সাবেক মেয়র শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কবরে পুস্পস্তবক অপর্ন

0
290

রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি রাউজান পৌরসভার সাবেক মেয়র শফিকুল ইসলাম চৌধুরী বেবী গত ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর মৃত্যুবরন করেন । রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর মৃত্যুর সংবাদ শুনে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা ও রাউজানের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসে রাউজান পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের সুলতানপুর ছিটিয়া পাড়া এলাকায় রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়ীতে । হাজার হাজার মানুষ কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন । ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর বিকালে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর মরদেহ রাউজান সরকারী বিশ^বিদ্যালয় কলেজ মাঠে জানাজার নামাজের জন্য নিয়ে আসা হয়। জানাজার নামাজে লাখো শোকার্ত জনতার উপস্থিতে স্মরণ কালের জানাজার নামাজ অনুষ্টিত হয় । রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরী ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৭৩ সালে তৎকালীন রাউজানের সাংসদ দৈনিক আজাদীর সমম্পাদক মরহুম অধ্যাপক মোঃ খালেদের হাত ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতিতে যোগ দেয় । রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরী তার পৈতৃক বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি বিক্রয় করে সম্পত্তি ব্ক্রিয় করা টাকা রাউজানে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ব্যয় করেন। ১৯৮৬ সালে রাউজানের তার মুন্সির ঘাটায় ব্যবসা প্রতিষ্টান সুর্বর্না প্রির্ন্টাসআগুন লাগিয়ে দিয়ে জালিয়ে দেয় মানবতা বিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদন্ড প্রদান কারী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী লালিত সন্ত্রাসীরা । হাশরা, মামলা জুলুমের শিকার হয়ে ও রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরী তার আর্দশ থেকে বিন্দুমাত্র বিচ্যুত হয়নি। ১৯৯৮ সালে রাউজান পৌরসভা গঠিত হলে তাকে রাউজান পৌরসভার প্রশাসক হিসাবে নিয়োগ দেয় তৎকালীন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়। পরবর্তী দুই দপে রাউজান পৌরবাসীর ভোটে রাউজান পৌরসভার মেয়র নিবাচিত হয় মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরী । সৎ ও নিষ্টার সাথে রাউজান পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরী । মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর অন্যায় অবিচার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্বে সব সময় প্রতিবাদ করতেন। রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরী ১৯৭৩ সালে জাতীর জনক বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত থেকে কৃষিতে অবতদানের জন্য জাতীয় পদক লাভ করে । রাউজানের ুিবভিন্ন এলাকার কোন নিরিহ মানুষ কোন প্রভাব শালী ব্যক্তি বা কোন সন্ত্রাসীদের হাতে নির্যাতন ও জুলুমের শিকার হয়ে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের অমৃত্যু সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কাছে আসলে নির্য়তিত লোকজন উপর নির্যাতনকারীদের বিরুদ্বে প্রতিবাদ করতো এলাকার সাধারন মানুষ এ কারনে মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর অপনজন হয়ে উঠে । মৃত্যুর পর রাউজানের লাখো লাখো মানুষ তাদের প্রিয় নেতা মরহুম শফিকুল ইসলঅম চৌধুরীর জানাজায় উপস্থিত হয়ে তাদেও প্রিয় নেতা মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীেেক শেষ বিদায় দেয় অশ্রুসিক্ত নয়নে । রাউজানের সাধারন মানুষ মরহম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কবরস্থানে গিয়ে তার কবর জেয়ারত করে এখনো অশ্রুসিক্ত নয়নে কাদঁতে দেখা যায় র্ গত১৬ জুলাই রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের আমৃত্যু সভাপতি রাউজান পৌরসভার সাবেক মেয়র শফিকুল ইসলাম চৌধুরীরকবর জোয়ারত করে তার কবওে পুস্পস্তবক অপর্ন করার সময়ে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনোয়ারুল ইসলামের সাথে আরো উপস্থিত, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ্বদেও মধ্যে মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর জন্য অনেকের চোখ বেয়ে পানি পড়তে দেখা যায় ।