শীত কমতে পারে রবিবার

0
90

কনকনে ঠান্ডায় কাঁপছে দেশ। বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। গত দুইদিন ধরে দিনভর দেশের বেশিরভাগ এলাকায় ঘন কুয়াশার কারণে সূর্য উঁকি দিতে পারেনি।

পৌষের শুরুতেই নেমে এসেছে মাঘের এমন শীত। এই ঠান্ডা রোববার একটু কমতে পারে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, চুয়াডাঙ্গার পাশাপাশি রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী ও যশোর অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৌসুমের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। শনিবার পর্যন্ত এটি আরও বিস্তৃত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিন পর্যন্ত শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে। রোববার থেকে দিন ও রাতে তাপমাত্রা কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে।

আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, আগামী দু’দিন শীতের প্রকোপ আরও বাড়তে পারে। শৈত্যপ্রবাহের বিস্তার আরও কয়েকটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে পারে। উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে শনিবার পর্যন্ত। সারাদেশে রাতে তাপমাত্রা আরও একটু কমতে পারে।

প্রতি বছর রাজধানীতে সাধারণত শীতের আমেজ দেখা যায় অন্য এলাকার চেয়ে অনেকটা দেরিতে। ঢাকায় মঙ্গলবার পর্যন্ত শীতের তীব্রতা ছিল না। তবে বুধবার থেকে এখানে তাপমাত্রা কমতে থাকে। তাপমাত্রা কমার বিপরীতে শুরু হয় শীতল হাওয়া। সূর্য মুখ লুকায় কুয়াশার আড়ালে। সূর্যের দেখা মেলেনি শুক্রবার সকালেও; তাপমাত্রা ছিল ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়, শীতবস্ত্রের বেচাকেনা অনেক বেড়েছে। বিশেষ করে ফুটপাতে শীতের জামা, মোজা, টুপিসহ নানা সামগ্রী কিনতে ভিড় করছিলেন নিম্ন আয়ের মানুষ। অভিজাত বিপণিবিতানেও শীতবস্ত্র বিক্রির ধুম পড়েছে।

তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা কম থাকলে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে বলে ধরা হয়। থার্মোমিটারের পারদ ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে হলে তাকে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বলে। আর পারদ ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেলে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ ধরা হয়।

বৃহস্পতিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসে রাজশাহী, ঈশ্বরদী, নওগাঁর বদলগাছী, রাজারহাট ও যশোরে।