শহীদ আফ্রিদি শুভেচ্ছায় ভেসে যাওয়া

0
23

প্রতি বছর জন্মদিন এলে পাকিস্তানের অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি শুভেচ্ছায় ভেসে যাওয়ার পাশাপাশি বিড়ম্বনারও শিকার হন।

ক্রিকেটপ্রেমীরা তার অবসর ভাঙার খবর নিয়ে আলোচনায় মাতেন। এর সঙ্গে যুক্ত হয় তার বয়স নিয়ে নানা প্রশ্ন।

আর সব জন্মদিনের মতো এবারও বয়স নিয়ে সেই একই বিড়ম্বনায় পড়েছেন আফ্রিদি।

সোমবার আফ্রিদির জন্মদিন। জন্মদিন উপলক্ষ্যে রাত ১২টার পর থেকে শুভেচ্ছাবার্তায় ভেসে যাচ্ছেন বুমবুম আফ্রিদি। এরই মধ্যে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন– এটি আফ্রিদির কততম জন্মদিন? তার বয়স এখন কত?

বয়স নিয়ে বিড়ম্বনার শিকার না হতেই হয়তো আফ্রিদি নিজেই টুইটে তার বয়স জানিয়েছেন। রোববার রাত ১২টা পেরোতেই নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে আফ্রিদি তার বয়স ৪৪ বছর লিখেছেন। পাক
অলরাউন্ডার লিখেছেন– ‘সুন্দর সুন্দর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। ৪৪ হয়ে গেলাম আজ! আমার পরিবার আর সমর্থকরাই আমার বড় পুঁজি।’

কিন্তু তাতেও প্রশ্নটা থেকেই গেল। কারণ ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফোতে আফ্রিদির বয়স দেখাচ্ছে ৪১। আর ক্রিকেটের আরেক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকবাজ বলছে, এবার ৪০-এ পা রেখেছেন আফ্রিদি।

এমন দুই রকম তথ্য ঘেঁটে অনেকেই ভরসা করতে চাইবেন উইকিপিডিয়ার ওপর। কিন্তু তাতে বিড়ম্বনা আরও বাড়বে বই কমবে না। উইকিতে আফ্রিদির বয়স লেখা ৪৫!

মজার বিষয় হলো– আফ্রিদির দাবি, তিনি এখন ৪৪-এ। আর তার অটোবায়োগ্রাফি বলছে, তার বয়স আজ ৪৬ হলো।

এখন স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে পারে– আফ্রিদির বয়স আসলে কত বছর?

তবে ৪০ থেকে ৪৬ যেটিই হোক বয়সকে আফ্রিদি শুধু সংখ্যায় পরিণত করেছেন অনেক আগেই। জাতীয় দল ছাড়লেও ক্রিকেট ছাড়েননি এখনও। তার সময়ের ক্রিকেটাররা ২২ গজের মাঠ ছেড়েছেন অনেক আগেই। কিন্তু আফ্রিদি এখনও দেশি-বিদেশি ফ্রাঞ্চাইজি লিগে খেলে যাচ্ছেন নিয়মিত।

শুধু খেলছেনই না, লিগে তার পারফরম্যান্স তরুণদেরও হার মানাচ্ছে।

প্রসঙ্গত ক্যারিয়ারে ৩৯৮টি ওয়ানডে ম্যাচে ৮০৬৪ রান আর ৩৯৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়েছেন আফ্রিদি। পাকিস্তানের হয়ে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে ৫২৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার রেকর্ডও আছে তার নামে।

এ ছাড়া ২৭ টেস্টের ক্যারিয়ারে মাত্র ৫ সেঞ্চুরি আর ৮ ফিফটি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। অন্যদিকে ৯১ টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ১৪১৬ রান করেন। তবে আফ্রিদিকে শুধু ব্যাটিং দিয়ে মাপলে চলবে না। তার বোলিং হচ্ছে আসল শক্তির জায়গা। বোলার হিসেবে যে কোনো মুহূর্তে ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য আছে তার।

৩৯৮ ওয়ানডেতে হাত ঘুরিয়ে ৩৯৫ উইকেট (৯ ম্যাচে ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তিও আছে) তার বোলিং সামর্থ্যকে ঠিক তুলে ধরতে সক্ষম নয়। স্পিন বোলার হলেও তার বলের গতি প্রায়ই ব্যাটসম্যানদের বিভ্রান্ত করে দেয়।