মেয়রকে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পরিবহন মালিক গ্রুপ’র স্মারক লিপি

0
4

চসিক স্মারকলিপি
চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পরিবহন মালিক গ্রুপ মেট্ট্রোপলিটন এলাকায় গণপরিবহনে নৈরাজ্য, বিশৃংখলা, অবৈধ সংগঠনের চাঁদাবাজি, রেজিষ্ট্রেশান বিহীন এবং অবৈধ সংগঠনের কার্যকলাপ বন্ধ ও রুট পারমিট বিহীন গাড়ী চলাচল বন্ধের দাবীতে ৩ এপ্রিল রবিবার দুপুরে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন এর নিকট চসিক কেবি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে ৯ দফা দাবি সংবলিত একখানা স্মারকলিপি প্রদান করে। স্মারক লিপিতে তারা রুট পারমিট বিহীন গাড়ী চলাচল বন্ধ করা। এক রুটের পারমিট নিয়ে অন্য রুটে চলাচল বন্ধ করা ও হিউম্যান হলারের পারমিট নিয়ে টেম্পো রুটে চলাচল বন্ধ করা। পারমিটের শর্তানুযায়ী গাড়ী শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত চলাচল নিশ্চিত করন। রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ও সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে ক্লাব/কল্যান সমিতির নামে নিবন্ধন করে গন-পরিবহন পরিচালনাকারী অবৈধ সংগঠনের চাঁদাবাজী ও কার্যক্রম নিষিদ্ধ ঘোষনা করা এবং বিভিন্ন মোর্টসের নামে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে রুট পরিচালনা কার্যক্রম বন্ধ করা। থানা পুলিশ কর্তৃক রিকুইজিশনের নামে চালক/মালিকদের হয়রানি বন্ধ করা। রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ও সমাজসেবা অধিদপ্তরের নিবন্ধন নিয়ে অবৈধ সংগঠন পরিচালনাকারী তথাকথিত নেতৃবৃন্দের অবৈধ ফেডারেশনের নামে মালিক/শ্রমিক/ট্রাফিক বিভাগ ও বি আর টি এ বরাবরে বিভিন্ন হুমকি ধামকি প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। মেয়াদোর্ত্তীর্ন মেট্টো আরটিসিতে শহরএলাকার মালিক/শ্রমিক প্রতিনিধি না থাকায় ১৯৮৮ সনের মোটরযান আইনের ৫৪ ধারা অনুযায়ী, সরকারের নীতিমালা ও প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী টি ও লাইসেন্সভুক্ত এবং আই আর ও লাইসেন্সভুক্ত বৈধ প্রতিনিধির সমন্বয়ে দ্রুত মেট্টো আরটিসি গঠন করা এবং কমিটি গঠন না হওয়া পর্যন্ত ২ বৎসর অতিবাহিত মেয়াদোত্তীর্ণ আরটিসি কমিটির পুনরায় সভা না করা। শহরের মুল সড়কে দোকান নিয়ে বসে হকাররা যাতে গাড়ী চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা। বি আর টি এ দালালমুক্ত করা ও সকল কার্যক্রম সি সি টিভির আওতায় আনার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা এবং বি আর টি এ তে মালিক/শ্রমিকদেরকে হয়রানি না করে যে কোন বিষয়ে দ্রুত সমাধানের ব্যবস্থা করা ইত্যাদি সহ ৯ দফা দাবী উত্থাপন করা হয়। স্মারকলিপি গ্রহণ করে সিটি মেয়র তাদের সকল দাবী যুক্তিযুক্ত বলে অভিহিত করেন। এ সকল বিষয়ে পুলিশ প্রশাসন বি আর টি এ’র সাথে সমন্বয় করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বাস্তবায়নের আশ্বাস প্রদান করে। সিটি মেয়র বলেন, আইন মেনেই সংশ্লিষ্টদের গণ পরিবহন পরিচালনা করতে হবে। ট্রাফিক ব্যবস্থাকে গতিশীল ও আধুনিকায়নের উপর তিনি জোর দেন। মেয়র বলেন, রাস্তা দখল করে কাউকে ব্যবসা বা অন্য কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতে দেয়া হবে না। রাস্তা দখলমুক্ত করতে ইতোমধ্যেই সময় নির্ধারন করে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, হকারদের শৃংখলার মধ্যে আনা হবে। নগরীকে বিশ্বমানের নগরীতে পরিণত করতে প্রয়োজনীয় সকল উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হবে। স্মারকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে সি এম পি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মাসুদ উল হাসান, বি আর টি এ’র উপ পরিচালক শহীদুল্লাহ, চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পরিবহন মালিক গ্রুপের প্রধান উপদেষ্টা আমজাদ হাজারী কার্যকরি সভাপতি ইকবাল মোহাম্মদ মনসুরুল করিম, মহাসচিব বেলায়েত হোসেন বেলাল, যুগ্ম মহাসচিব জিয়াউদ্দিন শরীফ মিজান, অর্থ সম্পাদক রায়হান উল হক চৌধুরী সহ গণ পরিবহনের মালিকবৃন্দ।