নারকেল দিয়ে চিড়িং মাছ

0
111

চিড়িং মাছ দুই ধরনের একটা সাদা এবং অন্যটা লাল। লালটা বেশ বড় বড় হয়। পেলেই কিনবো। যাই হোক, আমি নিজেই রান্না করতে লাগে গেলাম। মাছ গুলো কেটে দিয়েছেন আমাদের সুফিয়া, রান্নাঘর সহকারী।

উপকরনঃ
উপকরনঃ (সাধারন মাছ রান্না)
– চিড়িং মাছঃ হাফ কেজি (শুধু সুফিয়া, আমার ও ছেলের জন্য রান্না হয়েছিল)
– পেঁয়াজ কুঁচিঃ মাঝারি দুই তিনটে
– মরিচ গুড়াঃ হাফ চা চামচ (ঝাল বুঝে)
– হলুদ গুড়াঃ হাফ চা চামচ
– জিরা গুড়াঃ এক চিমটির সামান্য বেশী
– রসুন বাটাঃ ১ টেবিল চামচ
– টমেটো কুচিঃ দুইটা
– কাঁচা মরিচঃ ৩/৪ টা (ঝাল বুঝে)
– লবনঃ পরিমান মত
– কাঁচা ধনিয়া পাতাঃ কুচি পরিমান মত
– তেলঃ সয়াবিন তেল হাফ কাপের চার ভাগের একভাগ (আমি কম তেলেই রান্না করি)
– পানিঃ পরিমান মত

প্রনালীঃ

আরো বড় সাইজের চেওয়া হলে ভাল হত।


কাটা এবং ধোঁয়ার পর। দেখে ভয় পেলে চলবে না! হা হা হা…


কড়াইতে চেল গরম করে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুচি, মরিচ ভাঁজার পর রসুন দিয়ে আবারো ভেঁজে এক কাপ পানি দিয়ে তাতে বাকী সব মশলা দিয়ে কষিয়ে এই ঝোল রান্না করা হয়েছে।


এবার টমেটো কুচি দিয়ে দিলাম।


প্রয়োজনে আরো সামান্য পানি দেয়া যেতে পারে।


তেল উঠে গেলে এবার চেওয়া মাছ দিয়ে দিন।


মাছ থেকে পানি বের হয়। তবুও আরো সামান্য পানি দেয়া যেতে পারে।


এবার ঢাকনা দিয়ে মিনিট বিশেক মাঝারি আঁচে রেখে দিন।


মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিতে হবে। তবে সাবধানে, এই মাছ নরম এবং ভেঙ্গে যায়।


ঝোল কমে গেলে ফাইন্যাল লবন দেখুন। লাগলে দিন, না লাগলে ওকে! ধনিয়া পাতার কুচি ছিটিয়ে দিন।


ব্যস হয়ে গেল চিড়িং মাছ রান্না। স্বাদ কেমন আপনাদের জানতে ইচ্ছা হচ্ছে? বিশ্বাস করুন, শুধু বলবো, ওয়াও! হা হা হা… আমি এমনিতেই মাছ ভাল রান্না করি, আর সেই মাছ যদি হয় সুস্বাদু তা হলে তো কথাই নেই। চরম, চরম চরম!

একবার খেয়ে দেখতে পারেন। দুনিয়া দুই দিনের, সব কিছু না খেয়ে দেখলে আর কি সেই সুযোগ পাবেন?

চিড়িং মাছের মালাইকারি

চিড়িং মাছ আধা কেজি (ধুয়ে বেছে নেওয়ার পর)

সবুজ কাঁচা মরিচ ৫ টি

হলুদ গুঁড়ো সিকি চা-চামচ

মরিচ গুঁড়ো ১ চা-চামচ

লবণ আধা চা-চামচ অথবা স্বাদ অনুযায়ী

চিনি ১ চা-চামচ

নারকেলের দুধ ২ কাপ

জিরা বাটা ১ চা-চামচ

আদা বাটা ১ টেবিল চামচ

ধনেগুঁড়ো সিকি চা-চামচ

পেঁয়াজ কুচি কাপ

সয়াবিন তেল কাপ,

৩ ৪ টি এলাচ

২ ৩ পিচ দারুচিনি

প্রণালি:

ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে সামান্য লবণ ও হলুদ মাখিয়ে মাছগুলো ভেজে তেল ছেঁকে উঠিয়ে রাখুন। মাছ ভাজা একই তেলে পেঁয়াজ কুচি বাদামি করে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো, লবণ, জিরা বাটা, আদা বাটা, ধনেগুঁড়ো ও ১ কাপ নারকেলের দুধ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। তারপর মাছ গুলো ডেলে দিয়ে কিছুক্ষণ নারুন এবং বাকি ১ কাপ নারকেলের দুধ দিয়ে দিন। এখন চিনি, এলাচ,দারুচিনি, সবুজ কাঁচা মরিচ দিয়ে চুলার আঁচ সামান্য বাড়িয়ে নেড়ে ঢেকে দিন। পাঁচ মিনিট পর ঢাকনা খুলে নাড়ুন। পাঁচ মিনিট পর ঢাকনা খুলে যখন মাছের গায়ে ঝোল মাখা মাখা হবে তখন নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।