রাউজান কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির নির্বাচন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

0
69

শফিউল আলম ,নিউজচিটাগাং২৪.কম।।রাউজান শান্তিরদ্বীপ কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির নির্বাচন প্রক্রিয়ায় চরম অনিয়ম হয়েছে newschittagong24.comবলে অভিযোগ উঠেছে। সমিতির একাধিক সদস্যের অভিযোগ সমিতির বিদায়ী সভাপতি মোজ্জাম্মেল হক নিজের প্রভাব খাটিয়ে আবারও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দায়িত্বে ফিরতে ব্যবস্থা পাকাপোক্ত করেছে। তবে মোজাম্মেল হক তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বিরোধী একটি চক্র এ অভিযোগ উঠিয়ে এই নির্বাচনকে বিলম্বিত করার চেষ্টা করছে।
অভিযোগ আছে বিদায়ী সভাপতি সমবায় অধিদপ্তরের কতিপয় কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে নির্বাচনী সিডিউল অন্যদের কাছ থেকে গোপন করেছে। যার কারণে সভাপতিও তার মনোনিত ছয় সদস্য ছাড়া অন্য কেউ মনোনয়নপত্র যথাসময়ে দাখিল করতে পারেনি।
জানা গেছে, নির্বাচন পরিচালনার জন্য গঠিত রিটানিং মনোনিত করা হয়েছিল উপজেলা সহকারী কৃষিকর্তা মনিরুল হক রুমেলকে। তিনি বদলী জনিত কারণে এই দায়িত্ব পালনে অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে বিষয়টি জেলা সমবায় কর্মকর্তার নিকট লিখিত ভাবে জানায় উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা রমা রানী দাশ। উপজেলা কর্মকর্তা তার লিখিত বক্তব্যে জেলা কর্মকর্তার কাছে সিডিউল প্রকাশের অনিয়মের বিষয়টিও তুলে ধরেছিলেন একই আবেদন পত্রে। জেলা কর্মকর্তা পরে রমা রানীকে নির্বাচনে রিটানিং অফিসার হিসাবে দায়িত্ব চালিয়ে যেতে বলেন।
এদিকে অনিয়মের এসব অভিযোগে গত ২৫ জুলাই চট্টগ্রাম জেলা সমবায় অফিসার বরাবর সমিতির দুই সদস্য আবুল মনছুর ও চন্দনা চৌধুরী অভিযোগ দায়ের করেছে। তারা বিতর্কিত সিডিউল বাতিল করে নতুন সিডিউল প্রকাশ করার দাবি জানান।
খবর নিয়ে জানা যায়, উপজেলার কেন্দ্রীয় এই সমিতির একজন সভাপতি, একজন সহ-সভাপতিসহ ছয়টি গ্র“পের ছয় জন সদস্য নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হওয়ার কথা। এখানে ভোটার সংখ্যা ১১০জন। নির্বাচন প্রক্রিয়া অনুসরণ করে প্রথমে রিটানিং অফিসার ও সচিব নির্বাচনী তফসিলে নিজেদের সাক্ষর করেন। পরে এই সিডিউল নোটিশ বের্ডে টাঙ্গানোর কথা। অভিযোগ রয়েছে সাক্ষর করা সিডিউল যথাসময়ে নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো হয়নি। এই নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গানো হয় মনোনয়নপত্রের সাথে ব্যাংকে জামানতের টাকার দাখিল পূর্বক রশিদ গ্রহনের সময় পার হয়ে যাওয়ার পর অর্থাৎ ২১ জুলাই বিকাল চারটার পর। একারণে নির্বাচনে আগ্রহীরা মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারেনি। ঘোষিত তফসিল অনুসারে ১৮ থেকে ২১ জুলাই মনোনয়নপত্র বিতরণ, ২৪ জুলাই বিকাল চারটার মধ্যে মনোনয়পত্র গ্রহন ও ১৯ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা আছে। তফসিল অনুসারে ২১ জুলাই এর মধ্যে মনোনয়নপত্রের জামানতের টাকা ব্যাংক থেকে রশিদপত্র নিয়ে জমা দেয়ার কথা। কিন্তু নোটিশ বোর্ডে বিলম্বে সিডিউল টাঙ্গানোর কারণে এই সুযোগ পায়নি মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। এ প্রসঙ্গে সমিতির অফিস সহকারী মোহাম্মদ জুয়েল বলেছেন আমি ৪-৩০ মিনিটে নোটিশ পেয়েছি। তখনই টাঙ্গিয়েছি। বিষয়টি নিয়ে কথা বললে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা রমা রানী দাশ অনিয়মের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন বহুমুখি চাপে অনিয়মের মধ্যে নির্বাচন সম্পর্ণ করতে হচ্ছে। তিনি আর কিছু জানতে অপারগতা প্রকাশ করেন । অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে সমিতির বিদায়ী সভাপতি মোজাম্মেল হক দাবি করেন, সমিতির সংশ্লিষ্ট লোকজন সব বিধি বিধান মেনে নির্বাচন প্রক্রিয়া এগিয়ে নিচ্ছে। আমার কার্যকাল শেষ হওয়ার পর দায়িত্ম ছেড়ে দিয়েছি এতে আমার কোন হাত নেই। অনিয়মের অভিযোগ সত্য নয়। অভিযোগকারীরা ব্যাংকে টাকা জমা না দিয়ে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করতে আসা নীতিমাল বহির্ভূত।