রাউজানের খবর

0
58

লকডাউন চলাকালীন সময়ে রাউজানে কোন এনজি ও কিস্তির টাকা আদায় বন্ধ থাকবে
শফিউল আলম, রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্বি পাওয়ায় সরকার ঘেষিত লকডাউন নিশ্চিত করে, সাধারন মানুষকে করোনার প্রার্দুভাব থেকে রক্ষায় রাউজানে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্দ্ব রাখার জন্য, রাউজানের বিভিন্ন সড়কে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃদ্বের সাথে রাউজান উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মতবিনিময় সভা অনুষ্টিত হয় । গতকাল ৭ এপ্রিল বুধবার সকালে রাউজান উপজেলা পরিষদ হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগের সভাপতিত্বে রাউজানের বিভিন্ন সড়কে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃদ্বের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্টিত হয় । সভায় করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব থেকে জনগনকে রক্ষার জন্য সরকারের ঘোষিত লকডউন মেনে সড়কে যানবাহন না চালানোর জন্য সিএনজি অটোরিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃন্দ্বের প্রুিত আহবান জানান, রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ । রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ আরো বলেন, লকডাউন মেনে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্দ্ব করে প্রাণঘাতী মহামারি করোনা থেকে নিজেই বাচুঁন, অন্যকে বাচঁতে সহায়তা করুন । করোনার কারনে বেকার হয়ে যাওয়া সিএনজি চালকদের মানবিক সহায়তা প্রদান করা হবে । সভায় সিএনজি অটো রিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃন্দ্ব তাদের বক্তব্যে বলেন, লকডাউন কার্যকর করতে আমার ও আন্তরিক । এনজিও সংস্থা থেকে নেওয়া ঋনের টাকার কিস্তি বন্দ্ব না করায় কিস্তির টাকা পরিশোধের জন্য সিএনজি অটোরিক্সার চালকেরা সড়কে জীবনের ঝুকিঁ নিয়ে সিএনজি অটোরিক্সা নিয়ে বের হচ্ছে । সিএনজি অটো রিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃন্দ্বের বক্তব্য শুনে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ সভায় বলেন, লকডাউন চলাকালীন সময় পর্যন্ত রাউজানে কোন এনজি ও কিস্তির টাকা আদায় করতে পারবেনা । সভায় সিএনজি অটো রিক্সা চালক সমিতির নেতৃবৃন্দ্ব সকলেই লকডাউন মেনে সড়কে জরুরী সংস্থার কাজ ব্যতিত সিএনজি অটোরিক্সা চালাবেনা বলে ঘোষনা দেয় । সভায় আরো বক্তব্য রাখেন রাউজান উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি অতিশ দর্শী চাকমা, রাউজান থানার ওসি অপারেশন শাখাওয়াত হোসেন, রাউজান উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার নিয়াজ মোরশেদ, রাউজান প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মীর আসলাম, রাউজান প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিউল আলম।

রাউজানে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান লকডাউন অমান্য করে কাপড়ের দোকান খুলে কেনাকাটা রাউজানে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান। লকডাউন অমান্য করে রাউজান ফকির হাট বাজারে কাপড়ের দোকান খুলে কেনাকাটা দোকানের মালিক থেকে ৫ হাজার টাকা এক মহিলা ক্রেতা থেকে ৫শত টাকা সহ ৫হাজার ৫শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয় । করেনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব থেকে জনগনকে রক্ষায় সরকার ঘোষিত লকডাউন নিশ্চিত করতে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ রাউজান থানা পুলিশ, আনসার বাহিনীর সদস্যদের সহায়তায় রাউজান ফকির হাট বাজার, মুন্সির ঘাটা এলাকায় গতকাল ৭ এপ্রিল বুধবার দুপুরে অভিযান চালায় । অভিযান চলাকালে রাউজান ফকির হাট বাজারের আলম মার্কেটের মধ্যে কাপড়ের দোকান খুলে কেনা কাটা করায় দোকানের মালিককে ৫ হাজার টাকা এক মহিলা ক্রেতার কাছ থেকে ৫শত টাকা জরিমানা আদায় করে ভ্রাম্যমান আদালত। অভিযান চলাকালে অতিরিক্ত ধান বোঝাই করে জীপ গাড়ী সড়কে চলাচল করার সময়ে ৫টি জীপ আটক করে।

রাউজান পৌরসভাকে পরিস্কার পরিচ্ছন রাখতে রাউজান পৌর এলাকার
রাউজান পৌরসভাকে পরিস্কার পরিচ্ছন রাখার জন্য রাউজান পৌরসভার হাট বাজার সহ বিভিন্ন স্থানে ডাষ্টবিন বসানো হচ্ছে । গতকাল ৭ এপ্রিল বুধবার রাউজান পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের গহিরা চৌমুহনী এলাকায় ময়লা আর্বজনা ফেলানোর জন্য ডাষ্টবিন বসানোর কার্যক্রম উদ্বোধন করেন রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ । ডাষ্টবিন বসানোর কার্যক্রমের উদ্বোধন কালে রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন, রাউজান পৌরসভাকে ময়লা আর্বজনা থেকে মুক্ত রাখতে পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের হাট বাজার, ষ্টেশনে নালা নর্দমা পরিস্কার করার কাজ চলছে । এছাড়া ও পৌর এলাকার হাট বাজার, ষ্টেশন গুলোতে ময়লা আর্বজনা ফেলানোর জন্য বসানো হচ্ছে ডাষ্টবিন । সড়কে ও নালা নর্দমায় না ফেলে হাট বাজার ও ষ্টেশনে বসানো ডাষ্টবিনে ময়লা ফেলানোর জন্য পৌরবাসীর প্রতি অনুরোধ করছি । ডাষ্টবিনে ফেলানো ময়লা ও আর্বজনা প্রতিদিন পৌরসভার পরিচ্ছন কর্মীরা নিয়ে গিয়ে ময়লা আর্বজনা ফেলানোর নিদিষ্ট স্থানে ফেলানো হবে । গহিরা চৌমুহনীতে ডাষ্টবিন বসানোর কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্টানে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর কাজী ইকবাল, বশির উদ্দিন খান,রাউজান উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ, যুবলীগ নেতা সিরাজুল মনির শাওন, সাবের উদ্দিন, তানভীর হাসান চৌধুরী, ছাত্রলীগ নেতা আরমান সিকদার, নাসির উদ্দিন, বেলাল হোসেন সিফাত প্রমুখ ।

মালামাল পুড়ে ছাই
সাংসদ ফজলে করিমের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তা দিলেন মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ
শফিউল আলম, রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ রাউজান পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের গহিরা বিশ^াস বাড়ীতে অগ্নিকান্ড সংগঠিত হয়। গত ৭ এপ্রিল বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে বরটার সময়ে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে । অগ্নিকান্ডে রতন চৌধুরীর বসতঘর মালামাল সহ পুড়ে ছাই হয়ে যায় । অগ্নিকান্ডের সংবাদ পেয়ে রাউজান ফায়ার ষ্টেশন থেকে দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয় । বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত হয়েছে বলে ধারনা করছেন স্থানীয়রা । গতকাল ৭ এপ্রিল বুধবার বিকালে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেন রাউজান পৌরষভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ। রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে রাউজানের সাংসদ ফজলে করিম চৌধুরীর পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন । এসময়ে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর কাজী ইকবাল, রাউজান উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ, যুবলীগ নেতা সিরাজুল মনির শাওন, সাবের উদ্দিন, তানভীর হাসান চৌধুরী, ছাত্রলীগ নেতা আরমান সিকদার, নাসির উদ্দিন, বেলাল হোসেন সিফাত প্রমুখ ।

রাউজানের কদলপুর ও পশ্চিম গুজরা বদু মুন্সি পাড়া থেকে ৬টি গরু চুরি

রাউজান উপজেলা কদলপুর ইউনিয়নের কদলপুর আশকর আলীর বাড়ীর বাসিন্দ্বা গরু ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলামের তিনটি ২লাখ ৫০ হাজার টাকা মুল্যের বলদ গরু গত ১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার কদলপুর সোমবাইজ্যার হাট থেকে রাতে চুরি করে নিয়ে যায় বলে গরু ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেন । গত এক সাপ্তাহ পুর্বে রাউজানের পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের বদুমুন্সি পাড়া এলাকার বাসিন্দ্বা মোঃ বেলালের একটি গাভী,একটি বাছুর, একটি ষাড় সহ তিনটি গরু চুরি করে নিয়ে যায় । রাউজানের পৃথক পৃথক স্থানে ৬টি গরু চুরি হওয়ার পর থেকে গরুর মালিকেরা বিভিন্ন এলাকায় চুরি করে নিয়ে যাওয়া গরুগুলো খোজ করে গরুর কোন সন্দ্বান পায়নি। গরু ব্যবসায়ী কদলপুরের সাইফুল ইসলাম বলেন, তিনটি বলদ গরু চুরি করে নিয়ে যাওয়ার পর বিভিন্ন এলাকায় খোজঁ করে কোন সন্দ্বান না পেয়ে গতকাল ৭ এপ্রিল বুধবার দুপুরে রাউজান থানায় গরু চুরির ঘটনার বিষয়ে লিখিতভাবে অভিযোগ করেছি ।