প্রকৃত মানুষ হয়ে উঠার জন্য চাই মাতৃভাষার বুনিয়াদী চর্চা

0
25

জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন সন্দীপনা কেন্দ্রীয় সংসদের সঙ্গীত, নাটক, আবৃত্তি, চারুকলা ও লোককলা বিভাগের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ৪ দিন ব্যাপী কর্মসূচীর সমাপনী অনুষ্ঠান একুশে ফেব্রুয়ালী দিনভর পালিত হয়েছে সংগঠনের দোস্তবিল্ডিংস্থ মিলনায়তনে। দিবসের কর্মসূচিতে ছিল- একুশের প্রথম প্রহরে শহীদ বেদীতে পুস্পস্থবক অর্পণ, একুশের গান, “মুজিব বর্ষেই ৫২ আর ৭১ এর চেতনা ধারণ করে সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ রুখে দিয়ে গণতন্ত্র সুসংহত করার ডাক” শীর্ষক আলোচনা সভা, সন্দীপনা ঘোষিত একুশের স্মারক সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ। সকাল দশটায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট সংষ্কৃতিসেবী এডভোকেট তপন কান্তি দাশ। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- সন্দীপনার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ভাস্কর ডিকে দাশ মামুন। সম্মানিত প্রধান অতিথি ছিলেন- সাবেক রাষ্ট্রদূত বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহিদুর রহমান। সম্মানিত অতিথি আলোচকবৃন্দের মাঝে উপস্থিত ছিলেন- জাপানের অনারারী কনস্যুলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহম্মদ নুরুল ইসলাম। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ নাছির, সাংবাদিক বেলায়েত হোসেন, হাবিবুর রহমান হাবিব, অধ্যক্ষ শেখ এ রাজ্জাক রাজু, সমাজ সেবক মো: হোসেন, সাংবাদিক তাজুল ইসলাম রাজু, সংগঠক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক, চট্টগ্রাম মহানগর ওলেমালীগের সভাপতি মওলানা ইসমাঈল মঞ্জুর আশরাফী, সাংবাদিক হারুনুর রশিদ, আইটি এক্সপার্ট ধনঞ্জয় শর্মা, উজ্জ্বল কান্তি বড়ুয়া প্রমুখ। সকাল ১১টায় সন্দীপনা ঘোষিত একুশে স্মারক সম্মাননা ২০২১ প্রদান করা হয়, সাহিত্য চর্চায়- বীর মুক্তিযোদ্ধা রমা চৌধুরী (মরনোত্তর), সঙ্গীত চর্চায়- আব্দুল গফুর হালী (মরনোত্তর), মহান মুক্তিযুদ্ধে অবদান- বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী আহাম্মদ, শিক্ষা ও সমাজ সেবায় অবদান- অধ্যক্ষ বিজয় লক্ষ্মী দেবী, শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে অবদান অধ্যাপক উপনান্দ মহাথের, সমাজ সংস্কার ও মানবিক উন্নয়নে অবদান- সংগঠক প্রদীপ কুমার বড়ুয়া আনন্দ, ফটোগ্রাফী শিল্পে অবদান- ফটো আর্টিস্ট দেব প্রসাদ দাশ দেবু, সমাজ সেবায় অবদান- মো: দেলোয়ার হোসেন।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পি এম এ হাশেম, উজ্জ্বল সিংহ, বাসুদেব রুদ্র, শিল্পী বৃষ্টি দাশ, শিল্পী জ্যোতি শর্মা, স্বর্ণময়ী শিকদার, মৈত্রী আশ্চার্য, নিবেদিতা আচার্য্য, নন্দীনি দেব, শিল্পি শর্মা প্রমুখ। সঙ্গীতানুষ্ঠানের পর লোকায়েত কবির গানে অংশ নেন কবিয়াল আবদুল লতিফ ও কবিয়াল সন্তোস কুমার দে।