পশ্চিমবঙ্গে মতুয়া ভোট টানতে বাংলাদেশের ওড়াকান্দি যেতে পারেন মোদি

0
55

কদিন পরই পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচন। পশ্চিম বাংলা জয়ে তাই একের পর এক সভা, মিছিল করে চলেছে বিজেপি। এহেন পরিস্থিতিতে চলতি মাসেই বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দি ঘুরতে চান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কারণ সেখানেই জন্ম মতুয়া (হিন্দুধর্মীয় একটি লোকসম্প্রদায়) ধর্মগুরু হরিচাঁদ ঠাকুরের। তার পুত্র গুরুচাঁদ ঠাকুরেরও জন্মস্থান ওড়াকান্দি। সংবাদ প্রতিদিনের এক রিপোর্টে একথা বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ প্রশাসন সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে ওই রিপোর্টে বলা হয়- ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে শ্রদ্ধা জানাতে টুঙ্গিপাড়া যেতে পারেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তখনই ওড়াকান্দি যেতে পারেন তিনি। প্রত্যন্ত এই গ্রামে একটি মন্দির রয়েছে, যা মতুয়া সম্প্রদায়ের কাছে সর্বোচ্চ মর্যাদার তীর্থস্থান হিসেবে গণ্য।
মোদি সেখানে গিয়ে মতুয়া ধর্মগুরু হরিচাঁদ-গুরুচাঁদকে প্রণাম করে এলে পশ্চিমবঙ্গের মতুয়া-ভোট টানা বিজেপির পক্ষে সহজ হবে বলে মনে করছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সংশ্লিষ্ট এক ভারতীয় আধিকারিক মোদির টুঙ্গিপাড়া সফরের পরিকল্পনা নিশ্চিত করলেও, ওড়াকান্দি যাওয়ার বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি। ভারতীয় ওই আধিকারিক বলেন, “যদি সবকিছু ঠিকঠাক চলে, তবে তার (মোদির) টুঙ্গিপাড়া সফরের জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে।”

বিশ্লেষকদের মতে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে মতুয়াদের নাগরিকত্বের দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে লোকসভায় এই সম্প্রদায়ের ঢালাও ভোট পেয়েছে বিজেপি। বনগাঁ লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচিত হয়েছেন হরিচাঁদ-গুরুচাঁদ ঠাকুরের উত্তরসূরি শান্তনু ঠাকুর। কিন্তু তারপর করোনাসহ একাধিক কারণে বিষয়টি আপাতত ঠান্ডা ঘরে। এর ফলে ক্রমে ক্ষোভ বাড়ছে মতুয়াদের মধ্যে। বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। মানুষের ক্ষোভের কথা বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বকে জানিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সম্প্রতি বনগাঁ-গাইঘাটায় সভা করে এলেও নাগরিকত্ব প্রশ্নের জবাব মতুয়ারা পাননি। তাই এবার পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই বাংলাদেশে মতুয়া-তীর্থ দর্শনে যেতে পারেন মোদি।