গৃহিণীর গরুর খামারে সাফল্য

0
20


পূজন সেন, বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:
চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের গৃহিণী মনোয়ারা বেগম। ২০১৬ সালে ৩টি গরু নিয়ে শুরু করেন খামার। খামারে এখন ৩১টি গরু রয়েছে। উৎপাদিত হচ্ছে দৈনিক ১২০-১৩০ লিটার দুধ। প্রতি লিটার ৬০-৬৫ টাকায় বিক্রি করছেন মনোয়ারা। প্রতি কোরবানের ঈদে বিক্রি করেন গরু। এবারের ঈদ উপলক্ষেও বিক্রির জন্য ৬টি গরু করেছেন মোটাতাজা।
শুরুটা হয়েছিল বাড়ির অল্প কিছু জায়গায়। এখন ৮০ শতক জায়গায় দাঁড়িয়েছে খামার। খামারের দেখাশোনার জন্য রয়েছে ৫জন কর্মচারী। গরুর খামারের সাথে সবজি চাষ, হাঁস, দেশি মুরগি ও ছাগল পালনের উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। পুকুরে করেছেন মাছের চাষ। এ খামারের নিরাপত্তায় ও সার্বক্ষণিক তদারকিতে লাগানো হয়েছে ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা। গরুর পরিচর্যায় ব্যবহার করা হচ্ছে অত্যাধুনিক যন্ত্র ও প্রযুক্তি। এ খামারের গো-খাদ্যের যোগানের জন্য আলাদা করে ৬০ শতক জমিতে লাগানো হয়েছে জার্মান ঘাস। খামারের গোবর সবজি চাষে সার হিসেবে ব্যবহার করেছে। পরিকল্পনা রয়েছে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট করার।
মনোয়ারার এ সাফল্যের পেছনে পরিবারের সদস্যদের ছিল বড় ধরণের সহযোগিতা। বিশেষ করে সরকারি চাকুরিজীবী স্বামীর অনুপ্রেরণায় তাকে এগিয়ে যেতে সাহস যুগিয়েছে।
৫ বছর আগে পরিবারে খাঁটি দুধের চাহিদা মেটাতে ৩টি উন্নত জাতের গাভী কিনেছিলেন মনোয়ারা। সেই থেকেই মূলত খামার গড়ার স্বপ্ন সত্যিই হতে থাকে মনোয়ারার। তিনি বলেন, বাড়ির আঙিনায় গোয়ালে গাভী পালন শুরু করেছিলাম। পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে উৎপাদিত দুধ এলাকার মানুষজন কিনে নেন। এভাবেই বাড়তে থাকে খামারের পরিধি। পুষ্টিকর, খাঁটি ও মান সম্পন্ন খাদ্য উৎপাদনে লক্ষ্যে গড়া বলেই এ খামারের নাম দিয়েছি ‘পিওর ডেইরী ফার্ম’।
উপজেলা প্রাণি সম্পদ কার্যালয়ে কর্মরত চিকিৎসকদের সার্বিক পরামর্শ পেয়ে আসছেন জানিয়ে মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে ও গো-খাদ্যের দাম বাড়তি থাকায় কিছুটা বিপাকে পড়তে হয়েছিল। এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে সরকার সম্প্রতি ২০ হাজার টাকা প্রণোদনা দিয়েছেন।’
উপজেলা প্রাণি সম্পদ কার্যালয়ের ভেটেরিনারী সার্জন ডা. আবদুল্লাহ আল মামুন সাগর বলেন, ‘এসব উদ্যোক্তারা দেশে দুধ ও মাংসের চাহিদার এক বিশাল যোগানদাতা। ফলে দেশের চাহিদা মিঠাতে বিদেশ নির্ভর হতে হচ্ছে না।’
মনোয়ারা বেগমের খামার দেখে এলাকার অনেকেই উৎসাহিত হচ্ছেন গবাধিপশু পালনে। বোয়ালখালীতে অনেক নতুন তরুণ উদ্যোক্তা গবাধিপশুর খামার গড়তে পরামর্শ নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।