মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটির অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবীতে

0
39

মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি করা ও মুনিরুল্লাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুৃর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে রাউজানে সব শ্রেণী পেশার মানুষ ঐক্যবদ্ব হয়ে প্রতিবাদ সভা, বিক্ষোভ মিছিল, সংবাদ সম্মেলন, মানববনদ্বন কর্মসুচি পালন করে আসছে গত তিন মাস ধরে। মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটির অনুসারী সন্ত্রাসীদের হাতে ১৪ বৎসরের কিশোর নঈম উদ্দিন নিহত হয় । মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটির অনুসারী সন্ত্রাসীদের হামালার শিকার হয় আলেম ওলামা, রাজনৈতিক নেতা মুক্তিযোদ্বা সাধারন নিরিহ মানুষ । গত ১৭ এপ্রিল রাউজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগটীনক সম্পাদক মোজ্জামেল হককে মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটির অনুসারী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ দিবালোকে হামলা করে। এসময়ে মুক্তিযোদ্বা শফিকুল আনোয়্রা সন্ত্রাসীদের হাত থেকে আওয়ামী লীগ নেতা মোজ্জামেল হককে বাচাঁনোর জন্য এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা মুক্তিযোদ্বা শফিকুল আনোয়ারকে ও লাঞ্চিত করে। এই ঘটনার পর রাউজানে আওয়ামীূ লীগ, যুবলীগ,ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা, মুক্তিযোদ্বা, আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়েত, গাউছিয়া কমিটি, ইসলামী ছাত্রসেনা, ইসলামী যুবসেনা, কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি ও কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্ল্যাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে প্রতিবাদ সভা, বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্দন কর্মসুচি পালন করেন । মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি ও কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্ল্যাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়ে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবদ সম্মেলন করে মুক্তিযোদ্বা, আহলে সুন্নত ওয়াল জামাত, ইসলামী যুব ঐক্য পরিষদ, ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়েত মানব বন্দœ কর্মসুচি পালন করে । গত ৯জুলাই চট্টগ্রাম জেলা মুক্তিযোদ্বা সংসদ, রাউজান উপজেলা মুক্তিযোদ্বা সংসদ ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্দন কর্মসুচি পালন করে। মানববন্দন কর্মসুচি পালন করার পর মুক্তিযোদ্বারা জাতীয় প্রেস ক্লাব হলে সংবাদ সম্ম্লেন করে। মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি ও কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্ল্যাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে রাউজানের প্রতিটি এলাকায় প্রতিবাদ সভা, বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্দন কর্মসুচি পালন করে আসছে গত তিনমাস ধরে। কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্লাহর বাড়ী রাউজানের কগতিয়ায় ও প্রতিবাদ সভা বিক্ষোভ মিছিল করে মুনিরুল্ল্রাহর প্রতিবেশীরা । কাগতিয়া এলাকায় এলাকার লোকজন আমরন কর্মসুচি পালন করে। রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ ও রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্ল্রাহ মুনিরুল্ল্রাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদেরকে গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি প্রদানের আশ^াস দিলে অনশন কারী জনতা তাদের অনশন ভঙ্গ করেন । মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি করা ও মুনিরুল্লাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুৃর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে রাউজানে জনতার উত্তাল আন্দেলন চলাকালে ইসলামী আরবী বিশ^বিদ্যালয়ের ৫ সদস বিশিষ্ট তদন্ত দল রাউজানের কাগতিয়া এশাতুল কামিল মাদ্রাসা পরিদর্শন করেন । কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্ল্রাহ বাড়ী পরিদর্শন করেন । ইসলামী আরবী বিশ^বিদ্যালয়ের ৫ সদস বিশিষ্ট তদন্ত দল রাউজানের কাগতিয়া এশাতুল কামিল মাদ্রাসা পরিদর্শন কালে পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লায়ন সাহাবু উদ্দিন আরিফ তদন্তকারী দলের সদস্যদেরকে অভিযোগ করে বলেন, কাগতিয়া এশাতুল উলুম কামিল মার্দ্রাসার অধ্যক্ষ পদে আসিন মুনিরুল্ল্যাহ ৯৬ সালে কমিল পাশ করে ৯৭ সালে কিভাবে মার্দ্রসার অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ পেয়েছে তার নিয়োগ প্রক্রিয়া নীতিমালা অনুসারে হয়েছে কিনা । কাগতিয়া এশাতুল উলুম কামিল মার্দ্রসার নাম দিয়ে রাউজানের প্রতিটি ঘরে ঘরে দানবাক্স বসিয়ে ও কোরবানীর সময়ে মার্দ্রাসার নাম দিয়ে এলাকার লোকজনের কাছ থেকে জোর পুর্বক সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করে কোরবানীর পশুর চামড়া লুট করে, দেশের ব্যবসায়ী, প্রবাসীদের কাছ থেকে মার্দ্রাসার নাম দিয়ে কোটি কোটি টাকা নিয়ে মুনিরুল্যাহ তার বাড়ীতে কয়েকশত কোটি টাকা ব্যয় করে নিচের একতলা সহ ৭তলা বিশিষ্ট বিলাস বহুল বাড়ী নির্মান করছে । গত ৮ বৎসর ধরে বিলাসবহুল ভবন নির্মান কাজ চলেছে । বিলাসবহুল ভবনের নির্মান কাজে বিদেশ থেকে আনা বালু ও পাথর দিয়ে ভবনের নির্মান কাজ চলছে বলে জানান এলাকার লোকজন । বিলাসবহুল ভবনের নিচের তলা সহ ৭ তলা বিশিষ্ট ভবনে রয়েছে ১শত ২২ টি কক্ষ। রয়েছে সুইমিং পুল। এলাকার লোকজন আরো অভিযোগ করে বলেন মুনিরুৃল্ল্রাহ মার্দ্রসার নাম দিয়ে আদায় করা চাদাঁর টাকা দিয়ে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় ও চট্টগ্রাম শহরে ও ঢাকায় বিপুল পরিমাণ সম্পত্তির মালিক হয়েছেন । চট্টগ্রাম নগরীর বায়োজিদ রাউজানের কাগতিয়া ও রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় এলাকার লোকজনের জায়গা জমি জোরপুর্বক মুনিরুল্ল্রাহ ও তার সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে রেজিষ্ট্রি করে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে এলাকার লোকজনের । রাউজানের দক্ষিন হিংগলার হজরত মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিকির পুরাতন বাড়ী ছিল কাগতিয়ায় । হজরত মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিকি (রাঃ) এর পিতা মরহুম মাওলানা রহমত আলী ও তার বংশধরের জমি জোরপুৃর্বক দখল করে নিয়ে মুনিরুল্ল্রাহ তার অনুসারী সন্ত্রাসীরা কাগতিয়া মার্দ্রাসার বিশাল মাঠ করেছে । মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিকি (রাঃ) এর পুর্ব পুরুষের মসজিদ হজরত রুপচান্দ শাহ মসজিদটি জোর পুর্বক দখল করে নিয়ে মসজিদের নাম পরির্বতন করে মসজিদের নাম দেওয়া হয়েছে কাগতিয়া মার্দ্রাসা মসজিদ। হজরত মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিকি (রাঃ) এর পৈতৃক কাগতিয়া বাজারের একটি মার্কেট জবর দখল করে কাগতিয়া মার্দ্রাসা মার্কেট নাম দিয়েছে মুনিরুল্ল্রাহ । হজরত মাওলানা আবু বক্কও সিদ্দিকি (রাঃ) এর পুত্র মাওলানা হাসান বলেন আমার বংশধরের মালিকানা জায়গা জোর পুর্বক দখল করে নেওয়ার পর আমার পিতা হজরত আবু বক্কর সিদ্দিকি (রাঃ) আদালতে মামলা করেন । দেশের সবোর্চ্চ আদালত আমাদের পক্ষে মামলার রায় প্রদান করে। আদালতের রায় পাওয়ার পর ও আমাদের মালিকানা জায়গা এখনো জবর দখল থেকে উদ্বার করতে পারেনি । রাউজান উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার চৌধুরী আবদুল্ল্যাহ আল মামুন বলেন মুনিরুল্ল্রাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীরা কাগতিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি জোরপুর্বক দখল করে নিয়েছে । রাউজান উপজেলা মুক্তিযোদ্বা সংসদেও কমান্ডার আবু জাফর চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের সময়ে কাগতিয়া মার্দ্রাসায় রাজকার ক্যম্প ছিল । ১৯৭১ সালের ২৭ সেপ্টম্বর দিবাগত রাতে মুক্তিযোদ্বারা রাজাকার ক্যম্প আক্রমন করে। এসময়ে রাজাকারদের ছোড়া গুলিতে রাউজানের মোহাম্মদপুর এলাকার অলি খা বাড়ীর বসিন্দ্বা মুক্তিযোদ্বা শহীদ হয় । স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে কাগতিয়ার পীর মুনিরুল্লাহ তার অনুসারী সন্ত্রাসীরা তরিকতের নাম দিয়ে রাউজানে জঙ্গিবাদ সৃষ্টির পায়তারায় লিপ্ত হয় । মুনিরুল্ল্রাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের অপকর্মের বিরুদ্বে কেউ প্রতিবাদ করলে তাদেরকে হামলার শিকার হতে হয় । মুনিুরুল্ল্র্যাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়েছে মুক্তিযোদ্বা শফিকুল আনোয়ার ও আওয়ামী লীগ নেতামোজ্জামেল হক সহ আলেম ওলামা ও নিরিহ সাধারন মানুষ । রাউজান উপজেলা মুক্তিযোদ্বা সংসদের কমান্ডার আবু জাফর চৌধুরী আরো বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির মদদদাতা সংগঠন মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটিকে নিষ্দ্বি ও মুনিরুল্ল্রাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি প্রদান মুনিরুল্লাহর আয়ের উৎস খুজে বের করার দাবীতে রাউজানের মুক্তিযোদ্বারা মানববন্দন কর্মসুচি, সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামণা করছি । মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষ্দ্বি করা ও মুনিরুল্লাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুৃর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীেেত আন্দোলনের অগ্রনায়ক রাউজান পৌরসভার প্যনেল মেয়র ও রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন, মুনিরুল্ল্যাহ কোন পীর নয় সে একজন ভন্ড পীর । তরিকত্বের নাম দিয়ে মুনিরুল্ল্যাহ সন্ত্রাসীদের লালন পালন করে এলাকার মানুষের জায়গা জমি জবর দখল, চাদাবাজীঁ করে আসছে । মুনিরুল্ল্যাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের এই সব অপকর্মের বিরুদ্বে প্রতিবাদ করায় আলেম ওলামা, মুক্তিযোদ্বা, রাজনৈতিক নেতাদের উপর হামলা করে । ২০১০ সালে মুনিরুল্ল্যাহর অনুসারী সন্ত্রাসীদের হামলায় রাউজানের উত্তর সর্তার ১৪ বৎসরের কিশোর নঈম উদ্দিন নিহত হয় । রাউজান পৌরসভার প্যনেল মেয়র ও রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ আরো বলেন, ভন্ড পীর মুনিরুল্ল্রাহ ও তার অনুসারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পুর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী ও মুনিরিয়া যুবতবলীগ কমিটি নিষিদ্ব করার দাবীতে রাউজানের সর্বস্তরের জনতা আন্দোলনে মাঠে নেমেছে । দাবী পুরণ না হওয়া পযৃন্ত রাউজানের উত্তাল জনতা ঘরে ফিরে যাবেনা । রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই নুর নবী জানান । বিভিন্ন হামলার ঘটনায় রাউজান থানায় ১২ টি মামলা হয়েছে । তার মধ্যে ৪টি মামলায় মুনিরুল্ল্যাহকে আসামী করা হয়েছে । ১২টি মামলার আসামীদের মধ্যে আদালতে আতর্œসমর্পন সহ ৫৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে । তার মধ্যে কিছু সংখ্যক আসামী জামিনে মুক্তি পেয়েছে অবশিষ্টরা জেল হাজতে রয়েছে । মুনিরুল্ল্যাহ তার অনুসারী যাদের াবিরুদ্বে মামলা রয়েছে তারা আতœগোপনে চলে যাওয়ায় তাদের গ্রেফতার করতে পানেনি পুলিশ ।