সোনার বাংলা বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে শেখ হাসিনা

0
3

৪৩ তম বিজয় দিবসের আলোচনা সভায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ জননেতা মোছলেম উদ্দিন আহমদ বলেন, বাঙালি জাতির হাজার বছরের লালিত স্বাধীনতার স্বপ্নকেবাস্তবে রূপ দান করতে বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে গোটা জাতি ঐক্যবদ্ধতার মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে সশস্ত্র পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে দেশকে শত্র“ মুক্ত করেছিল। কিন্তু বিজয় লাভের স্বপ্ন সময়ের মধ্যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে দেওয়ার বার বার অপচেষ্টা হয়েছিল। স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনীতিতে পুর্নবাসিত ও পুরস্কৃত করেছে বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশিলব মেজর জিয়া। বল্গাহীন মিথ্যাচার, জঙ্গীদের পৃষ্ঠপোষকতা ও ইতিহাস বিবৃতির মধ্যে দিয়ে দেশকে পাকিস্তানি ভাব ধারায় ফিরিয়ে নেয়ার জন্য এখানো বিরামহীন ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে বেগম খালেদা জিয়া ও তার গুণধর পুত্র তারেক রহমান। তিনি বলেন,. সব ষড়যন্ত্র, বাধা, প্রাণভয় ও বন্ধুর পথ মাড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে। মোছলেম উদ্দিন আহমদ স্বাধীনতা বিরোধী ও সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেন. যতদিন জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের শাসনভারের নেতৃত্বে থাকবেন ততদিন বাংলাদেশ সঠিক পথে থাকবে। দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি সঠিক পথ ধরেই এগুবে। এদেশের সংস্কৃতি, সভ্যতা ও সার্বভৌমত্ব একমাত্র জননেত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের হাতেই নিরাপদ। তিনি বিজয় দিবসের চেতনায় সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

আজ মহান বিজয় দিবসের ৪৩ তম দিবস পালন উপলক্ষে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের এক আলোচনা সভা সংগঠনের সভাপতি জননেতা মোছলেম উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে সংগঠনের আন্দরকিল্লাস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. আবদুর রশিদের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, সহ সভাপতি ও সাংসদ হাসিনা মান্নান, মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, মাহবুবুল আলম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. জহির উদ্দিন, প্রদীপ দাশ,সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য নুরুল আবছার চৌধুরী, বোরহান উদ্দিন এমরান, আলহাজ্ব আবু জাফর, এড. মুজিবুল হক, এড. কামরুন নাহার, শাহ নেওয়াজ হায়দার শাহীন, বিজয় কুমার বড়–য়া, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য সৈয়দুল মোস্তফা চৌধুরী রাজু, চেয়ারম্যান নাসির আহমদ, চেয়ারম্যান মো: মুছা, আয়ুব আলী, মোস্তাক আহমদ আঙ্গুর, এ.কে.আজাদ আবুল বশর ভূইয়া, মাষ্টার সিরাজুল ইসলাম, জেলা যুবলীগ সভাপতি আ ম ম টিপু সুলতান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথি চৌধুরী, জেলা কৃষকলীগ সভাপতি আলহাজ্ব আবদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান চৌধুরী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহ্বায়ক মো: জোবায়ের, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য জাহেদুর রহমান সোহেল, সাইফুল ইসলাম, এড. শওকত, এড. শফিউল আলম সিদ্দিকী, সাখাওয়াত হোসেন শিবলী, চৌধুরী গালিব, এম.এ রহিম, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী খালেদা আক্তার চৌধুরী, জান্নাতুল ফেরদৌস, এডভোকেট পাপড়ী সুলতানা, সুলতানা আক্তার নিলু, এড. সুচিত্রা লালা মুন্নি, এড. সাইফুন্নাহার খালেদ, জাহানারা বেগম, এড. নিলুফার জাহান, শাহিন আক্তার সানা, জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সভাপতি ইঞ্জি: মোর্শেদ, জেলা ছাত্রলীগ নেতা জামিল উদ্দিন, সিহাবুল হক সিকদার, এস. এম বোরহান, রাশেদুল আরেফিন জিসান, মিজানুর রহমান, শেখ মো: মহিউদ্দিন, মঞ্জুরুল আলম, মো: মহিউদ্দিন প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।