর পক্ষে এমরান খান, আরিফ, হাশেম, আজগরসহ আরো বেশ কয়েকজন জানিয়েছেন, উপকূলবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ছিল একটি টার্মিনাল নির্মাণ। কারণ হাজার হাজার মানুষসহ শতশত গাড়ি মগনামার উপর চলাচল ও যাতায়াত করে থাকে। ইতোমধ্যে করোনা ভাইরাসের কারণে রাস্তার ধারে এলোমেলোভাবে গাড়ি রাখা ও তাতে মানুষের যাতায়াতের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে এলাকার লোকজন। এলাকাবাসীর দাবীর প্রেরিপেক্ষিতে মগনামা ইউপির জনদরদী চেয়ারম্যান অস্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণ করে পরিত্যাক্ত একটি স্থানে। যার কারণে এই এলাকা দিয়ে যাতায়াতকারী লোকজন একটি স্থান থেকে গাড়ি নিয়ে চলাচল করতে পারছে। জনগণের সুবিধার জন্য তিনি এমন একটি মহৎ কাজ করলেও কিছু কু-চক্রিমহল তা বাধাগ্রস্ত করতে ওঠেপড়ে লেগেছে। এমপি মহোদয়ের প্রতি অনুরোধ অস্থায়ী এ টার্মিনালকে স্থায়ীকরণ করে জনগণের দুঃখ লাগবে মহতী উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।
এবিষয়ে মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী বলেন, মগনামা এমনিতেই করোনা ভাইরাসে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। কারণ বিদেশী অনেক লোক সাব-মেরিন নৌঘাঁটিতে কাজ করে থাকে। এছাড়াও কুতুবদিয়াসহ আশেপাশের মানুষ লঞ্চঘাটে এসে গাড়ি নিয়ে তাদের নিজ কর্মস্থলে যায়। হাজার হাজার মানুষের যাতায়াতের কারণে একটি অস্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসছিল এলাকাবাসীরা। তাদের দাবীর কারণে পরিত্যাক্ত এলাকায় অস্থায়ী টার্মিনাল করে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। একটি স্থায়ী টার্মিনাল নির্মাণে এমপি মহোদয়ের সহযোগিতা পেলে দ্রুত কাজ শেষ করতে পারবো। আমার চেষ্টা থাকবে একটি স্থায়ী টার্মিনাল করে এলাকাবাসীর দুঃখ লাগব করার।