শেষ মুহূর্তে চন্দ্রযান-২ এর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ইসরোর

0
13

ভালোভাবেই সবকিছু এগোচ্ছিল। নির্ধারিত সময় মেনেই চন্দ্রপৃষ্ঠের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল ভারতের ‘চন্দ্রযান-২’। তবে চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২ দশমিক ১ কিলোমিটার ওপরে থাকতেই ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (ইসরো) সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে ল্যান্ডার বিক্রমের।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৪৭ দিনের যাত্রা শেষে শনিবার রাত ১টা ৩৮ মিনিটে শুরু হয় ল্যান্ডার বিক্রমের চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ প্রক্রিয়া। প্রতি সেকেন্ডে ১ দশমিক ৮ কিলোমিটার থেকে যানের গতিবেগ শূন্যে নামিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এ লক্ষ্যে শুরু করা হয় হার্ড ব্রেকিং। হার্ড ব্রেকিং পর্বটি নিখুঁত হলেও পরের ধাপে ফাইন ব্রেকিং শুরু হতেই বিপর্যয় দেখা দেয়। আর এরপরই চন্দ্রযান-২ এর সঙ্গে যোগাযোগ হারায় ইসরো।

পরে ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবন সাংবাদিকদের জানান, চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ২ দশমিক ১ কিলোমিটার ওপরে থাকা অবধি ভালোভাবেই চলছিল ল্যান্ডার বিক্রমের অবতরণ প্রক্রিয়া। কিন্তু এরপরই বিক্রমের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

গত ২২ জুলাই অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে রকেট বাহুবলীতে চেপে চাঁদের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু হয় চন্দ্রযান-২ এর। তার এক সপ্তাহ আগেই চন্দ্রযান-২ এর অভিযান শুরুর কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তা স্থগিত হয়। এরপর ২২ জুলাই সফলভাবেই শুরু হয় ভারতের চন্দ্র অভিযান। তবে শেষ পর্যন্ত হলো না, চন্দ্রপৃষ্ঠে নামার কিছু আগে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল চন্দ্রযান-২।

ইসরোর দফতরে বসেই চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমের চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শেষ মুহূর্তে চন্দ্রযান-২ এর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হযে যাওয়ার পর ইসরোর প্রধান কে শিবন দ্রুত প্রধানমন্ত্রী মোদিকে বিষয়টি জানান। পুরো পরিস্থিতি জানার পর চলে যাওয়ার আগে ইসরো প্রধানের পিঠে হাত রেখে মোদি তাকেসহ ইসরোর বিজ্ঞানীদের উৎসাহ দেন।

বিজ্ঞানীদের উদ্দেশ্যে মোদি বলেন, ‘আশা ছাড়বেন না। সাহসী হোন।জীবনে উত্থান, পতন থাকবেই। আপনারা যা করছেনে, কম কৃতিত্বের নয়। আপনারা দেশ, বিজ্ঞান ও মানুষের জন্য অনেক কাজ করেছেন। আমি আপনাদের সঙ্গে আছি। আপনাদের জন্য রইল শুভ কামনা।’