সিআরবিতে নয়, পরিত্যক্ত জমিতে হাসপাতাল নির্মান করুন

0
6

নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের মানববন্ধনে ডা. শাহাদাত হোসেন

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, চট্টগ্রামের সিআরবি হচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত একটি ঐতিহাসিক স্থান। এখানকার স্থাপনা ধ্বংস, পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট ও গাছ নিধন কোনোভাবে কাম্য নয়।
এই ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা ধ্বংস ও পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করে কোনো প্রকল্প বাস্তবায়ন করলে তা সংবিধানের ১৮-ক ও ২৪ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন বলে বিবেচিত হবে। চট্টগ্রাম নগরীতে হাসপাতাল করার মতো রেলওয়ের অনেক জমি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। কিছু জমি প্রভাবশালীরা দখল করে আছেন। সেগুলো উদ্ধার করে হাসপাতাল নির্মান করা সম্ভব। তাই সিআরবিতে নয়, পরিত্যক্ত জমিতে হাসপাতাল নির্মান করুন। তিনি অবিলম্বে এই প্রকল্প বাতিল করে শতবর্ষী গাছ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্য এলাকাটিকে বিশেষ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এলাকা এবং শতবর্ষী গাছগুলোকে স্মারক বৃক্ষ হিসেবে ঘোষণার দাবি জানান।

তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রামের ফুসফুস খ্যাত সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মানের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সিআরবি এলাকায় চট্টগ্রাম মহানগর নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের প্রতিবাদী মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। পরে তিনি সিআরবি এলাকায় বৃক্ষ রোপন করেন।

ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, আবহাওয়া ও জলবায়ুর ভারসাম্য রক্ষায় বনায়নের গুরুত্ব অপরিসীম। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশে ব্যাপকভাবে গাছ লাগানো কর্মসূচি শুরু করেছিলেন। কিন্তু বর্তমান সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসার পর থেকে সারাদেশে অবাধ ও নির্বিচারে বৃক্ষ নিধন চলছে। ইতিমধ্যে চট্টগ্রামের আউটার স্টেডিয়াম, শহীদ জিয়ার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত বিপ্লব উদ্যান, পাঁচলাইশ জাতিসংঘ পার্ক উন্নয়নের নামে শেষ করে দিয়েছে। এবার ফ্লাইওভারের নামে টাইগার পাসের সৌন্দর্য এবং হাসপাতালের নাম দিয়ে সিআরবি ধ্বংস করার পাঁয়তারা করছে। নির্বিচারে বৃক্ষ নিধনের ফলে নানাধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটছে। পরিবেশ বিপর্যয়ের জন্য মানুষ মারা যাচ্ছে। তাই চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কেন্দ্রভূমি সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মানের সিদ্ধান্ত বাতিল না করলে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর বলেন, পৃথিবীকে মানুষের বসবাসের উপযোগী করতে বৃক্ষের ভূমিকা অনেক। বনাঞ্চল না থাকলে পৃথিবী হয়ে ওঠত মরুভূমি এবং মানুষের অস্তিত্ব হতো বিপন্ন। পরিবেশ বিপর্যয়ের জন্য আজ প্রতিদিন বজ্রপাতে মানুষ মারা যাচ্ছে। বড় বড় গাছ বজ্রপাত প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা রাখে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী গড়তে বৃক্ষ নিধন নয়, বৃক্ষ রোপনই আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত। তাই আসুন গাছ লাগাই, গাছের পরিচর্যা করি এবং পরিবেশ রক্ষায় সচেষ্ট হই।

চট্টগ্রাম মহানগর নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের আহ্বায়ক সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচির সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব ডা. বেলায়েত হোসেন ঢালী’র পরিচালনায় উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচীতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপি’র আহবায়ক কমিটির সদস্য মো. কামরুল ইসলাম, নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের নেতা জেলী চৌধুরী, ডা. কাজী মাহবুব আলম, ডা. এস.এম সারোয়ার আলম, ডা. ময়নাল হোসেন, এডভোকেট আয়েশা আক্তার সানজি, এডভোকেট আসমা খানম, আমান উল্লাহ আমান, তাসলিম আহমেদ লিমা, নারীনেত্রী জোহরা বেগম, এডভোকেট মো. জিয়াদ, আসাদুর রহমান টিপু, আরশে আজিম আরিফ, শরমিন নিপু, মাহবুব খালেদ, রিপন মাহমুদ, আহমেদুল ইসলাম সাদ, শ্রমিক নেতা আমির হোসেন প্রমুখ।