জয়ের দেয়া তথ্য সঠিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

0
23

‘আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসবে’ ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের এমন বক্তব্যের সমর্থন দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাhasina pm6 বলেছেন, জয়ের দেয়া তথ্য সঠিক। জরিপে পাওয়া গেছে, আওয়ামী লীগের প্রতি মানুষের আস্থা যে অবস্থায় আছে তাতে আবারো ক্ষমতায় আসা সম্ভব।।

তিনি বলেন, জয় একটা কথা বলেছে। সার্ভে করা হয়েছে। পোল করা হয়েছে। যে সার্ভে রিপোর্ট এসেছে তাতে দেখা যায়- আওয়ামী লীগের ওপর এখনও জনগণের আস্থা এবং বিশ্বাস আছে। আসনের দিক থেকে আওয়ামী লীগ ভালো পজিশনে আছে, ভালো রেজাল্ট করবে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে।

আজ রোববার প্রধানমন্ত্রী তার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

তথ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে)’র সভাপতি ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বিএফইউজে’র মহাসচিব আবদুল জলিল ভূইয়া, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)’র সভাপতি ওমর ফারুক, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক শাবান মাহমুদ ও তথ্য সচিব মর্তুজা আহমেদ বক্তৃতা করেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব শেখ মোহাম্মদ ওয়াহিদ উজ- জামান ও প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তি ক্ষমতায় ফিরে আসার ঝুঁকি এবং জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য ধর্মের নামে বিরোধী দলের অপপ্রচার সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করার ব্যাপারে সাংবাদিকদের ব্যাপক ভূমিকার কথা স্মরণ করিয়ে দেন।

তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের হাত থেকে মুক্তিপ্রদান এবং আবারও তাদের হাতে জাতীয় পতাকা তুলে দেয়ার বিরোধী দলের নীল নকশা সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করার ব্যাপারে সাংবাদিকদের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে।

অসুস্থ, অসচ্ছল ও আহত সাংবাদিক এবং মৃত সাংবাদিকদের পরিবারবর্গের মধ্যে আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের ব্যবস্থাপনায় সাংবাদিকদের কল্যাণে বর্তমান সরকারের আমলে গঠিত এক কোটি টাকার তহবিল থেকে এ আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ। কিন্তু বিএনপি মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তির কাছে জাতীয় পতাকা হস্তান্তর করেছিল। জনগণ এখন এটা ভেবে শঙ্কিত যে, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি আবার ক্ষমতায় ফিরে আসবে কি-না।

তিনি বলেন, বিরোধী দলের নেতা এবং মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তি আমাদের বিরুদ্ধে দেশে-বিদেশে অপপ্রচার চালাচ্ছে। একদিকে তারা অধর্মের কাজ করছে এবং অপরদিকে ধর্মের নামে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে।

গত ৫ মে শাপলা চত্বরে মৃতের সংখ্যা নিয়ে বিএনপি ও হেফাজতের দাবি খণ্ডন করে শেখ হাসিনা বলেন, জনগণকে তারা বিভ্রান্তিকর তথ্য দিচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার অতীতের যেকোন সরকারের তুলনায় ইসলামিক মূল্যবোধ ও নীতি-আদর্শ উন্নয়নে অনেক বেশি কাজ করলেও তারা আমাদেরকে ‘নাস্তিক’ বলে আখ্যায়িত করছে।

তিনি প্রশ্ন করেন- পবিত্র রমজান মাসে তারা কিভাবে মিথ্যাচার করতে পারে এবং বিরোধী দলের নেতা বাংলাদেশকে জিএসপি সুবিধা স্থগিত করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে পরামর্শ দিয়ে নিবন্ধ লিখতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ৫ মে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে হেফাজতের ৬১ জন কর্মী নিহত হয়েছেন বলে বেসরকারি সাহায্য সংস্থা ‘অধিকার’ যে দাবি করেছে তার স্বপক্ষে নিহতদের নাম প্রকাশ করার জন্য সরকার তাদেরকে নির্দেশ দেয়।

তিনি বলেন, সরকার নিহতদের পরিবারকে সাহায্য করতে চায় কিন্তু অধিকার আজ পর্যন্ত তাদের নাম দিতে পারেনি। তারা এখন সজীব ওয়াজেদ জয়ের সাম্প্রতিক একটি বক্তব্য বিকৃত করে বিভ্রান্তি ছড়াবার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার সাংবাদিকরা নানারকম ঝুঁকি এবং বিপদসংকুল পরিস্থিতির মধ্যে কাজ করে। একারণে সরকার তাদের জন্য কল্যাণ তহবিল গঠনের উদ্যোগ নেয়। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ইমাম, শিক্ষক ও ছাত্রদের জন্যও অনুরূপ তহবিল গঠন করেছে।

তিনি সাংবাদিকদের কল্যাণে একটি ট্রাস্ট ফান্ড গঠনের প্রস্তাব করেন এবং সরকারি-বেসরকারি খাত থেকে তহবিল সংগ্রহে সর্বাত্মক সহায়তার আশ্বাস দেন। তিনি সাংবাদিকদের আবাসনের জন্য আব্দুল্লাহপুরে জমি বরাদ্দেরও আশ্বাস দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার বাক-স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। তবে স্বাধীনতা ভোগ করার ক্ষেত্যে দায়িত্ববান হওয়া অপরিহার্য। তিনি বলেন, সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার সময় অন্যদের অধিকার যেন ক্ষুণ্ন না হয়- সেদিকে সবার দৃষ্টি রাখতে হবে।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যমের জন্য একটি যথাযথ নীতি প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, মিডিয়ার জন্য প্রত্যেক দেশের নিজস্ব আইন রয়েছে। তিনি তথ্যমন্ত্রীকে যত দ্রুতসম্ভব এই নীতি প্রণয়নের নির্দেশ দেন।

এ বছর ১৫৮ জন অসুস্থ, অসচ্ছল ও আহত সাংবাদিক এবং মৃত সাংবাদিকদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। তাদের ৫৩ জন আজ প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে চেক গ্রহণ করেন।