মেক্সিকান নাচোস

0
43

বর্তমানে বাংলাদেশে দেশীয় খাবারের তালিকায় যুক্ত হয়েছে নানা বিদেশি খাবারের নাম। এখন শুধু চটপটি, ফুচকা, ভেলপুরি, কিংবা ঝালমুড়িতেই সীমিত নন কেউ। এখন তালিকায় রয়েছে নাচোস। ব্যাস্ত সময়, অলস সময় যেটাই হোক না কেন, সময় পার করতে নাচোস নিঃসন্দেহে খুবই ভালো একটা টাইম কিলিং ট্রিট।

নাচোসকে আমরা মেক্সিকান খাবার হিসেবে চিনলেও এর ইতিহাস ভিন্ন কথা বলে। শুরুতে নাচোস তৈরি করা হয়েছিলো আমেরিকান একটি রেস্তরাঁর রান্নাঘরে। ১৯৪৩ সালে আমেরিকান কিছু সৈন্যদের স্ত্রীরা টেক্সাসে কেনাকাটা করতে আসেন। সে সময় তাদের ক্ষুধা পেলে তারা একটি রেস্তরাঁয় যান। কিন্তু রেস্তরাঁ সেদিন বন্ধ থাকলেও রেস্তরাঁ মালিক তাদের হতাশ করতে চাননি। তাই রান্নাঘরে যা ছিল তা দিয়ে চটজলদি বানিয়ে দিয়ে ছিলেন আজকের এই মুখরোচক খাবার ‘নাচোস’। যা এখন সারা বিশ্ব জুড়ে বিখ্যাত।

চলুন তাহলে জেনে নেই সেই মেক্সিকান নাচোস কে ঘরে বসে দেশীয় ঢংয়ে কীভাবে তৈরি করতে পারবেন।
উপকরণ:

অলিভ অয়েল- ১ টেবিল চামচ

একটা বড় পেঁয়াজ- কুচি কুচি করে কাটা

হাড় ছাড়া মুরগীর মাংস- ১ কাপ (ছোট ছোট টুকরো করে সস দিয়ে রান্না করা)

রসুন কুচি করা- ১ চা চামচ

টেকো সিজনিং- ১ টেবিল চামচ

বেসের জন্য যা লাগছে:

নেচোস- রুটি তিনকোণা করে টুকরো করে নেওয়া

চিস- পরিমাণ মতো

ব্ল্যাক অলিভ- পরিমাণ মতো

টপিংয়ের জন্য যা যা লাগছে:

১ টা বড় টমেটো- স্লাইস করে কাটা

১ টা অ্যাভোকাডো- ছোট ছোট কিউব করে কাটা

ক্রিম- পরিমাণ মতো

হট সস- পরিমাণ মত

– রুটির টুকরোগুলোকে ডুবো তেলে ভেজে নিতে হবে, ক্রিস্পি করে।

– একটি প্লেটে ভেজে রাখা নাচোসগুলোকে সাজাতে হবে। টুকরোগুলোর উপরে স্তরে স্তরে চিস, ব্ল্যাক অলিভ, এবং মাংস দিতে হবে। এভাবে ২ থেকে ৩ টি স্তর করতে হবে।

– সব থেকে উপরের স্তরে প্রয়োজন মত চিস, হট সস দিতে হবে। দিয়ে অন্তত ১৫ মিনিট ওভেনে দিয়ে বেক করে নিতে হবে।

খুব সহজেই তৈরি হয়ে গেলো দেশীয় স্টাইলের এই মেক্সিকান নেচোস। একবার বেক করার পরে খুব বেশি সময় রাখা যাবেনা। বাতাস পেলে নেচোস নরম হয়ে যায় তখন স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।