হিমালয় কন্যা পঞ্চগড় ১

0
114

সকাল ছয়টা বেজে পঁয়ত্রিশ মিনিট। দেশের সর্বউত্তরের একেবারে শেষ সীমা বাংলাবান্ধার স্থল বন্দরের গেটের সামনেই দাঁড়িয়ে আছি। কনকনে ঠাণ্ডা। একেবারে হাড় কাঁপিয়ে দিচ্ছে। কুয়াশার চাদরে ঢেকে আছে প্রকৃতি। সামনে বেশিদূর দেখা যাচ্ছে না কুয়াশার কারণে। টানা প্রায় ১৩ ঘণ্টা যাত্রা করে এসে শরীর সায় দিচ্ছে না, কিন্তু প্রকৃতি যেন নিশাচর সমুদ্রের ন্যায় আরো কাছে টানছে।

দূরে দেখলাম, ভারতের সীমানার পাশ দিয়েই একটি আঁকাবাঁকা মেঠোপথ। কেউ সাইকেলে কিংবা কেউ হেঁটে হেঁটেই এই শীতের সকালে কাজে যাচ্ছে।
এসবের ছবি তুলে ঘুরে তাকিয়ে দেখি আমার গ্রুপের সবাই বাংলাবান্ধার তথা বাংলাদেশের শেষ সীমানা হিসেবে স্থাপিত এক বিশাল জিরো বা ‘শূন্য’র সামনে দাঁড়িয়ে। ঠিক তার ডান পাশেই ভারতের সীমানা গেট দেখা যাচ্ছে। শেষমেশ আমরা বাংলাদেশের সর্ব উত্তরের সীমানার নো ম্যান্স ল্যান্ডে দাঁড়িয়ে।

হ্যাঁ, ঘুরে এলাম হিমালয়কন্যা খ্যাত দেশের সর্বউত্তরের জেলা পঞ্চগড় থেকে। ঢাকা থেকে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৪ই ডিসেম্বর বিকাল সাড়ে পাঁচটায় এবং শেষ হয়েছিল ১৫ই ডিসেম্বর সকাল প্রায় সাড়ে ছয়টায়। সেদিন সারাদিন পঞ্চগড়ের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান দেখে রাতে থাকার জন্য চলে গিয়েছিলাম ঠাকুরগাঁওয়ের আরডিআরএস গেস্ট হাউজে। সেদিন সন্ধ্যাটা ঠাকুরগাঁও জেলা শহরটা ঘুরে দেখেছিলাম। রাতে থেকে সকালে উঠেই চলে গিয়েছিলাম দিনাজপুরে। কম সময়ের মধ্যে যতটা ঘুরে দেখা যায় দেখে আবার ঠাকুরগাঁও ফিরে বাস স্ট্যান্ড থেকে বাসে করে ঢাকায়। এই পুরো ভ্রমণ বৃত্তান্তের দুই পর্বের প্রথম পর্বে আজকে থাকছে পঞ্চগড়ের ভ্রমণ।
পরিকল্পনা

নভেম্বর মাসের শেষের দিকের একদিনের কথা। নিয়মিত ৩/৪ জনের আড্ডা পরিণত হলো ৯/১০ জনে। কথায় কথায় ঘুরতে যাওয়ার কথা উঠলো। যেহেতু কমবেশি সকলেই বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত, তাই ডিসেম্বরে বিজয় দিবসের আগের দুই দিন মিলিয়ে তিন দিন আর দুই রাতের ট্যুরের পরিকল্পনা করে ফেললাম। কিন্তু যাব কোথায়? সবাই মিলে এই দায়ভার আমার কাঁধেই চাপিয়ে দিল। ২/৩ দিন পর সবাইকে জানালাম, দেশের উত্তরের শেষ সীমানা বাংলাবান্ধা যাওয়া যায়। বলাবাহুল্য, পঞ্চগড়ের কাজী এন্ড কাজী টি স্টেটের কয়েকটা ছবি দেখেছিলাম ফেসবুকের কয়েকটি গ্রুপে। মূলত টি স্টেটের সৌন্দর্য এবং এই সময়টায় নাকি পঞ্চগড় থেকে কাঞ্চনজংঘা দেখা যায়। তাই এই জেলাটা পছন্দের তালিকায় ছিল। যেই ভাবনা সেই কাজ, আমরা যাচ্ছি হিমালয়কন্যা খ্যাত পঞ্চগড়।
যদিও প্রথমে ট্যুরে যাওয়ার জন্যে ১০ জনের সম্মতি ছিল ধীরে ধীরে তা নেমে ছয়জনে পরিণত হলো। ইচ্ছে ছিল বাংলাদেশের সবচাইতে দীর্ঘতম ট্রেন যাত্রা উপভোগ করতে করতে যাবো কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের ৮ দিন আগেও ট্রেনের কোনো টিকেটই পাইনি। যেহেতু ১৬ই ডিসেম্বরের আগে শুক্র আর শনিবার ছিল সরকারি ছুটি, তাই কর্মজীবী সবাই-ই নিজ নিজ পরিবারের কাছে ফিরছিল। টিকেটের খোঁজ নিতে গিয়ে জানলাম, শুধুমাত্র হানিফ আর শ্যামলী পরিবহনের একটা করে বাস একেবারে বাংলাবান্ধা পর্যন্ত যায়। আমাদের পরিকল্পনা ছিল বাংলাবান্ধা থেকে ঘুরতে ঘুরতে পঞ্চগড় আসবো এবং সেখান থেকে বিকেলের মধ্যে ঠাকুরগাঁও গেস্ট হাউজে।
যাত্রারম্ভ

১৪ই ডিসেম্বর বিকাল সাড়ে চারটার মধ্যে সবাই আড্ডার স্থলে এসে মিলিত হয়। তারপর শ্যামলীতে আমাদের বাসের কাউন্টারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করি। মূল বাস ছাড়তে দেরি হয় আধা ঘন্টার মতো। এত দূরে আর এতটা সময়ের ব্যাপার। তাই আমরা ভেবেছিলাম, অন্তত বাসের সিটগুলো আরামদায়ক হবে। কিন্তু আমাদের আশায় গুড়েবালি। যা-ই হোক, পাশাপাশি সিট হওয়াতে আলাপ করতে করতেই আমরা শেরপুরে ফুড ভিলেজে থামি সাময়িক বিরতির জন্যে। বিরতি শেষে আমাদের বাসের ড্রাইভার সোহেল ভাই যেন প্রাণ ফিরে পেলেন। এতটা রাস্তা খুব ধীরেসুস্থে চালিয়ে আসলেও ফুড ভিলেজ থেকে বের হয়েই তিনি সর্বোচ্চ গতিতে বাস চালাতে শুরু করলেন। ঘুমিয়ে পড়েছিলাম কখন বলতে পারবো না। তবে চোখ খুলেই প্রথমে জানালার পর্দা সরিয়ে দেখি, রাস্তা থেকে খানিকটা দূরেই কমলা বর্ণের লাইট জ্বলে আছে। বুঝতে পারলাম, পঞ্চগড় পেরিয়ে আমরা এখন তেতুলিয়ার কাছাকাছি।
তেঁতুলিয়া বাস স্ট্যান্ডে বাস থামে পাঁচটারও পরে। আমাদের বাসের ড্রাইভার সোহেল ভাই তেঁতুলিয়ার নামকরা খাবারের হোটেল ‘নূরজাহান’ এ আপ্যায়ন করান। বলা বাহুল্য, আমাদের টিকেটে বিশেষ কিছু লেখা ছিল, যার জন্য সাধারণ যাত্রীর চাইতে একটু বেশিই সমাদর পেয়েছি আমরা। সেখান থেকে ড্রাইভার বদলী হয়ে দেলোয়ার ভাই আমাদের বাংলাবান্ধা অবধি নিয়ে যান এবং তিনি নিজে আমাকে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন কীভাবে স্বল্প সময়ে আর স্বল্প খরচে পঞ্চগড় ঘোরা যাবে।
পঞ্চগড় জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য

পঞ্চগড় জেলায় মানব বসতি স্থাপনের সঠিক দিনকালের হিসাব না থাকলেও; ইতিহাস ঘেঁটে বেশ কয়েকটি বিষয় জানা যায়। প্রাচীনকালের ‘পুন্ড্র’ নগরের একটা নগরী ছিল এই পঞ্চগড়, যাকে খুব সম্ভবত ‘পঞ্চনগরী’ ডাকা হত। তবে সবচাইতে বহুল প্রচলিত মত হচ্ছে, পাঁচটি গড়ের অবস্থানের কারণেই একে পঞ্চগড় বলে ডাকা হয়। গড়গুলো হচ্ছে ভিতরগড়, মীরগড়, হোসেনগড়, রাজনগড় এবং দেবেনগড়।

বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন জনপদ এই পঞ্চগড়। ইতিহাস বলে, এখনকার মতো অতীতেও এই এলাকা সীমান্তবর্তী এলাকা ছিল। পুন্ড্র সাম্রাজ্যই নয়, বরং গুপ্ত, পাল, সেন এবং মুসলিম শাসকগণের আয়ত্তাধীন ছিল এই নগরী। আরো জানা যায়, ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন খলজি তিব্বত আক্রমণের সময় এই জনপদ পেরিয়েই গিয়েছিলেন।
১৯৪৭ এ দেশবিভাগের পর দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও মহকুমার অন্তর্ভুক্ত ছিল এই পঞ্চগড় থানা। ১৯৮০ সালের পহেলা জানুয়ারি ঠাকুরগাঁও মহকুমাকে পঞ্চগড় মহকুমা নামে অভিহিত করা হয়। পরবর্তীতে, ১৯৮৪ সালের পহেলা ফেব্রুয়ারি পঞ্চগড় মহকুমার পাঁচটি থানা তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড় সদর, অটোয়ারী, বোদা এবং দেবীগঞ্জ নিয়ে তিনদিকে ভারতের সীমানা নিয়ে পঞ্চগড় জেলার সৃষ্টি হয়।
দর্শনীয় স্থান ভ্রমণ

আমরা যখন বাংলাবান্ধা পৌঁছাই তখন সকাল সাতটার বেশি বাজে। আমরা ছয়জন ছাড়া ঐ মুহুর্তে ঐ এলাকায় কেউই ছিল না। এমনকি কোনো বর্ডার গার্ডও না। বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের সামনে বাংলাদেশের সীমানা শেষের ফলক এবং সেখান থেকেই কয়েক গজ সামনে এগিয়ে বাংলাবান্ধার জিরো পয়েন্ট। আমরা যখন প্রায় কাছাকাছি চলে এসেছি তখন পেছন থেকে বাইকে করে দুজন গার্ডকে আসতে দেখলাম। পরিচয় জেনে নিয়ে আন্তরিকভাবেই জানালেন যে, তাদের উধ্বর্তন কর্মকর্তারা এখনো আসেনি। তারা আসার পর আর কোনো সমস্যা নেই এখানে থাকতে, তবে এখন থাকা যাবে না। অনেকবার বলেও লাভ হলো না, কেননা তিনি শুধুমাত্র তার আদেশ পালন করছেন।
কী আর করা, দূর থেকে জুম লেন্স দিয়ে জিরো এবং ভারতের সীমানা গেটের কয়েকটা ছবি তুলে বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের সামনে চলে এলাম আবার বাসে ওঠার জন্যে। তবে আপনাদের সুবিধার্থে জানিয়ে রাখি, আমরা খুব বেশি সকালেই বাংলাবান্ধা চলে গিয়েছিলাম, যার কারণে আমাদের মিস হয়েছে, তবে আটটা-নয়টার সময় থেকে আর কোনো ধরনের ঝামেলা হয় না। আর যদি বিকাল দিকে, বিশেষ করে আসরের নামাজের পর পর যেতে পারেন, তাহলে দুই দেশের বর্ডার গার্ডদেরই প্যারেড করা অবস্থায় দেখতে পাবেন এবং সেটা উন্মুক্ত সকলের জন্যে। আর সাথে কাঞ্চনজঙ্ঘার দর্শনও পেতে পারেন।
কাজী এন্ড কাজী টি এস্টেট: দেশের একমাত্র সমতল ভূমির অর্গানিক চা-বাগান

জিরো পয়েন্টের সাথে সেলফি বা ছবি তুলতে না পারার দুঃখ মনে পুষে নিয়ে বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের সামনের এক চায়ের দোকানে লাল চা পান করলাম। চা শেষে দিনের প্রথম বাসে করে আমরা তিন্নু বাজার চলে গেলাম। সেখানের এক খাবারের হোটেলে সকালের নাস্তা সেরে নিয়ে ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা ঠিক করে চলে গেলাম রওশনপুর। বলাবাহুল্য, কাজী এন্ড কাজী টি এস্টেটটা রওশনপুরের ভেতরে। আবার একে স্থানীয়রা আনন্দধারা নামেও চেনে। সদর থেকে গ্রামের ভেতর দিয়ে বেশ কয়েক কিলোমিটার আঁকাবাঁকা পথ পেরিয়ে যেতে হয় এই জায়গায়। এখানে যেতে চাইলে তিন্নু বাজার কিংবা যেখান থেকেই যান না কেন, রিজার্ভ অটো নেয়াটা বুদ্ধিমানের কাজ। নাহয় কয়েক কিলোমিটার হেঁটেও কোনো কিছু পাবেন না। আর অনেক বেশি আঁকাবাঁকা রাস্তা হওয়াতে একবারে মনে রাখাটাও অনেক কষ্টসাধ্য।
আগেই বলেছি, আমরা এমন একটা সময় বেছে নিয়েছিলাম, যে সময়টায় লোকজন যেমন বাড়ি ফিরছে, তার সাথে সাথে আমাদের মতোও আরো অনেক দল বিভিন্ন জেলা দর্শনে বের হয়েছে। টি এস্টেটের গেটের সামনে নেমেই দেখি দুই দল ভেতরে ঢোকার জন্যে দাঁড়িয়ে আছে। এখানে ঢুকতে চাইলে রেফারেন্স কিংবা অনুমতি লাগে। ঢাকা থেকে অনুমতি নিয়ে যেতে হয়, নাহয় ভালো রেফারেন্স লাগে, কেননা এটা টি এস্টেটের কার্যালয় এবং মালিকের ব্যক্তিগত বাংলো। তাই দারোয়ানকে টাকা দিয়েও আপনি চাইলেই ভেতরে ঢুকতে পারবেন না। তবে যদি আন্তরিকভাবে বুঝিয়ে বলেন, তাহলে ভিড় না থাকলে এমনিই ঢুকতে দেয়। যেহেতু ট্যুরের সকল স্পটের দায়িত্ব ছিল আমার কাঁধে, তাই দারোয়ান ভাইকে ডেকে নিজের পরিচয় দিলাম। তিনি জানালেন, ভেতরে অনেক লোক আছে। সবাই ছুটিতে ঘুরতে আসাতে ভিড় হয়ে গেছে। দশটার দিকে যেতে বললেন। ততক্ষণের জন্য চা বাগান ঘুরে দেখার জন্যে বললেন।
চা বাগানে গিয়ে ছবি তুলে দশটার খানিকটা পর এসে দেখি তখন আরো বেশি লোকজন সেখানে। আর প্রত্যেকেই রেফারেন্স নিয়ে এসেও দাঁড়িয়ে আছে, আর আমরা তো কোনো রেফারেন্সও আনিনি। তাই শঙ্কিত ছিলাম জিরোর মতো এটাও হয়তো বাদ দিতে হবে। কিন্তু দারোয়ান ভাই আমাকে পাশে ডেকে নিয়ে তার স্যারের নাম্বার দিলেন। ফোন দিয়ে নিজেদের পরিচয় দিলাম এবং দারোয়ান ভাইয়ের হাতে একটা ভিজিটিং কার্ড ধরিয়ে দিলাম তাকে দেখানোর জন্যে। একটু পরই দারোয়ান ভাই এসে ভেতরে নিয়ে গেলেন আমাদের।

ভেতরে ঢুকে যা দেখেছি তাতে এক লাইনে বোঝানোর জন্যে আপাতত একটি লাইনই মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে, প্রকৃতি আর আধুনিকতা যখন মিশে যায়, তখন এক আদি আর অকৃত্রিম নৈসর্গিক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। সত্যিকার অর্থেই আপনি ভেতরে ঢুকলেই বুঝতে পারবেন কেন এই কথাটা বলেছি। সৌখিনতায় মানুষ কী কী করতে পারে তার এক নিদর্শন হচ্ছে কাজী এন্ড কাজী টি এস্টেটের এই ব্যক্তিগত বাংলো এবং অফিস কার্যালয়ের পুরো জায়গাটি।
দৃষ্টিনন্দন গেট দিয়ে ভেতরে ঢুকেই হাতের ডান দিকে আপনার জন্যে অপেক্ষা করছে লতাপাতার ছায়ায় অন্ধকারাচ্ছন্ন এক প্রবেশপথ। চারিদিকে সবুজের সমারোহে হারিয়ে যখন আপনি সে পথের শেষ প্রান্তে আসবেন, তখন আধুনিক ধাঁচে গড়া কিছু দৃষ্টিনন্দন কটেজ আপনার দৃষ্টি কাড়বে। ভেতরে একটা লেকও আছে, তার পাশেই কয়েকটা কটেজ এবং লেকের ঠিক মাঝেই ব্রিজ পেরিয়ে যাওয়া যায় দৃষ্টিনন্দন বিশ্রামাগারে।
ব্রিজ থেকে শুরু করে হাঁটার রাস্তা, লেক, বিশ্রামাগার, বাংলো, কাঠের কটেজ সবকিছুতেই আভিজাত্য আর নান্দনিকতার স্পষ্ট ছাপ পাবেন। খোলা মাঠে কিছু ঘোড়াকে দেখবেন ঘাস খেতে। ভুলেও সামনে যাবেন না, কেননা এই ঘোড়াগুলোর কামড় দেয়ার বাজে অভ্যাস আছে। আর বের হওয়ার সময় মীনা বাজারে চলে যাবেন। সেখানে আপনি অর্গানিক চা-পাতা এবং অর্গানিক মিষ্টি পাবেন।
এই সৌন্দর্যের ভেতর হারিয়ে গিয়ে কতটা সময় যে পার হয়ে গিয়েছে বলতেই পারবো না। সময়জ্ঞান হিসেবে রাখার কথা, কেননা আমাদের এখনো পুরো পঞ্চগড় ঘুড়ে দেখা বাকি। তাই দেরি না করে দারোয়ান ভাইকে অশেষ ধন্যবাদ জানিয়ে বের হয়ে এলাম। কিন্তু আমরা বোকার মতো যে কাজটা করেছিলাম সেটা হচ্ছে, আমাদের অটো আমরা ছেড়ে দিয়েছিলাম। তাই আবার সেই দারোয়ান ভাইয়ের সহায়তায়ই একটা অটো পেয়ে গেলাম। সেটাতে করে তিন্নু বাজার চলে এলাম।